Header Top

একদিন গুগল না থাকলে...

মিজানুর রহমান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ধর্মঘটের হুমকি দিয়েছেন গুগলের প্রকৌশলীরা। সঙ্গে যোগ হয়েছেন অন্যান্য কর্মীও। কী ঘটতে পারে এতে। এমন যদি হয়- একদিন গুগলের সব সেবা বন্ধ থাকলো- তাহলে কী হবে?

যৌন নিপীড়ন ইস্যুতে বড় কর্তাদের ছাড় দেওয়ায় ধর্মঘটের মুখে পড়েছে টেক জায়ান্টটি। বিশ্বজুড়ে তাদের ৭৬ অফিসের হাজারো কর্মী আজ কর্মবিরতিতে যাওয়ার পরিকল্পনা নিয়ে এগোচ্ছে।

ধর্মঘটে সত্যি যদি গুগল আজ বন্ধ হয়ে যায়? এ ঘটনায় ভাবনায় এসেছে বিশ্বজুড়ে এ টেক জায়ান্টের প্রভাব কতখানি। এক কথায় মনে হয় জবাব দেওয়া খুবই কঠিন। ঠিক কতখানি তা দেখতে হলে জানতে হবে গুগলের সেবা ও পণ্য কী কী।

গুগলের সর্বাধিক ব্যবহৃত সেবা ও পণ্য হচ্ছে- অ্যান্ড্রয়েড, গুগল, গুগল ক্রোম, জিমেইল, প্লেস্টোর, ইউটিউব, গুগল ম্যাপ, গুগল ড্রাইভ, গুগল ফটো, গুগল অ্যাডসেন্স, গুগল অ্যাডওয়ার্ডস, ব্লগার, গুগল বুকস, গুগল ট্রান্সলেট ইত্যাদি।

এগুলোর প্রতিটি এত বেশি ব্যবহৃত যে একদিনের জন্য এসব সেবা না পাওয়া গেলে মানুষের স্বাভাবিক জীবনধারা ব্যাপকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হবে।

এ ধরা যাক আপনি অ্যান্ড্রয়েড ফোনে গুগল ক্রোম ব্যবহার করে গুগল সার্চের মাধ্যমে একটি স্থান খুঁজে সেটি গুগল মাপসের মাধ্যমে ওপেন করলেন। এই পুরো পদ্ধতিতে যতগুলো অ্যাপ আপনি ব্যবহার করলেন তার সবগুলোই গুগলের। একেবারে ইনসেপশনের মতো বিষয়।

বিভিন্ন তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক ওয়েবসাইটের তথ্য সহায়তায় টেক শহর ডটকম বিশ্লেষণ করেছে যদি একদিনের জন্য গুগলের সব সেবা বন্ধ হয়ে যায়- তাহলে কী ঘটবে। চলুন দেখা যাক কী কী হতে পারে :

১. শুরুতে মানুষ ভাববে তার ইন্টারনেট নাই। কারণ সাধারণত প্রায় সকলের হোমপেইজ হিসেবে গুগল সেট করা থাকে। তাই হোমপেইজে ‘সার্ভার এরর’ দেখালে সবাই মনে করবে ইন্টারনেট নেই এবং সে তার আইএসপিকে কল করবে। এ নিয়ে কয়েক দফা বাকবিতণ্ডাও হবে। ৩০ শতাংশ ইন্টারনেট ট্রাফিক কমে যাবে।

২. সমস্যা কী তা জানতে গুগল করা যাবে না, কারণ এ সার্চ ইঞ্জিন কাজ করবে না।

৩. কাউকে ফোনে বিষয়টি জানাতে পারবেন না। কারণ আপনার সব নম্বর গুগল কনট্যান্টে সেভ করা আর সেটি কাজ করবে না। যদি সিম, ফোন বা মুখস্ত নম্বর থাকে তাহলেই রক্ষা।

৪. অনেকেই পথ হারাবেন। কারণ প্রতিদিন গুগল ম্যাপসের মাধ্যমে অনেক মানুষ গন্তব্য খুঁজে পায়। গুগল ম্যাপ কাজ করা বন্ধ করে দিলে অনেকেই গন্তব্য হারিয়ে ফেলবেন। তাই হারানো বিজ্ঞপ্তির মাইকিং বাড়বে!

৫. বিশ্বজুড়ে বিনোদনের ক্ষেত্রে ভাটা পড়বে। কারণ অনেকেই বিনোদনের জন্য ইউটিউব নির্ভর।

৬. ব্লগাররা গুগলের সমস্যা নিয়ে ব্লগও লিখতে পারবেন না। কারণ ব্লগারও গুগলেরই পণ্য ও সেটির সার্ভারও ডাউন থাকবে।

৭. ইউটিউবে ‘হাউ টু ফিক্স গুগল প্রব্লেম’ এই ধরনের টিউটোরিয়াল ভিডিও দেখা যাবে না কারণ ইউটিউবও কাজ করবে না।

৮. ইয়াহু, আস্ক ও পিপিলিকার মতো সার্চ ইঞ্জিনগুলো মাত্রাতিরিক্ত ট্রাফিক পাওয়া শুরু করবে এবং অনেকগুলোর সার্ভার ক্র্যাশ করবে ফলে সমস্যা আরও প্রকট হবে।

৯. ফেসবুকের নিউজফিডে গুগল ইজ ডাউন পোস্ট ছাড়া অন্য কোনও পোস্ট চোখে পড়বে না।

১০. টুইটারে হ্যাশট্যাগ গুগল ইজ ডাউন এক নম্বর ট্রেন্ডিং এ থাকবে।

১১. যেহেতু জিমাইল কাজ করবে না তাই অন্য ফ্ল্যাটফরমে যেমন ইয়াহু, হটমেইলে ইমেইল খুলবেন অনেকেই।

১২. টেলিভিশন, নিউজ সাইটসহ সব ধরনের সংবাদ মাধ্যমের এক নম্বর খবর থাকবে গুগলের সমস্যা। এমনকি পরদিন প্রিন্ট পত্রিকাগুলোর শীর্ষ খবর হবে এটি।

১৩. গুগল অ্যাডওয়ার্ডস, অ্যাডসেন্স, প্লেস্টোর ডাউন থাকার কারণে প্রায় বিলিয়ন ডলারের ক্ষতির মুখে পড়বে কোম্পানিটি।

১৪. ডিকশনারি খুলে অনুবাদ করতে হবে। কারণ গুগল ট্রান্সলেটরও কাজ করবে না।

১৫. ফাইল কনভার্টার সফটওয়্যারের জনপ্রিয়তা বাড়বে কারণ বড় মেইল করার জন্য ‘গুগল ড্রাইভ’ কাজ করবে না।

১৬. গুগল পিকস ও কাজ করবে না তাই আপনার মনে হবে সব স্মৃতি হারিয়ে গেছে।

১৭. অনলাইন ভিত্তিক প্রায় সব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ক্ষতিগ্রস্ত হবে। কারণ তারা গুগলের ওপর মারাত্মকভাবে নির্ভরশীল।

১৮. ফেসবুক একটি সার্চ ইঞ্জিনের ঘোষণা দিতে পারে।

১৯. অবশেষে যখন গুগল সমস্যা কাটিয়ে অনলাইনে আসবে, তখন তারা দুঃখ প্রকাশ করে একটি বার্তা দেবে এবং এ নিয়ে আলোচনা চলবে পরের কয়েক দিন।

অর্থাৎ, একদিনের জন্য গুগলের কিছু হলে বিশ্বের প্রতিটি ইন্টারনেট যুক্ত ঘরে অশ্বস্তি বিরাজ করবে।

এমআর/আরআর/নভে ১/২০১৮/১৩.৩০

*

*

আরও পড়ুন