Header Top

কল অব ডিউটিতে বাংলাদেশের তানভীর

Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কল অব ডিউটি খেলছেন। দিয়াগো নিকোলি, স্কালেট রোডস বা সামন্ত ম্যাক্সিসের হাতে অস্ত্র রেখে লড়ে যাচ্ছেন শত্রুদের বিরুদ্ধে, জয় করে চলেছেন একের পর এক যুদ্ধক্ষেত্র।

কেমন লাগবে যদি আপনারই স্বদেশী কেউ এই চরিত্রগুলো তৈরি করে থাকে !

হ্যা,  বিশ্বজুড়ে তুমুল জনপ্রিয় এই  ফার্স্ট পারসন শুটিং গেইমের নতুন পর্ব ‘কল অব ডিউট ব্ল্যাক অপস ৪’ -এর অনেকগুলো চরিত্রই বাংলাদেশের তানভীর ইসলামের তৈরি করা।

শুধু কল অব ডিউটি নয়, গড অব ওয়্যার, মনস্টার হান্তার ওয়ার্ল্ড , শ্যাডো অব ওয়ার, পেডে, ‘স্নাইপার ফোরসহ আরও অনেকগুলো গেইমের অসংখ্য চরিত্র তার হাতে তৈরি।

তানভীর প্রধান চরিত্র শিল্পী হিসেবে কাজ করেন চীনভিত্তিক ‘রেডহট সিজি’ নামের একটি গ্রাফিক্স ও অ্যানিমেশন স্টুডিওতে। সেই স্টুডিও বিভিন্ন গেইমের কাজ আউটসোর্সিং করে। সর্বশেষ কল অব ডিউটি গেইমের কাজ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

এই কাজের অংশ হিসেবে তানভীর গেইমটির কয়েকটি প্রধান চরিত্রের গ্রাফিক্স ও ত্রিমাত্রিক ডিজাইনের কাজ করেছেন। দিয়াগো নিকোলি, স্কালেট রোডস, সামন্ত ম্যাক্সিস ছাড়াও স্ট্যান্টন শো, হাই প্রিষ্ট, নিকোলাই বেলিনস্কি ইত্যাদির অনেক চরিত্র রয়েছে এই গেইমে। যার কোনো কোনোটি তানভীরের তৈরি।

তানভীর ইসলাম এখন থাকেন চীনের সাংহাইতে। সেখান হতে টেকশহরডটকমকে বলেন, যে গেইমগুলো কম্পিউটারে খেলতাম সেই গেইমে কাজ করতে পেরে বেশ ভালো লাগেছে।

‘যখন কাজ করছিলাম তখন জানতাম না চরিত্রগুলো হতে যাচ্ছে গেইমের প্রধান চরিত্র। পরে বিষয়টি জানতে পেরে আমি অভিভূত হয়েছি’, বলেন তানভীর।

তিনি বলেন, আমি ১৮ বছর ধরে এসব নিয়ে কাজ করছি। অনলাইনে নানা টিউটোরিয়াল ঘণ্টার পর ঘণ্টা চেষ্টা করে কাজ শিখেছি আমি। এছাড়া চারুকলায় গ্রাজুয়েশনটা গুরুত্বপূর্ণ ছিল।

‘গ্রাফিক্স, অ্যানিমেশন ও ত্রিমাত্রিক ডিজাইনের কাজ করতে ধৈর্য্যের প্রয়োজন, অনেক সময় দিতে হয়। আর কাজটিকে ভালোবাসতে হবে।’-এটি হচ্ছে ভাল কাজ করার মূলমন্ত্র।

কল অব ডিউটির ইতিহাসে এই পর্বটি সবচেয়ে বেশি জনপ্রিয়তা পেয়েছে ও বিক্রি হয়েছে। গেইমটি প্লেস্টেশন, এক্সবক্সে সবচেয়ে বিক্রিত গেইমের তালিকায় ছিল উন্মোচনের প্রথম দিন থেকেই। এটা থেকে গেইমটির জনপ্রিয়তা আঁচ করা যায়। তবে মোট কত আয় হয়েছে সে সম্পর্কে জানায়নি গেইম নির্মাতা প্রতিষ্ঠানটি।

২০১০ সালে উন্মোচন হওয়ার কল অব ডিউটি গেইমের প্রথম সংস্করণটি এক মাসে আয় করেছে ১০০ কোটি মার্কিন ডলার।

কল অব ডিউটি গেইমটি মূলত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ অবলম্বনে তৈরি। তবে ‘কল অব ডিউটি : মডার্ন ওয়ারফেয়ার’; ‘কল অব ডিউটি : মডার্ন ওয়ারফেয়ার ২’ আধুনিক যুদ্ধ এবং ‘কল অব ডিউটি : ব্ল্যাক অপস’ ভিয়েতনাম যুদ্ধ ও স্নায়ু যুদ্ধকে কেন্দ্র করে তৈরি। আর নতুন পর্বটি আধুনিক যুদ্ধকেন্দ্রিক।

টিএ/ইএইচ/এডি/অক্টো২০/২০১৮/১৬৫০

*

*

আরও পড়ুন