মাইক্রোসফট সল্যুউশন বাস্তবায়ন করলো ইজেনারেশন

egeneration-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ইজেনারেশন পাঁচটি প্রতিষ্ঠানে সফলভাবে মাইক্রোসফট সল্যুউশন বাস্তবায়ন করেছে।

গত বৃহস্পতিবার রাজধানীর এক হোটেলে অনুষ্ঠানের মাধ্যমে সল্যুশন বাস্তবায়নের খবর জানায় ইজেনারেশন।

প্রতিষ্ঠানটি বাংলাদেশ সেনাবাহিনী, ব্যাংক এশিয়া, ডাচ-বাংলা ব্যাংক, আনোয়ার গ্রুপ ও বিকাশকে গত জুলাই থেকে সেপ্টেম্বর প্রান্তিকে মাইক্রোসফট সল্যুউশন বাস্তবায়ন করেছে।

মাইক্রোসফটের সাউথ ইস্ট এশিয়া নিউ মার্কেটসের প্রেসিডেন্ট সুক হুন চিয়াহ  বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর বিগ্রেডিয়ার জেনারেল ইকবাল আহমেদ, ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক একেএম শিরিন, আনোয়ার গ্রুপ অব ইন্ডাস্ট্রিজের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসেইন খালেদ, ব্যাংক এশিয়ার অতিরিক্ত ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মাদ জিয়া মোল্লাহ ও বিকাশের সাপ্লাই চেইন অ্যান্ড প্রোকিউরমেন্ট ব্যবস্থাপক এসএম সাকলানুল হক রুমনের হাতে ক্রেস্ট তুলে দেন।

ইজেনারেশন প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানায়, এসব প্রতিষ্ঠানে মাইক্রোসফটের ম্যাসেজিং সল্যুউশনস, অফিস ৩৬৫, অ্যাজিউর হাইব্রিড অ্যান্ড ক্লাউড সল্যুউশনস, সিস্টেম সেন্টার প্রোডাক্টস অ্যান্ড সল্যুউশনস, মাইক্রোসফট ডায়নামিকস ৩৬৫, পাওয়ার বি, শেয়ারপয়েন্ট ইত্যাদি সল্যুউশন বাস্তবায়ন করা হয়েছে।

এছাড়াও ইজেনারেশন ও মাইক্রোসফটের যৌথ আয়োজনে অনুষ্ঠানে ‘ডিজিটাল ট্রান্সফরমেশন উইথ ইমার্জিং টেকনোলজিস’ নলেজ শেয়ারিং সেশন অনুষ্ঠিত হয়। ইজেনারেশনের পক্ষে ছিলেন পরিচালক (কৌশল ও পরিকল্পনা) সৈয়দা কামরুন আহমেদ, নির্বাহী ভাইস চেয়ারম্যান এসএম আশরাফুল ইসলাম, পরিচালক (উন্নয়ন) রুমি এফ আহসান।

মাইক্রোসফটের পক্ষে পার্টনার ডেভেলপমেন্ট অ্যাডভাইজর মোহাম্মাদ আরিফ হোসেন ও কর্পোরেট অ্যাকাউন্ট লিড জিয়াউল হক মল্লিক ছিলেন।

সুক হুন চিয়াহ বলেন, ডিজিটাল রূপান্তরের মাধ্যমে ২০২১ সাল নাগাদ এশিয়া প্যাসিফিক অঞ্চলের জিডিপি এক ট্রিলিয়ন ডলারের বেশি প্রবৃদ্ধি আশা করা হচ্ছে। ক্লাউড সেবা গ্রহণের আগ্রহ ও ডিজিটাল ইকোনমি হওয়ার প্রবণতা থাকায় এক্ষেত্রে বাংলাদেশ এবং দক্ষিণ এশিয়ার বাজারগুলোর বড় সম্ভাবনা রয়েছে।

মাইক্রোসফটের বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান ও লাওসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সোনিয়া বশির কবীর বলেন, ইন্টেলিজেন্ট ক্লাউড গ্রহণের মাধ্যমে ব্যবসায়কে শক্তিশালী করতে আমরা যৌথভাবে কাজ করছি। মাইক্রোসফট প্রযুক্তির মাধ্যমে উন্নয়ন ত্বরান্বিত, প্রতিষ্ঠানের ক্ষমতায়ন বৃদ্ধি এবং আরোও লক্ষমাত্রা অর্জনে প্রতিজ্ঞাবদ্ধ।

শামীম আহসান বলেন, সিস্টেম ইন্টিগ্রেটর হিসেবে ইজেনারেশন সক্ষমতা তৈরি করেছে। জালিয়াতি ধরা, সমন্বয়, রিপোর্টিং, ম্যানেজমেন্ট, ক্লিয়ারিং, সেটেলমেন্ট, প্রোডাক্ট ডেভেলপমেন্ট ইত্যাদিতে সহায়তা করার জন্য মাইক্রোসফট ও অন্যান্য অংশীদারদের সঙ্গে ঘনিষ্ঠভাবে কাজ করে যাচ্ছে।

এজেড/অক্টো ১৫/২০১৮/ ১৭৪০

*

*

আরও পড়ুন