ভ্রমণে গ‍্যাজেটের যত্ন

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কন্টেন্ট কাউন্সিলর : প্রিয় ডিভাইস ছাড়া ঘর হতে কেউ এক পাও বের হতে চায় না। কয়েকদিনের ভ্রমণে বের হলে তো অন্তত কয়েকটি গ্যাজেট নেওয়াই চাই।

স্মার্টফোন, ক্যামেরা, হেডফোনের সঙ্গে নিদেনপক্ষে পাওয়ার ব্যাংক নেওয়া চাই-ই চাই।

দীর্ঘ বা স্বল্প সময়ের ভ্রমণেও প্রিয় গ্যাজেটগুলো আপনাকে সঙ্গ দেবে। আপনার ভ্রমণকে করবে সহজ ও মজাদার- এট খুবই কমন সাইকোলজি। তাই সকলেই প্রিয় ডিভাইসকে সবার আগে ব্যাগে ভরে নেন।

তবে ভ্রমণের সময় এসব গ‍্যাজেটগুলোর ব্যবহারে থাকতে হবে সাবধান। রোদ কিংবা বর্ষায় নিতে হবে বিশেষ যত্নও। ভ্রমণ সহায়ক গ‍্যাজেটগুলোর যত্নের অনেক কিছুই থাকছে এ প্রতিবেদনে।

স্মার্টফোন রাখুন নিরাপদে

ভ্রমণের সময় স্মার্টফোনটিই আপনার সবচেয়ে বেশি কাজে দেবে। তাই এটির দিকে বিশেষ নজর রাখতে হবে। আপনার ফোনটিতে পানিরোধক সুবিধা না থাকলে আলাদা নজর রাখুন এ দিকে। কেননা এখন হুটহাট বৃষ্টির কবলে পড়তে পারেন। তাই ফোনটিতে বাঁচাতে সঙ্গে পানিরোধক ব‍্যাংক রাখুন।

অনেক সময় হাত থেকে ফোন পরে যেতে পারে। তাই যাত্রাকালে জানালার পাশে ফোন ব্যবহারে সতর্ক হোন। আর ধাক্কা লেগে পরে গিয়ে ডিসপ্লে ভাঙ্গার আশংকা থেকেও সাবধনা থাকুন। এ ক্ষেত্রে ভ্রমণ শুরুর আগে শক্ত গ্লাস প্রক্টেটর কিংবা ব‍্যাক কাভার লাগিয়ে নিতে পারেন।

দূরের যাত্রায় ফোনের ক‍্যামেরায় ধুলােবালি পড়লে তা টিস‍্যু বা পাতলা কাপড় দিয়ে মুছে ফেলুন। পকেটে রাখার সময় সাবধানে রাখুন।

ক্যামেরা

শুরুটা করা যাক ক্যামেরা দিয়ে। ভ্রমণে সবচেয়ে প্রয়োজনীয় ও নিত্য সঙ্গী হলো ছবি তোলার এ যন্ত্রটি। ভ্রমণকালে দশর্ণীয় স্থানগুলোকে ক্যামেরা বন্দি করে রাখতে চাই সবাই। এতে ভ্রমণের স্মৃতিগুলো হারিয়ে যায় না।

ছবি তোলার জন্য বর্তমানে ডিএসএলআর ক্যামেরার প্রচলন বেশি। তবে ক‍্যামেরা সঙ্গে নিলেই হবে না। যত্নও করতে হবে।

ক্যামেরার প্রধান শত্রু হলো পানি। ভ্রমণকালে যে কোনো সময় ক‍্যামেরায় পানি লাগার সম্ভাবনা রয়েছে। তাই পানির সংস্পর্শ থেকে ক্যামেরাকে দূরে রাখুন। ক্যামেরাকে সবসময় ধুলোবালি বিহীন ঠান্ডা স্থানে রাখতে হবে।

ডিজিটাল ক্যামেরা বহনের ক্ষেত্রে উপযুক্ত ব্যাগ ব্যবহার করতে হবে। পেশাদারি কাজে ব্যবহারের জন্য দূরের যাত্রায় ক্যামেরার সঙ্গে নরম কাপড় পেঁচিয়ে ব্যাগে রাখতে হবে। এতে কোনো কারণে ক্যামেরায় আঘাত লাগলেও ক্ষতি থেকে রেহাই পাবে।

লেন্স সব সময় নরম কাপড় দিয়ে পরিষ্কার করতে হবে।  ক্যামেরার লেন্স ব্যবহারের ক্ষেত্রে এক লেন্স থেকে অন্য লেন্স বদলাতে কম সময় নিতে হবে। যাতে ভেতরে ধুলােবালি প্রবেশ করতে না পারে। ক্যামেরা ব্যবহারের পর ব্যাটারি খুলে রাখতে হবে।

ধুলোবালি ক্যামেরার জন্য সবচেয়ে ক্ষতিকর বস্তু। এসএলআর ক্যামেরাগুলিতে সেন্সর পরিস্কার করা যায় মেন্যু থেকে কমান্ড দিয়ে। নিয়মিতভাবে সেটা করে নিন। অথবা প্রয়োজন হলে লেন্স খুলে পরিস্কার নরম কাপড় দিয়ে মুছে নিন।

পাওয়ার ব‍্যাংক

ভ্রমণের সময় সবচেয়ে বেশি সমস্যায় পড়তে হয় হাতে থাকা স্মার্ট ডিভাইসটি নিয়ে। ফুল চার্জ নিয়ে ঘর থেকে বের হলেও দিনের অর্ধেক সময় যেতে না যেতেই ডিভাইসের চার্জ যায় ফুরিয়ে।

স্মার্টফোনের চার্জ দ্রুত শেষ হয়ে গেলে পড়তে হয় বিপাকে। নতুন কোনো জায়গা খুঁজে পেতে প্রয়োজন হয় গুগল ম্যাপেরও। এ ক্ষেত্রে ডিভাইসে চার্জ না থাকলে সমস্যা। তাই ভ্রমণের সময় অবশ্যই পাওয়ার ব্যাংক সঙ্গে নিয়ে যেতে হবে।

পাওয়ার ব্যাংক সাধারণত জরুরি সময়ে এবং ট্র্যাভেল করার সময় বেশি ব্যবহৃত হয়। তাই এটি হওয়া উচিত রাফ ইউসের উপযোগী। পাশাপাশি এটি পাতলা ও সুবিধাজনক আকারের হওয়া উচিত। ফলে এটিকে সব জায়গায় সহজেই বহন করা যাবে।

তবে ভালো পাওয়ার ব্যাংক কিনলেও একটি বিষয় খেয়াল রাখতে হবে তা হলো, এটি শক্ত হওয়া জরুরি। যাতে পড়ে গেলে বা যে কোনো সামান্য আঘাতে যেন ডিভাইসটি ক্ষতিগ্রস্ত না হয়।

মনে করে পাওয়ার ব্যাংক সব সময় চার্জ দিয়ে রাখতে হবে। অন-অফের অপশন থাকলে মোবাইলে চার্জ না দেওয়া অবস্থায় পাওয়ার ব্যাংকটি অন করে রাখবেন না।

মোবাইল ফোনের মতোই এর যত্ন নিতে হবে। পানিতে ভেজাবেন না।

সেলফি স্টিক
বর্তমানে চলছে সেলফি উন্মাদনার যুগ।  বন্ধুদের আড্ডা থেকে শুরু করে ভ্রমণকালে সেলফি তোলা যেন নিয়মে পরিণত হয়েছে। বিশেষ করে গ্রুপ ছবি তোলার জন্য সেলফির কদর বেশি। সেলফি তোলাকে আরও আকষর্ণীয় করে সেলফি স্টিক।

বাজারে বিভিন্ন ধরনের সেলফি স্টিক পাওয়া যায়। অনেক সেলফি স্টিকের সঙ্গে রিমোট কন্ট্রোল পাওয়া যায়, যা চার্জে দিতে হয়। তাই ভ্রমণের আগে আপনার সেলফি স্টিকে কন্ট্রোল থাকলে তা অবশ‍্যই চেক করে নেবেন চার্জ দেয়া আছি কিনা।

সেলফি স্টিকের যে স্থানে মোবাইল সংযুক্ত করে ছবি তুলবেন তা সব সময় পরিষ্কার রাখবেন যেন মোবাইল কোন দাগ না পরে। অনেক সময় সেলফি স্টিক দিয়ে দ্রুত ছবি তুলতে গিয়ে ফোনটি পরে যেতে পারে। তাই ফোনটি স্টিকের সাথে শক্তপোক্ত সংযোগ করতে হবে।

 

হেডফোন:

যাত্রা পথে বাস বা ট্রেনে দীর্ঘ সময় বসে থাকাটা বিরক্তের কারণ হতে পারে। তবে যদি গান শোনা যায় তাহলে কিছুটা বিরক্তি কমে যাবে। বাস বা ট্রেনে লাউড স্পিকারের গান শুনা যায় না, এতে করে অন্যের অসুবিধা হতে পারে। তাই প্রয়োজন একটি ভালো মানে হেডফোন।  ভ্রমণকাল হেডফোন অবশ্যই সঙ্গে নেয়া উচিত।

ফোন বা আইপ্যাডের সঙ্গে শক্ত করে হেডফোন জড়াবেন না। এতে হেডফোনের তার কেটে যাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। ফলে খুব সাবধানে গুছিয়ে রাখতে হবে হেডফোন। ফোনের জ্যাকে ঢোকানো অবস্থায় কখনওই প্যাক করা উচিত নয় হেডফোন। এতে ছিঁড়ে যেতে পারে হেডফোনের তার বা জ্যাকের সংযোগস্থল।

যদি অনেক দিন হেডফোন অব্যবহৃত অবস্থায় থাকে এবং সেই হেডফোন যদি ব্যাটারি চালিত হয়, তা হলে অবশ্যই ব্যাটারি খুলে রাখুন। ট্রাভেলের সময় অবশ্যই একটি খাপে ভরে রাখুন হেডফোন। অফিস বা বাড়িতেও হেডফোন রাখার জন্য স্ট্যান্ড ব্যবহার করুন।

তুসিন আহমেদ

*

*

আরও পড়ুন