ট্রিলিয়ন ডলার কোম্পানির পথে অ‍্যাপলের ব‍‍্যর্থতাগুলো

Apple-techshohor
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কন্টেন্ট কাউন্সিলর : বিশ্বের প্রথম ট্রিলিয়ন ডলার বাজার মূল্যের কোম্পানি হয়েছে টেক জায়ান্ট অ্যাপল।

প্রতিষ্ঠানটির তৈরি আইফোন ও ম‍্যাকবুক বিশ্বে জনপ্রিয়তার শীর্ষে রয়েছে। সবচেয়ে দামি প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান হতে অনেক প্রতিকূলতার মধ‍্যে দিয়ে যেতে হয়েছে অ‍্যাপলকে।

প্রতিষ্ঠানটির বিভিন্ন পণ‍্যের সফলতা যেমন রয়েছে তেমনি ব‍্যর্থতার তালিকাতেও রয়েছে কিছু পণ‍্য। অ্যাপলের চলতি পথে থাকা ব‍্যর্থ পণ‍্যগুলো নিয়েই এই প্রতিবেদন।

অ‍্যাপল থ্রি
১৯৭৭ সালে অ‍্যাপল ২ কম্পিউটার উন্মোচন করা হয়। চমৎকার ডিজাইন ও নতুনত্ব থাকায় এটি বেশ গ্রাহক জনপ্রিয়তা পায়। ডিভাইসটি তৈরি করেছিলেন অ‍্যাপলের সহ প্রতিষ্ঠাতা স্টিভ ওজনিয়াক।

ডিভাইসটির জনপ্রিয়তার ধারাবাহিকতা ধরে রাখতে ১৯৮০ সালে অ‍্যাপল থ্রি আনা হয় বাজারে। কিন্তু ঘটলো ঠিক উল্টা ঘটনা।  অ্যাপল থ্রির অকার্যকর নকশা ব্যবহারকারীদের বিরক্ত করে। ফলে প্রথম ১৪ হাজার ইউনিট প্রত্যাহারে বাধ্য হয়। ১৯৮৪ সালের ২৪ এপ্রিল বাজার থেকে তুলে নেয়া হয় অ‍্যাপল থ্রি।

মজার কথা হচ্ছে, অ‍্যাপল থ্রি ডেভেলমেন্টের দলে ছিলেন না ওজনিয়াক। অনেকের ধারণা, হয়ত এটাই ছিল পণ‍্যটি ব‍্যর্থতার অন‍্যতম কারণ।

অ‍্যাপল লিসা
ম্যাকিনটোশ কম্পিউটারের প্রথম মডেলটির নাম ছিল ‘লিসা’। ১৯৮৩ সালে অ্যাপল কোম্পানি এই মডেলটির উদ্ভাবন করে। প্রায় তিন বছরেরও বেশি সময়ের গবেষণা ও পরিশ্রমের ফসল এই ‘লিসা’। প্রজেক্টটিতে ব্যয় হয়েছিল প্রায় পাঁচ কোটি ডলার। স্টিভ জবস তার মেয়ে লিসার নামানুসারে মডেলটির নাম রাখেন লিসা। ডিভাইসটির মূল‍্য ছিল ৯ হাজার ৯৯৫ মার্কিন ডলার। ডিভাইসটি মাত্র ১ লাখ ইউনিট বিক্রি হয়েছিল। অধিক মূল‍্যের কারণে এটি গ্রাহক অনেকটা ত্যগ করেছিল।

স্টিভ জবসকে বিতাড়ন 
অ‍্যাপল থ্রি ও লিসা যখন বাজারে ব‍্যর্থ হওয়ার পর অ‍্যাপল বিপাকে পড়ে। সেসময় কোম্পানিকে খারাপ অবস্থা থেকে তুলতে একজন দক্ষ প্রধান নিবার্হী নিয়োগ দেয় অ‍্যাপল।  ১৯৮৩ সালে প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী হিসেবে নিয়োগ পান পেপসির তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জন স্কালি। কিন্তু প্রতিষ্ঠানের বিভিন্ন নীতিমালায় ও নিয়ম কিংবা নতুন পণ‍্যের ক্ষেত্রে স্টিভ জবসের সঙ্গে মত বিরোধ তৈরি হয় স্কালির। পরবরর্তীতে ১০৮৫ সালে বোর্ড সদস‍্যের ভোটের ভিত্তিতে স্টিভ জবসকে অ‍্যাপল থেকে বের করে দেয়া হয়।

দ‍্য নিউটন ম‍্যাসেজ প‍্যাড
আইপ‍্যাডের বহু বছর আগে অ‍্যাপল একটি ট‍্যাব আকৃতির ডিভাইস বাজারে এনেছিল ১৯৯৩ সালে। এর নাম ছিল ‘নিউজ ম‍্যাসেজ প‍্যাড’। অ‍্যাপল এটিতে বলত, পার্সোনাল ডিজিটাল অ্যাসিসটেন্ট (পিডিএ)। ডিভাইসটি সহজেই পকেট রাখা যেত। এটির সাহায‍্যে ম‍্যাসেজ ও মেইল পাঠানোর পাশাপাশি নোট নেয়ার সুবিধাও ছিল।

কিন্তু ৬৯৯ মার্কিন ডলার মূল‍্যের এই ডিভাইস গ্রাহক ধরতে ব‍্যর্থ হয়। পরবর্তীতে ১৯৯৭ সালে পুনরায় অ‍্যাপলে ফিরে স্টিভ জবস পণ‍্যটির উৎপাদন বন্ধ করে দেয়।

আইফোনের মূল‍্য নিয়ে বির্তক
২০০৭ সালে প্রথম আইফোন উন্মোচন করে অ‍্যাপল। ৮ গিগাবাইট স্টোরজ সমৃদ্ধ ডিভাইসটির মূল‍্য ছিল ৫৯৯ মার্কিন ডলার। তবে কয়েক মাস পরে এটির মূল‍্য কমিয়ে নির্ধারণ করা হয় ৩৯৯ মার্কিন ডলার। যে সকল ব‍্যবহারকারীরা প্রথমে ডিভাইসটি কিনেছিল তারা এতে মনঃক্ষুন্ন হন। নানা সমালোচনার মুখে পরতে হয় অ‍্যাপলকে। পরবর্তীতে ব‍্যবহারকারীদের খুশি করতে ১০০ মার্কিন ডলার মূল‍্যের গিফট কার্ড প্রদান করে অ‍্যাপল।

নেটওয়ার্ক অ্যান্টেনা গেট সমস‍্যা
২০১০ সালের জুনে ছাড়া হয় নতুন ডিজাইনের এই আইফোন ৪। পুরাতন সংস্করণে পাস্টিক বডি থেকে বেরিয়ে এই সংস্করণে যুক্ত হয় স্টেইনলেস স্টিল ফ্রেম। ফলে সম্পূর্ণ নতুন ও চমৎকার এক ডিজাইন দেখেন অ‍্যাপল ভক্তরা। তবে ফ্রেমের কারণে ফোনে থাকা নেটওয়ার্ক অ্যান্টেনা গেটে সিগন‍্যাল পেতে অসুবিধা হতো। এই সমস‍্যা পড়তে হয়েছিল অনেক আইফোন ৪ ব‍্যবহারকারীদের। পরবর্তীতে অপারেটিং সিস্টেমের আপডেট দেয়ার পরে এই সমস‍্যা সমাধান হয়। এছাড়া ব‍্যবহারকারীদের খুশি করতে অ‍্যাপল ফ্রি কেস দেয়।

আইফোন ৬ ব‍েন্ড
২০১৪ সালে আইফোন ৬ বাজারে আনে অ‍্যাপল। ডিভাইসটি গ্রাহকদের কাছে পৌঁছার পরে অনেক গ্রাহক অভিযোগ করেন আইফোন ৬ পকেটে রাখলে তা বেঁকে বা বেন্ড হয়ে যাচ্ছে। পরবর্তীতে জনপ্রিয় টেক ইউটিউব চ‍্যানেল আনবক্স থেরাপিতে কিভাবে সহজেই আইফোন ৬ বেন্ড হয় সে সম্পর্কে একটি ভিডিও প্রকাশ করেন। বিষয়টি অ‍্যাপলের নজরে আসে।

পরবর্তীতে  অ‍্যাপল জানিয়েছিল, আইফোন ৬ বেন্ড হওয়ার ঘটনায় পরতে হয়েছে খুব কম সংখ‍্যাক ব‍্যবহারকারীদের। যাদের এই সমস‍্যা হয়েছে সবাইকে নতুন আইফোন দেয়া হবে।

তুসিন আহমেদ

*

*

আরও পড়ুন