মোবাইল ব্যাংকিং সেবায় মোবাইল অপারেটরদের না

Bangladesh Bank-Mobile-TechShohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিল : মোবাইল ব্যাংকিং সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে দুই মাস আগেও মোবাইল ফোন অপারেটরদের ৪৯ শতাংশ পর্যন্ত অংশীদারিত্বের সুযোগ রাখা হয়েছিল।

সেভাবেই  মোবাইল ফাইন্সিয়াল সেবা নীতিমালার তৃতীয় খসড়া প্রকাশ প্রকাশ করা হয়। তবে এবার একেবারে উল্টো অবস্থান নিয়ে নীতিমালাটি চূড়ান্ত করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

কেন্দ্রীয় ব্যাংক গত সপ্তাহে এক বৈঠকে নীতিমালাটি চূড়ান্ত অনুমোদন দিয়েছে। এতে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো মোবাইল ব্যাংকিং সেবায় বিনিয়োগ করতে পারবে না বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

ব্যাংকের ক্ষেত্রে খসড়া নীতিমালার প্রস্তাবের মতোই সর্বনিন্ম ৫১ শতাংশ পর্যন্ত বিনিয়োগের বিধান রাখা হয়েছে।

গত ৩০ মে এ সংক্রান্ত নীতিমালার তৃতীয় খসড়া তৈরি করে বাংলাদেশ ব্যাংক। এর আগে ২০১৫ সালে প্রথম খসড়ায় একটি মোবাইল ফোন অপারেটরকে একটি উদ্যোগের মধ্যে সর্বোচ্চ ১৫ শতাংশ বিনিয়োগের সুযোগ দেওয়া হয়।

পরে এ প্রস্তাব বাদ দিয়ে দ্বিতীয় খসড়ায় মোবাইল অপারেটরদের অংশগ্রহণ একেবারেই বন্ধ করে দেওয়া হয়।

এ দিকে মে মাসের অগ্রগতির পর কয়েকটি মোবাইল ফোন অপারেটর বিভিন্ন ব্যাংকের সঙ্গে নানা ধরণের আলোচনা শুরু করে।

এর মধ্যে গ্রামীণফোন কয়েকটি ব্যাংক বিশেষ করে ডাচ্-বাংলা ব্যাংকের মোবাইল ব্যাংকিং সেবা রকেট-এ বিনিয়োগ করতে আলোচনা অনেক দূর এগিয়ে নেয়।

তবে কেন্দ্রীয় ব্যাংক আগের অবস্থানে ফিরে যাওয়ায় মোবাইল ফোন অপারেটগুলোর দীর্ঘদিনের পরিকল্পনা ভেস্তে যাচ্ছে।

বর্তমানে দেশে কয়েকটি ব্যাংক মোবাইল ফাইনান্সিয়াল সার্ভিস বা এমএফএস সেবা দিলেও ব্র্যাক ব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান বিকাশ এবং ডাচ্-বাংলার রকেট-ই সবচেয়ে ভালো করছে।

সব মিলে এ সেবা দিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন নিয়েছে ১৮ ব্যাংক।

২০১৫ সালে রবি’র মূল কোম্পানি আজিয়াটা গ্রুপ ট্রাস্ট ব্যাংকের সঙ্গে একটি সহযোগী কোম্পানি গঠন করলেও বাংলাদেশ ব্যাংক শেষ পর্যন্ত সেটির অনুমোদন দেয়নি।

সর্বশেষ হিসাব অনুসারে, মে মাসের শেষে দেশে ছয় কোটি ১৩ লাখ ২৩ হাজার এমএসএফ অ্যাকাউন্ট আছে, যেগুলোর মধ্যে কার্যকরভাবে ব্যবহার হচ্ছে দুই কোটি ২৯ লাখ নয় হাজার।

জামান আশরাফ

*

*

আরও পড়ুন