উদ্যোক্তা হচ্ছেন রবির সাত কর্মকর্তা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল অপারেটর রবিতে কর্মরত সাত কর্মকর্তা উদ্যোক্তা হওয়ার সহায়তা পাচ্ছেন।

উদ্যোক্তা হবার পথে ওই সাত কর্মকর্তা আর্থিক সহায়তা, ব্যবস্থাপনাগত পরামর্শ ও অনুপ্রেরণা পাচ্ছেন রবির পক্ষ থেকে।

অপারেটরটির উদ্ভাবনী ডিজিটাল উদ্যোক্তা তৈরির প্লাটফর্ম ‘আর-ভেঞ্চারস’র আওতায় নিজ নিজ ব্যবসায়িক ধারণা বাস্তবায়নের জন্য প্রাথমিক পর্যায়ের কাজ শুরু করলেন তারা। আগামী ১২ মাস উদ্যোক্তারা ওই ব্যবসায়িক ধারণাগুলো নিয়ে বাজারে আসার জন্য কাজ করবেন। বাছাইকৃত ৬টি ব্যবসায়িক ধারণা বাস্তবায়নের লক্ষ্যে প্রত্যেকটির জন্য ১ কোটি টাকা পর্যন্ত অর্থায়ন করবে রবি।

রোববার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে আর-ভেঞ্চারস প্রকল্পের আওতায় রবি’র যে কর্মকর্তাবৃন্দ তাদের ব্যবসায়িক ধারণা বাস্তবায়নের জন্য কাজ শুরু করতে যাচ্ছেন তাদের পরিচয় করিয়ে দেয়া হয়।

রবির হেড অব হিউম্যান রিসোর্সেস ডিভিশন মো. ফয়সাল ইমতিয়াজ খান স্বাগত বক্তব্য রাখেন।

রবির ডিজিটাল সার্ভিসেস ম্যানেজার মোহাম্মাদ আব্দুল হাদি ভূঁইয়া, ইনফরমেশন টেকনোলজি ভাইস প্রেসিডেন্ট মো. আশিক নূন, এন্টারপ্রাইজ প্রোগ্রাম ম্যানেজমেন্ট অফিসের জেনারেল ম্যানেজার মুহাম্মদ মোহছিযুল হক, মার্কেট অপারেশনস জেনারেল ম্যানেজার শাকিল ফারহান মিঠুন, মার্কেট অপারেশনস ম্যানেজার মো. হাসিবুল করিম, মার্কেট অপারেশনস স্পেশালিস্ট রিয়াসাত চৌধুরী এবং নেটওয়ার্ক অ্যাসুরেন্স জেনারেল ম্যানেজার মোহাম্মাদ মোস্তাফিজুর রহমান আর-ভেঞ্চারসের আওতায় আগামী এক বছর তাদের ব্যবসায়িক ধারণা বাস্তবায়নের জন্য কাজ করে যাবেন।

ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রী মোস্তাফা জব্বার বলেন, আমি এমন কোন কোম্পানি দেখিনি যারা নিজেদের কর্মীদের উদ্যোক্তা হওয়ার পথ তৈরি করে দিচ্ছে। আমি নিজে যখন উদ্যোক্তা হওয়ার জন্য লড়াই করছিলাম তখন যদি রবির মতো একটি কোম্পানিকে পাশে পেতাম তাহলে অনেক সহজ হতো।

তিনি বলেন, আজকাল অনেকেই ডিজিটাল স্টার্ট-আপ নিয়ে কাজ করছেন। কিন্তু আমি লক্ষ্য করেছি তাদের অনেকেরই ব্যবসায়িক পরিকল্পনা, অর্থ প্রবাহের মতো ব্যবসার মৌলিক দিকগুলো সম্পর্কেও কোন ধারণা নেই। কিন্তু আর-ভেঞ্চারিস্টদের আমার কাছে এদিক থেকে ব্যতিক্রম মনে হয়েছে, তারা একটি পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নেমেছেন।

রবির এমন উদ্যোগে ডাক, টেলিযোগাযোগ ও তথ্যপ্রযুক্তি মন্ত্রণালয় পাশে থাকবে বলেও জানান তিনি।

রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর অ্যান্ড সিইও মাহতাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ডিজিটাল সমাজের অগ্রগতির সঙ্গে ডিজিটাল সল্যুশনের জন্য ব্যবসার নতুন নতুন দিগন্ত উন্মোচিত হচ্ছে। রবি আর-ভ্যাঞ্চারস প্লাটফর্মটি তৈরি করে কর্মীদের উদ্যোক্তা হবার সুযোগ করা হচ্ছে।

প্রাথমিকভাবে ২১২টি ব্যবসায়িক ধারণা জমা দিয়েছিলেন রবির কর্মকর্তারা। কয়েক ধাপের প্রক্রিয়া শেষে দ্বিতীয় পর্বের জন্য ৫০টি ধারণা বাছাই করা হয়। ৫০টি থেকে সেমিফাইনাল পর্বে যায় ১৫টি ধারণা।

এরপর চূড়ান্তভাবে ছয়টি ধরাণা বাছাই করা হয়েছে যেগুলো বাস্তবায়নের জন্য এখন প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন সংশিষ্ট উদ্যোক্তারা।

অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেসের সভাপতি সৈয়দ আলমাস কবীর এবং মাইক্রোসফট বাংলাদেশ, নেপাল ভুটান ও লাওসের ম্যানেজিং ডিরেক্টর সোনিয়া বশির কবিরসহ আরো অনেকেই।

ইমরান হোসেন মিলন

৪ টি মতামত

*

*

আরও পড়ুন