'ফেয়ার প্লে' ভাগ্যে দ্বিতীয় রাউন্ড, খুশি নয় জাপানিরাই

Japanese Fans Watch Japan
Evaly in News page (Banner-2)

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : জাপানের সঙ্গে সেনেগালের যুদ্ধটা হয়েছে কাগজে কলমে।  গ্রুপ এইচের এই দুই দলের পয়েন্ট সমান, গোলের সংখ্যা এমনকি গোল খাওয়ার সংখ্যাও সমান। এমন অবস্থায় ফেয়ার প্লে নীতিমালা প্রয়োগ করা ছাড়া ফিফার আর কোনো উপায় ছিলো না।

জাপানের চেয়ে দুটি হলুদ কার্ড বেশি দেখায় বিদায় নিতে হয়েছে সেনেগালের সিংহদের। অন্যদিকে, ভাগ্যের জোড়ে শেষ ১৬ দলের তালিকায় স্থান পায় জাপান।

কিন্তু দ্বিতীয় রাউন্ড যাওয়ার প্রক্রিয়াটি খোদ জাপানিদেরই পছন্দ হয়নি। পোল্যান্ড বনাম জাপানের খেলা দেখাও তারা বেশ অসন্তুষ্ট। একটি গোল হজম করার পরও শেষ ১৫ মিনিটে যে তারা হেঁটে হেঁটে ফুটবল খেলছিলেন! আক্রমণের কোনো চেষ্টাই চালাননি।

জাপানিরা এমনিতেই জাতি হিসেবে বেশ নীতিবান। প্রথম খেলার দিনই স্টেডিয়াম পরিস্কার করে তারা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছিলো। এবার ফেয়ার প্লে নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় ক্ষোভ ঝেড়ে জানিয়ে দিলো দলকে ভালোবাসলেও তারা অন্ধ সমর্থক নয়।

কেন ওয়াজাওয়া নামে এক জাপানি সমর্থক জানিয়েছেন, এটা কিছুটা রহস্যজনক মনে হয়েছে। স্টেডিয়ামে থাকা দর্শকদের কাছ থেকে দুয়ো ধ্বনি শোনাটা মোটেও সুখকর কিছু নয়। যাই হোক নকআউট পর্বে পৌঁছে গেছি এটাই বড় কথা।

অসন্তুষ্ট আরেক জাপানি ভক্ত টুইটারে জানান, নিয়ম ভেঙে খেলে যাওয়ার পরও জাপান যেভাবে পরবর্তী লড়াইয়ে নামার সুযোগ পেলো তা সত্যিই খুব মজার।

আরেক জন টুইটে লিখেছেন, ফেয়ার প্লে রুলটির যে এভাবে অপব্যবহার হবে খোদ ফিফাও তা আশা করেনি।

অন্য এক জাপানি ভক্ত লিখেছেন, এটা খুবই বিব্রতকর। এই নিয়মের কারণে পৃথিবীজুড়ে জাপান ফুটবল দলটি লাখ লাখ ভক্ত হারিয়েছে।

আরেক জাপানি ভক্ত লেখেন, জাপান কিভাবে পার পেয়ে গেলো তাতে আমার কিছু যায় আসে না। কিন্তু বারে বসে যখন খেলাটি দেখছিলাম তখন কোনো বিদেশি এসে আমাদেরকে শুভেচ্ছা জানায়নি। তবে আমি মনে করি না এতে জাপানের কোনো দোষ আছে।

সাউথ চায়না মর্নিং পোস্ট অবলম্বনে আনিকা জীনাত

আরও পড়ুন ঃ- খেলার খবর জানাবে মেসির অফিসিয়াল অ্যাপ

ম্যাসেঞ্জারে খেলা যাবে ১৭ গেইম

বিশ্বকাপ খেলায় সমতা এনেছে প্রযুক্তি

*

*

আরও পড়ুন