এমএফএস ব্যবসায় টেলকোর অংশীদারিত্বের সুযোগ ৪৯ ভাগ পর্যন্ত!

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল ফোনের মাধ্যমে আর্থিক লেনদেনসহ অন্যান্য সেবায় টেলকো বা মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর অংশগ্রহণের সুযোগ বাড়ছে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের এমএফএস সেবার সর্বশেষ খসড়া নীতিমালায় তাদেরকে ৪৯ শতাংশ পর্যন্ত অংশীদারিত্বের সুযোগ রাখা হয়েছে।

এর আগে কখনোই মোবাইল অপারেটরদের এমএফএস সেবায় অংশ নেওয়ার সুযোগ দেওয়া হয়নি। ২০১৫ সালের খসড়া নীতিমালার মাধ্যমে তাদের ব্যাংকের সঙ্গে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে ১৫ শতাংশ পর্যন্ত যাওয়ার সুযোগ রাখা হয়। কিন্তু সেটিও স্থগিত করে মাঝে একবার খসড়া বদলে মোবাইল অপারেটরদের অংশগ্রহণ একেবারেই বন্ধ করে দেওয়া হয়।

আর এখন এই সংশোধনীতে আবার তাদের অংশ বাড়িয়ে ৪৯ শতাংশে পর্যন্ত উন্নীত করার প্রস্তাব করেছে বাংলাদেশ ব্যাংকের সংশ্লিষ্ট শাখা।

প্রস্তাবিত নীতিমালায় মোবাইল ফোন অপারেটদের নাম উল্লেখ না করা হলেও বলা হয়েছে, কর্পোরেট প্রতিষ্ঠান ৪৯ শতাংশ পর্যন্ত অংশীদার হতে পারবে। এই ক্যাটাগরিতেই তাদের অংশগ্রহণ করার সুযোগ হবে বলে মনে করছেন সংশ্লিষ্টরা।

তবে এ সংশ্লিষ্ট অংশীদারি প্রতিষ্ঠানে অবশ্যই ব্যাংকের অংশ হবে নূন্যতম ৫১ শতাংশ। আর বাকিরা মিলে সর্বোচ্চ ৪৯ শতাংশ।

এর আগে মোবাইল ফোন অপারেটররা বারবার বলেছে, তাদের অংশ বাড়লেই তারা এমএফএস সেবায় অংশ নেবে।

বর্তমানে দেশে কয়েকটি ব্যাংক এমএফএস সেবা দিলেও ব্যাংকের সাবসিডিয়ারি প্রতিষ্ঠান বিকাশ এবং ডাচ-বাংলা ব্যাংকের রকেট-ই সবচেয়ে ভালো করছে।

তবে সব মিলে এই সেবার জন্যে বাংলাদেশ ব্যাংকের অনুমোদন আছে ১৮টি ব্যাংকের।

২০১৫ সালে একবার রবির মূল কোম্পান আজিয়াটা গ্রুপ ট্রাস্ট ব্যাংকের সঙ্গে একটি সাবসিডিয়ারি কোম্পানি গঠন করলেও বাংলাদেশ ব্যাংক শেষ পর্যন্ত আর সেটির অনুমোদন দেয়নি।

mobile banking-techshohor

চলতি বছরের এপ্রিলে এমএফএসের আয় ভাগাভাগিতে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর দীর্ঘদিনের দাবিরও সমাধান দেয়া হয়েছে।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো এই সেবায় আয় ভাগাভাগির কাঠামো পরিবর্তনের দাবি করে আসছিলেন ৩ বছর ধরে।

ওই মাসে  গণভবনে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের সঙ্গে এই সেবার সঙ্গে যুক্ত সব পক্ষকে নিয়ে অনুষ্ঠিত এক বৈঠকে বিষয়টির সুরাহা হয়।

যেখানে বলা হয়েছিল, অপারেটরদের কাছ থেকে সংযোগ নেওয়ার জন্যে এমএফএস কোম্পানি যেমন বিকাশ বা রকেটের মতো কোম্পানিগুলোকে মোবাইল ফোন অপারেটরদের একটি নির্দিষ্ট পরিমাণ অর্থ দিতে হবে।

‘অর্থ আদায়ের এ প্রক্রিয়াটি দুই ভাবে হবে। ৯০ সেকেন্ডের মধ্যে একটি আর্থিক লেনদেন সম্পন্ন হলে এ জন্য সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান থেকে মোবাইল ফোন অপারেটররা ৮৫ পয়সা পাবে। আর্থিক লেনদেন বাদে অন্য কাজের জন্য প্রতিবার এমএফএস সেবা ব্যবহারে ৪০ পয়সা দিতে হবে।’

সর্বশেষ হিসেবে অনুমারে মার্চের শেষে দেশে ছয় কোটি এক লাখ ৫২ হাজার এমএসএফ অ্যাকাউন্ট আছে, যার মধ্যে কার্যকরভাবে ব্যবহার হচ্ছে দুই কোটি দুই লাখ ৬২ হাজার।

*

*

আরও পড়ুন