'প্রযুক্তিতে বাংলাদেশ হবে বিশ্বের বিস্ময়'

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যুক্তরাষ্ট্রের বোস্টনে বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে একটি দিনব্যাপী আলোচনা অনুষ্ঠান হয়েছে। যেখানে অন্যান্য খাতের সঙ্গে সঙ্গে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের উন্নয়নের চিত্র উঠে এসেছে।

হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বাংলাদেশ রাইজিং কনফারেন্স ২০১৮’ শীর্ষক দিনব্যাপী এক সম্মেলন শুরু হয় শনিবার সকালে।

বাংলাদেশের উন্নয়ন নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে সবচেয়ে বড় এই একাডেমিক সম্মেলনের আয়োজন করে ফ্লোরিডার ইন্টারন্যাশনাল সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট ইনস্টিটিউট (আইএসডিআই), হার্ভার্ড কেনেডি স্কুলের সেন্টার ফর ইন্টারন্যাশনাল ডেভেলপমেন্ট এবং হার্ভার্ড লক্ষ্মী মিত্তাল সাউথ এশিয়া ইন্সস্টিটিউট।

সম্মেলনে ব্যবসায়ে নারী নেতৃত্ব বিষয়ক প্যানেল আলোচনায় অংশ নেন মাইক্রোসফট বাংলাদেশ, নেপাল, ভুটান ও লাওসের এমডি সোনিয়া বশির কবির, স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের হেড অব বিজনেস ডেভেলপমেন্ট অ্যান্ড স্ট্র্যাটেজি ডিভিশন আনিকা চৌধুরী এবং গ্রীন ডেল্টা ইনসুরেন্সের এমডি ফারজানা চৌধুরী।

সেখানে তাদের আলোচনায় উঠে আসে কিভাবে তারা সব বাধা পেরিয়ে এই অবস্থানে এসেছেন। তাদের সেই পথে এখন কিভাবে অন্যান্য নারীরা উঠে আসছেন তারও গল্প বলেন তারা।

ছয়টি বিষয়ে আলোচনার একটি ছিল দেশের তথ্যপ্রযুক্তি নিয়ে। তথ্যপ্রযুক্তির মাধ্যমে সেবাকে কীভাবে আরও গণমুখী করা যায় এমন আলোচনায় অংশ নেন এটুআইয়ের পলিসি অ্যাডভাইজর আনির চৌধুরী।

বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১ এর সফল উৎক্ষেপণের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেদিন আর বেশি দূরে নয় যেদিন বাংলাদেশ হবে তথ্যপ্রযুক্তিখাতে ‘বিশ্বের বিস্ময়’।

অ্যালায়েন্স ফর আফোর্ডেবল ইন্টারনেট এর নির্বাহী পরিচালক সোনিয়া এন জর্জ, ব্রাউন ইউনিভার্সিটি ওয়ারেন আলপার্ট মেডিকেল স্কুলের সহযোগী অধ্যাপক রুহুল আবিদ এবং অ্যাপনোমেট্রির এমডি মাসরুফ হাবিব এ পর্বের আলোচনায় অংশ নেন।

সেমিনারে বাংলাদেশের প্রথম স্যাটেলাইট ‘বঙ্গবন্ধু স্যাটেলাইট-১’ এর সফল উৎক্ষেপণের ভিডিওচিত্র দেখানো হয়। স্যাটেলাইট ক্লাবের সদস্য হওয়ার জন্য বাংলাদেশ সরকার ও জনগণকে অভিনন্দন জানান বিদেশি আলোচকরা।

বাংলাদেশ রাইজিং সম্মেলনে হার্ভার্ডসহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক, গবেষক, বাংলাদেশ ও যুক্তরাষ্ট্রসহ বিভিন্ন দেশের নীতিনির্ধারক, কূটনীতিক, সরকারি কর্মকর্তা, ব্যবসায়ী, সাংবাদিক, আন্তর্জাতিক উন্নয়ন অংশীদার ও সংস্থার প্রতিনিধি, বেসরকারি সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা অংশ নেন।

বিভিন্ন দেশের, বিভিন্ন খাতের গুরুত্বপর্ণ ব্যক্তিদের এই মিলনমেলায় তাদের আলোচনা, বিতর্ক আর অভিজ্ঞতা বিনিময়ের মধ্যে দিয়ে উঠে আসে বাংলাদেশে উন্নয়নকে অর্থবহ ও টেকসই করার বিভিন্ন কৌশলের কথা।

এ আয়োজনের পৃষ্ঠপোষকতায় ছিল সামিট পাওয়ার, জেনারেল ইলেকট্রনিক্স, ম্যাক্স গ্রুপ, বসুন্ধরা গ্রুপ, আব্দুল মোনেম ইকনোমিক জোন, মেঘনা গ্রুপ, এনার্জিপ্যাক বাংলাদেশ ও হাবিব গ্রুপ।

*

*

আরও পড়ুন