গ্রামীণফোন কর্মীদের ৭ দফা দাবি

gp-house-techshohor

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল অপারেটর গ্রামীণফোনকে সাত দফা দাবি দিয়েছে গ্রামীণফোন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন (জিপিইইউ)।

দাবিগুলো যতো তাড়াতাড়ি সম্ভব মেনে নেওয়ার আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। অন্যথায় শিগগিরই কর্মীরা কঠোর কর্মসূচীতে যাওয়ার হুশিয়ারী দিয়েছেন।

শনিবার রাজধানীর জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলন করে গ্রামীণফোনের কর্মীদের যৌক্তিক বেতন বৃদ্ধি ও  জিপিপিসির সেক্রেটারি কে চাকরি থেকে বরখাস্তের প্রতিবাদ জানায় সংগঠনটি। এছাড়াও তাদের ওই দাবি মেনে নেওয়ার আহব্বান জানায়।

Gp-Techshohor

জিপিইইউ-এর দেয়া সাত দফা দাবিগুলো হলো,

১. ম্যানেজমেন্ট বেতন বৃদ্ধির যে সিদ্ধান্ত জানিয়েছে তা প্রত্যাখ্যান এবং জিপিপিসি বেতনবৃদ্ধির যে প্রস্তাবনা দিয়েছে তা বাস্তবায়ন করা।

২. সংগঠনটির সেক্রেটারি জাহিদুর রহমানকে অনতিবিলম্বে পুনর্বহাল করা এবং তার মানহানির যথাযথ ক্ষতিপূরণ দেওয়া।

৩. কমপ্লায়েন্স হেড তোফায়েল আউয়ালকে অযোগ্য ঘোষণা করা এবং তাকে অনতিবিলম্বে অপসারণ করা।

৪. কর্মী কমানোর সকল ধরনের প্রজেক্ট বন্ধ করা এবং চাকরির নিশ্চয়তা বিধান করা।

৫. কর্মীদের হুমকি-ধামকী এবং ভয়-ভীতি প্রদর্শন বন্ধ করা, কর্মীদের সঙ্গে দুর্ব্যবহার বন্ধ করে কাজের পরিবেশ ফিরিয়ে আনা।

৬. কর্মীদের যে সকল সুযোগ সুবিধা বন্ধ করা হয়েছে তা অনতিবিলম্বে চালু করা এবং

৭. ওভারটাইম না দিয়ে কোন অতিরিক্ত কাজ করানো যাবে না। কর্মীদের বিশ্রামের জন্য তারা যাতে নিয়মিত ছুটি পান তার ব্যবস্থা করা।

সংবাদ সম্মেলনে জিপিইইউ সাধারণ সম্পাদক মিয়া মো. শাফিকুর রহমান মাসুদ অভিযোগ করে বলেন, প্রতিষ্ঠানটি শুরুর দিকে মেধাবীদের আকৃষ্ট করতে অনেক বেশি সুবিধা দিয়ে লোকবল নিয়েছে। অন্যান্য প্রতিষ্ঠান তাদের কর্মীদের সুযোগ সুবিধা বাড়ালেও জিপি উল্টো পথে হেঁটেছে। কোটি কোটি টাকা মুনাফা করলেও কর্মীদের পিছনে খরচ করেনি।

এর আগে ১৬ এপ্রিল জিপিপিসির বর্তমান সেক্রেটারি বিএম জাহিদুর রহমানকে চাকরিচ্যূত করা হয়। এছাড়াও জিপিসির ৪০ কর্মীকে হয়রানি ও চাকুরিচ্যুত করার  উদ্যোগ নিয়েছে বলে অভিযোগ করে সংগঠনটি।

সংবাদ সম্মেলনে জিপিইইউ-এর ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ফজলুল হক, বাংলালিংক এমপ্লয়িজ ইউনিয়নের সভাপতি গোলাম সোহাগ, আন্তর্জাতিক ট্রেড ইউনিয়ন ফেডারেশন ইউএনআই বিএলসির কো-অর্ডিনেটর মোস্তফা কামাল, জিপিইইউ-এর সাংগঠনিক সম্পাদক মাতুজ আল কাদরী এবং আলী ভূঁইয়া, আকতার হোসেন চৌধুরী, শামীম হোসেন, মাইনুল হোসেনসহ অন্যান্য নেতৃবৃন্দ।

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

আরও পড়ুন