ইউরোপে ব্যবসা কমাচ্ছে টেলিনর

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চেক প্রজাতন্ত্রের বিলিয়নিয়ার পেটার কেলনারস বিনিয়োগ সংস্থা পিপিএফ গ্রুপের কাছে ৩৪০ কোটি ডলারে মধ্য এবং পূর্ব ইউরোপের ব্যবসা বিক্রি করে দিতে সম্মত হয়েছে নরওয়েজিয়ান টেলিকম প্রতিষ্ঠান টেলিনর।

এই লেনদেনে হাঙ্গেরি, বুলগেরিয়া, মন্টিনেগ্রো এবং সার্বিয়ার টেলিনরের মালিকানাধীন মোবাইল অপারেশন এবং প্রযুক্তি সেবাদাতা টেলিনর কমন অপারেশনের পুরোটাই বিক্রি করে দেবে বলে বুধবার এক বিবৃতিতে বলেছে টেলিনর।

টেলিনর অবশ্য শেয়ার প্রতি ৪.৪০ নরওয়েজিয়ান ক্রাউন দেওয়ার পরিকল্পনা করেছে। এই শেয়ার বিক্রি থেকে আয় হতে পারে ৬.৬ বিলিয়ন ক্রাউন। তবে এই শেয়ার বিক্রি থেকে যে আয় হবে তা অবশিষ্ট ঋণ কমানোর জন্য এবং সম্ভাব্য শেয়ার ক্রয় এবং অধিগ্রহণের অর্থ হিসেবে ব্যবহার করা হবে।

টেলিনরের প্রধান নির্বাহী সিগভি ব্রেক্কে বলেন, সেন্ট্রাল এবং পূর্ব ইউরোপের এই সম্পদ বিক্রির মধ্য দিয়ে আমরা ব্যবসাকে সরলীকরণ এবং টেলিনরের পোর্টফলিওকে বেশি নজরে আনছি। আর এই অঞ্চলে আমরা আমাদের ভ্যালু ক্রিয়েশনের মধ্যে দিয়ে আরো শক্ত অবস্থান তৈরি করছি।

এই লেনদেনের ফলে টেলিনরের একটি পদচিহ্ন নির্দিষ্ট হচ্ছে এবং স্ক্যান্ডিনেভিয়াতে এর মোবাইল অপারেশন আর এশিয়ার টেলিকম খাতে শক্ত অবস্থান আরো স্পষ্ট হলো বলেন তিনি।

গত জানুয়ারিতে টেলিনর জানায়, তারা সিইই অঞ্চলে তাদের ব্যবসা বিক্রির জন্য অনির্ধারিত একটি বিড পেয়েছে। তবে তারা সেটি নিয়ে পর্যালোচনা করছে।

প্রায় সাড়ে তিন হাজার কর্মী এবং ৯০ লাখের বেশি গ্রাহক নিয়ে মধ্য ইউরোপে টেলিনরের ব্যবসা। যেখানে ২০১৭ সালে রেকর্ড ১১ দশমিক ৮ বিলিয়ন ক্রাউন রাজস্ব করেছে। একইভাবে সেখানে টেলিনরের অন্তত ৯ শতাংশ বিক্রি হয়েছে।

কার্নেগীর বিশ্লেষক হাওয়ার্ড নিলসন বলেন, আমি দীর্ঘদিন ইউরোপিয় টেলিকম শিল্পের সঙ্গে যুক্ত থাকায় এটা বলতে পারি যে, মূল্যনির্ধারণটি আমাদের প্রত্যাশার তুলনায় অনেক কম।

তিনি বলেন, এখানে মূল বিষয় হলো তারা তাদের মূলধন মুক্ত করতে চায়, কিন্তু প্রশ্ন হলো তারা কেনো শেয়ারহোল্ডারদের এতো কম পরিশোধ করবে?

তবে অনেকেই টেলিনরের এই সম্পদের পরিমাণ অন্তত ৩১০ কোটি ইউরোতে বিক্রি হতে পারতো বলে মনে করছেন।

বর্তমানে টেলিনর ১২টি দেশে তাদের টেলিকম ব্যবসা পরিচালনা করছে। এর মধ্যে নর্ডিক অঞ্চলে তিন দেশ, এশিয়াতে পাঁচটি এবং চারটি মধ্য এবং পূর্ব ইউরোপে। সব মিলিয়ে টেলিনরের ০গ্রাহক সংখ্যা ১৭ কোটি ৬০ লাখ।
পিপিএফ বলছে তাদের লক্ষ্য চলতি বছরের জুনের মধ্যে লেনদেনটি সম্পন্ন করা। আর এই অবস্থাতেই তারা টেলিনর ব্র্যান্ড নেম নিয়েই ২০২১ সাল পর্যন্ত ব্যবসা করা।

পিপিএফ গ্রুপ তাদের টেলিযোগাযোগ ব্যবসার পোর্টফলিও আরো চার দেশে বাড়াতে চায়। একই সঙ্গে গ্রুপটি তাদের লক্ষ্য অর্জন করতে গ্রাহকদের সর্বোচ্চ সুবিধা ও সেবা দিয়ে বাজারে শক্তিশালী একটা অবস্থান তৈরি করতে চায়।

hf

ইমরান হোসেন মিলন

*

*

আরও পড়ুন