Techno Header Top and Before feature image

ফাহিম মাসরুরের মনোনয়নপত্র বাতিলে প্রতিদ্বন্দ্বী ফারুকের আবেদন

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের অন্যতম শীর্ষ বাণিজ্য সংগঠন বেসিস নির্বাচনে এক প্রতিদ্বন্দ্বীর মনোনয়নপত্র বাতিলের আবেদন করেছেন আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী।

অ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরিতে আজকের ডিল লিমিটেডের পরিচালক এ কে এম ফাহিম মাসরুর- এর বিরুদ্ধে নির্ধারিত সময়ের পর মনোনয়নপত্র দাখিলের অভিযোগ এনে তা বাতিলে নির্বাচন বোর্ডের কাছে শনিবার আবেদন করেন আরেক প্রার্থী সফট পার্কের প্রধান নিবার্হী দেলোয়ার হোসেন ফারুক।

দেলোয়ার হোসেন ফারুক টেকশহরডটকমকে জানান, ‘আমি ন্যায় বিচারের জন্য আবেদন করেছি। আইন ও নিয়মের প্রতি পূর্ণ বিশ্বাস ও আস্থা রাখছি’।

এ কে এম ফাহিম মাসরুর এই অভিযোগ অস্বীকার করে টেকশহরডটকমকে বলেন, নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই মনোনয়নপত্র  জমা দেয়া হয়েছে। তা অন্তত আধাঘন্টা আগে সাড়ে ৪টার সময় হবে। এটি নিয়ে প্রশ্ন তোলার কোনো সুযোগ নেই।

বিষয়টি নিয়ে বেসিস নির্বাচন বোর্ডের কোনো মন্তব্য পাওয়া যায়নি। দীর্ঘক্ষণ অপেক্ষা করেও বোর্ডের চেয়ারম্যান এস এম কামালের ফোন বন্ধ পাওয়া যায়, সদস্য নাজিম ফারহান চৌধুরী ফোন ধরেননি এবং আরেক সদস্য রফিকুল ইসলাম ব্যস্ততার কারণে পরে যোগাযোগ করবেন বলে ম্যাসেজ পাঠিয়েছেন।

নির্বাচন বোর্ডের চেয়ারম্যান কাছে ওই আবেদনে ফারুক লিখেছেন, ‘আমি বেসিস নির্বাচন কমিশন কর্তৃক প্রদত্ত সময়সীমার শেষ দিন সকাল ১০ টা ১৫ ঘটিকা থেকে বিকাল ৫ ঘটিকা পর্যন্ত বেসিস সচিবালয়ে অবস্থান করি। বিকাল ৫ ঘটিকায় সচিবালয় ত্যাগ করার মুহুর্তে ফরম বিক্রি ও জমা নেওয়ার জন্য দায়িত্বপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মুগ্ধাকে ফরম জমা নেওয়ার সর্বশেষ অবস্থা জানতে চাইলে তিনি আমাকে অ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরিতে ৫টি ও জেনারেল ক্যাটাগরিতে ৩৪টি ফরম জমা হওয়ার বিষয়টি জানান।’

‘তখন আমার সাথে সুটিং স্টার লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক দিদারুল আলম সানী, হাইপারট্যাগ সলিউশন লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সফিউল আলম ও মধুমতিটেকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা রকিবুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন’।

আবেদনে ফারুক বলেন ‘আমরা এই তথ্যটি নিয়ে সচিবালয় ত্যাগ করি। এছাড়াও ফরম বিক্রি ও জমা দেওয়ার বিষয় নিয়ে বেসিস সচিবালয়ের সচিব হাশিম সাহেবের সাথেও আমার বহুবার কথা হয়। আগের বিভিন্ন সময়ে হাশিম সাহেব থেকে প্রাপ্ত তথ্য ও বিকাল ৫টায় বের হয়ে যাওয়ার সময়ের সর্বশেষ তথ্যের সাথে হুবহু মিল আছে। কিন্তু সন্ধ্যা ৬টায় বেসিস সচিবালয় থেকে অ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরিতে ৬টি এবং জেনারেল ক্যাটাগরিতে ৩৪টি মনোনয়ন জমা হওয়ায় বিষয়টি জানায়।’

‘উপরোক্ত বিষয়ের আলোকে আমি সুনির্দিষ্টভাবে অভিযোগ করছি যে, অ্যাসোসিয়েট ক্যাটাগরিতে ৬ নম্বর মনোনয়ন ফরম নিয়ে যিনি প্রার্থী হয়েছেন তিনি বেসিসের সাবেক সভাপতি হিসাবে সম্পূর্ণভাবে অবৈধ প্রভাব খাটিয়ে বেসিস সচিবালয়ের যোগসাজসে নির্দিষ্ট সময়ের পরে ফরম কিনেছেন ও জমা দিয়েছেন।’

‘অতএব উপরোক্ত বিষয়াদি পর্যালোচনা করে সুষ্ঠ ও নিরপেক্ষ নির্বাচনের স্বার্থে বিধি মোতাবেক ৬ নম্বর মনোনয়ন ফরমের প্রার্থী “আজকেরডিল”-এর প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফাহিম মাসরুর’র মনোনয়নপত্র বাতিল করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করার জন্য বিনীত অনুরোধ করছি।’

আবেদনটি বেসিস সচিবালয় গ্রহণ করেছে বলে নিশ্চিত হওয়া গেছে। নির্বাচন বোর্ড এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত দেবে।

২০১৮-১৯ সেশনের এই নির্বাচনে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন ৪০ জন। এর মধ্যে জেনারেল সদস্য ক্যাটাগরিতে ৩৪ এবং অ্যাসোসিয়েটে ৬ জন রয়েছেন। বৃহস্পতিবার মনোনয়নপত্র জমার শেষ দিন ছিল।

রোববার নির্বাচন বোর্ড প্রাথমিক প্রার্থী তালিকা প্রকাশ করবে।

নির্বাচন কাণ্ডে ২০১৭ সাল জুড়ে সরগরমের পর অবশেষে ২০১৮ সালের জানুয়ারিতে তৃতীয় বারের মতো সংগঠনটির নির্বাচনের তারিখ ঘোষণা হয়।
চলতি মাসের ৩১ তারিখে হবে এ নির্বাচন। ডিটিও’র নির্দেশনা অনুযায়ী ২ বছর মেয়াদের জন্য ৯ পদে এই নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে।

আল-আমীন দেওয়ান

১ টি মতামত

*

*

আরও পড়ুন