ল্যাপটপের যত্নের টুকিটাকি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বহনে সুবিধার কারণে ল্যাপটপ বেশি জনপ্রিয়। ব্যবহারকারীরা এটি নিয়ে চলাফেরাও করেন এখানে সেখানে। প্রয়োজনে অপ্রয়োজনে ব্যবহার করা হয় অনেক সময়। এ কারণে এটির জন্য বাড়তি কিছু যত্নের প্রয়োজন।

ল্যাপটপের স্থায়িত্ব বাড়াতে দরকার এর সঠিক পরিচর্যা দরকার। অসাবধানভাবে ব্যবহারের ফলে ডিভাইসটির ক্ষতি হতে পারে। এটির যত্ন নেওয়ার কিছু বিশেষ কৌশল নিয়ে এ প্রতিবেদন। এসব মেনে চললে ল্যাপটপের স্থায়িত্ব বাড়বে।

laptop

পরিষ্কার হাতে ব্যবহার
ময়লা হাতে ল্যাপটপ ব্যবহার করলে হাতে থাকা ময়লা ল্যাপটপের কি-প্যাড ও টাচ প্যাডে জমা হয়ে যেতে পারে। এ জন্য ল্যাপটপ ব্যবহার শুরুর আগে হাত পরিষ্কার করে নিতে হবে।

খাদ্যদ্রব্য থেকে দূরে রাখা
অনেকেই ল্যাপটপে কাজ করার পশাপাশি খাওয়ার পর্বটা একই সাথে চালিয়ে যান। এতে খাবারের ছোট ছোট টুকরা বা গুড়া ল্যাপটপের কি-বোর্ডের ফাঁক দিয়ে ভেতরে প্রবেশ করতে পারে। এ ছাড়া ল্যাপটপের ওপরের অংশে ময়লার আস্তরন জমতে পারে। তাই খাদ্যদ্রব্য থেকে ল্যাপটপ দূরে রাখা উচিত।

ল্যাপটপের ওপর ভারি বস্তু না রাখা
ভারি বস্তু ল্যাপটপের ওপর রাখলে মনিটরের পর্দার ওপর কি-বোর্ডের চাপ পড়তে পারে। সিডি-রম এর প্রবেশপথটিও সংকুচিত হয়ে যেতে পারে। এমনকি ড্রাইভটি ভেঙ্গে যাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

তরল পদার্থ থেকে দূরে রাখা
ল্যপটপের আশেপাশে যে কোনো ধরনের তরল পদার্থ যেমন পানি, চা, কফি, সফট ড্রিংস ইত্যাদি রাখবেন না। এসব পানীয় পানের সময় অসাবধানতার কারনে পড়লে তা ল্যাপটপের ক্ষতির কারণ হয়ে দাঁড়াতে পারে। ল্যাপটপের অভ্যন্তরীণ ইলেক্ট্রনিক সার্কিটগুলোকে অকেজো করে দিতে পারে। যা মেরামত করা অনেক খরচ সাপেক্ষ।

মনিটরের যত্ন
ল্যাপটপটি বন্ধ করার সময় খেয়াল রাখতে হবে যেন কি-বোর্ডের ওপরে কোনো ছোট বস্তু না থাকে।যে কোনো ছোট জিনিস হলেও তা এলসিডি স্ক্রিনটিতে দাগ তৈরি করতে পারে। এলসিডি মনিটরটি বন্ধ করার সময় মাঝখানে ধরে বন্ধ করবেন। বারবার শুধু সাইডে ধরে বন্ধ করার ফলে তা বেঁকে যেতে পারে।

নরম কাপড় দ্বারা ল্যাপটপের মনিটর পরিষ্কার করুন। একইভাবে নরম কাপড় বা পুরোনো টুথব্রাশ দিয়ে কি-বোর্ড ও অন্যান্য অংশ পরিষ্কার করতে পারেন।

বিছানায় ব্যবহার না করা
আরামদায়ক হওয়ায় অনেকে বিছানায় বসে বা শুয়ে ল্যাপটপ ব্যবহার করে থাকেন। এতে বিছানার ময়লাগুলো ল্যাপটপের ফ্যানের মাধ্যমে ভেতরে ঢুকে যেতে পারে। যা ফ্যানটিকে ব্লক করার পাশাপাশি অভ্যন্তরিন যন্ত্রপাতিরও ক্ষতির কারণ হতে পারে।

Related posts

*

*

Top