Maintance

গুগল অ্যাডসেন্স কী?

প্রকাশঃ ১২:১১ অপরাহ্ন, অক্টোবর ৪, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১২:১০ অপরাহ্ন, অক্টোবর ৪, ২০১৭

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফেইসবুকের নিউজ ফিডে সম্প্রতি আলোচ্য বিষয় ছিলো গুগল অ্যাডসেন্স।

কেননা দীর্ঘ অপেক্ষার পর অবশেষে গুগল বাংলা ভাষার ওয়েবসাইটে যুক্ত করেছে অ্যাডসেন্স সুবিধা। ফলে বাংলা ভাষার ওয়েবসাইট মিলবে গুগলের বিজ্ঞাপন। এতে বাংলা ভাষার ব্লগিং প্লাটফর্ম আবার ঘুরে দাঁড়াবে সেই সঙ্গে উপকৃত হবে দেশীয় কোম্পানিগুলো।

তবে অনলাইনে অনেকই নতুন হওয়ায় জানেন না গুগল অ্যাডসেন্স সম্পর্কে। তাদের জন্য টিউটোরিয়ালটি কাজে দেবে। এর প্রথম কিস্তি দেওয়া হলো।

গুগল অ্যাডসেন্স কী?
গুগল অ্যাডসেন্স মূলত একটি লভাংশ-অংশিদারী প্রকল্প। যা ব‍্যবহার করে ব্যবহারকারীরা তাদের ওয়েবসাইটে ব্যবহৃত বিজ্ঞাপনের বিষয়বস্তু থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন। একটি ওয়েবসাইটের মালিক কিছু শর্তসাপেক্ষে তার সাইটে গুগল নির্ধারিত বিজ্ঞাপন প্রদর্শনের মাধ্যমে অ্যাডসেন্স থেকে অর্থ উপার্জন করতে পারেন।

আরো পড়ুন:  বাংলা ভাষায় গুগল অ্যাডসেন্স

সহজ ভাষায় বলতে গেলে, রাস্তার পাশে থাকা বিলবোর্ডে লক্ষ্য করলে দেখা যাবে, সেখানে নানা বিজ্ঞাপন দেয়া থাকে। কোনো বিজ্ঞাপন সাবানের, কোনোটা গাড়ির আবার কোনোটি চকলেটের। এই বিলবোর্ডগুলো নির্দিষ্ট কিছু অর্থের বিনিময়ে প্রচারণার জন্য ভাড়া নেয় বিজ্ঞাপনদাতা বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান।

ঠিক একই পদ্ধতির ডিজিটাল সেবার নাম গুগল অ্যাডসেন্স। যেখানে আপনার কোনো ওয়েবসাইটে গুগল বিভিন্ন কোম্পানির বিজ্ঞাপন দেবে। বিনিময়ে আপনি পাবেন অর্থ।

সাধারণ ব্যবস্থায় ব্যবসায়ীরা তাদের পণ্যের বিজ্ঞাপন প্রচার করে থাকেন সংবাদপত্রে, রেডিও, টিভি বা বিলবোর্ডে। এতে করে নির্দিষ্ট পণ্যের জন্য আগ্রহী ক্রেতা হয় সামান্যই। কেননা বিজ্ঞাপন কোন শ্রেণীর ক্রেতা দেখবেন তা নির্দিষ্ট নেই।

অপর দিকে গুগল অ্যাডসেন্স এমন একটি বিজ্ঞাপন ব্যবস্থা যেখানে পণ্যের বিজ্ঞাপন শুধুমাত্র তাদের কাছেই পৌঁছায় যারা আগ্রহী, আগ্রহী হতে পারেন অথবা যারা সেই পণ্য কেনার ক্ষমতা রাখেন। এ কারণেই সময়ের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে জনপ্রিয়তা বেড়ে চলছে সেবাটির।

ইতিহাস 

২০০৩ সালে টেক্সট প্রসেসিং প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করা প্রতিষ্ঠান অ্যাপ্লাইড সিমান্টিক্স কিনে নেয় গুগল। সেখান থেকেই মূলত অ্যাডসেন্সের উৎপত্তি। একই বছর ১৮ জুন অ্যাডসেন্স প্রোগ্রামের প্রাথমিক যাত্রা করে গুগল।

পরবর্তীতে ২০০৪ সালে গুগল বিজ্ঞাপনদাতাদের অ্যাডসেন্স নেটওয়ার্ক ব্যবহারের অনুমতি দেয়। পরবর্তীতে সেবাটি জনপ্রিয়তা পেতে থাকে।
২০০৯ সালে এসে গুগল অ্যাডসেন্সে নতুন সুবিধার কথা ঘোষণা দেয়। সেখানে ‘বিজ্ঞাপন প্রদর্শন করার জন্য একাধিক নেটওয়ার্ক সমর্থনের সুবিধা ছিলো। ২০১০ সালে সার্চ হিস্টোরি এবং প্রাসঙ্গিক ওয়েবসাইটে বিষয়ভিত্তিক বিজ্ঞাপন দেয়া শুরু হয়।

২০১০ সালের প্রথম প্রান্তিকে গুগলের মোট আয়ের ৩০ শতাংশ আসে অ্যাডসেন্স থেকে। অর্থের পরিমাণে যা ২০৪ কোটি মার্কিন ডলার। যেখানে প্রতিষ্ঠানটির বার্ষিক আয় ছিলো ৮১৬ কোটি মার্কিন ডলার। ২০১৪ সালে অ্যাডসেন্স থেকে গুগলের আয় আরো বেড়ে দাঁড়ায় ৩৪০ কোটি মার্কিন ডলারে। যা গুগলের বার্ষিক মোট আয়ের ২২ শতাংশ।

আগামী পর্বে গুগল অ্যাডসেন্স এর জন্য আবেদন করার আগে যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখতে হবে সে সম্পর্কে তুলে ধরা হবে।

*

*

Related posts/