র‌্যানসমওয়্যার আক্রমণ হতে যেভাবে নিরাপদ থাকবেন

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : র‌্যানসমওয়্যারে হামলায় আক্রান্ত হয়েছে সাইবার জগত। বিশ্বের ১০০টির বেশি দেশ এই হামলার শিকার হয়েছে। এই আক্রমণে বিভিন্ন খাতের অনেক বড় প্রতিষ্ঠানসহ হাজার হাজার কম্পিউটার সিস্টেম অচল করে দিয়েছে র‌্যানসমওয়্যারটি। তারপর আক্রান্ত কম্পিউটারে বার্তা দিয়ে হ্যাকাররা ৩০০ ডলারের বিনিময়ে নিয়ন্ত্রণ ফিরিয়ে দেওয়ার কথা জানায় হ্যাকাররা।

এই সাইবার হামলার পরে অনেকের মনে নানা প্রশ্ন র‌্যানসমওয়্যার নিয়ে। এটি কী এবং কিভাবে আক্রমণ থেকে বাঁচা যায়। এই এই টিউটোরিয়ালে সেই বিষয়টিই তুলে ধরা হলো।

র‍্যানসমওয়্যার কী?
র‍্যানসমওয়্যার হল এক ধরনের ম্যালওয়্যার। যা কম্পিউটারে আক্রান্ত করার পর ব্যবহারকারীকে তার মেশিনে প্রবেশ করা থেকে বিরত রাখে। এটি ব্যবহারকারীর প্রবেশগম্যতা সীমাবদ্ধ করে দেয় এবং এই সীমাবদ্ধতা দূর করার জন্য ব্যবহারকারীর কাছ থেকে মুক্তিপণ দাবি করে।

hack-techshohor

কিছু র‍্যানসমওয়্যার আছে যা সিস্টেমের হার্ড ড্রাইভে অবস্থিত সকল ফাইল একটি বড় কি দিয়ে এনক্রিপ্ট করে ফেলে। এনক্রিপশন কি এতটাই বড় হয় যে, মুক্তিপণ না দিয়ে একে ভেঙে ফেলা প্রযুক্তিগত দিক থেকে প্রায় অসম্ভব। এছাড়াও কেউ কেউ সরল একটি প্রোগ্রামের মাধ্যমে ব্যবহারকারীর সিস্টেম লক করে দেয় এবং ডিসপ্লেতে বার্তার মাধ্যমে ব্যবহারকারীকে মুক্তিপণ দিতে প্রলুব্ধ করে থাকে।

জরুরি ফাইল ব্যাকআপ রাখুন 
র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণ হলে সবচেয়ে বেশি ঝামেলায় পড়তে হয় কম্পিউটারের থাকা জরুরি ফাইল, ছবি ও ভিডিও নিয়ে। কথায় আছে ‘প্রতিকারের চেয়ে প্রতিরোধ ভালো’ তাই র‍্যানসমওয়্যার আক্রান্তের আগেই কম্পিউটারের যাবতীয় ফাইল ব্যাকআপ রাখা উচিত। এক্ষেত্রে ব্যাকআপ এমন ডিভাইস রাখতে হবে যেন সেখানে ইন্টারনেট সংযোগ না থাকে। সবচেয়ে ভালো উপায় হলো পোর্টবেল হার্ডড্রাইভে ব্যাকআপ রাখা।

ই-মেইল ব্যবহারে সর্তকতা 
বেশিরভাগ র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণ মেইলের মাধ্যমে করা হয়ে থাকে। হ্যাকাররা সুন্দর এবং আকর্ষনীয় মেইল ক্ষতিগ্রস্তদের পাঠায়। মেইলগুলোর বিষয়স্তু এমনভাবে লেখা, যা দেখে মনে হয় সত্যিকারের কোনো মেইল। সেখানে থাকা কোনো লিঙ্কে ক্লিক বা ফাইল ডাউনলোড করলেই কম্পিউটারের র‍্যানসমওয়্যার ইন্সটল হয়ে যায় ব্যবহারকারীদের অজান্তে। তাই ই-মেইল বার্তা আসলে তা ভালো করে যাচাই করতে হবে। বিশেষ করে মেইল আসা কোনো লিঙ্কে ক্লিক এবং ফাইল ডাউনলোডের সময় আরও বেশি সর্তক থাকতে হবে। মেইল যাচাই করে দেখতে হবে তা স্প্যামিং বা ভুয়া।

অপারেটিং সিস্টেম আপডেট
অপারেটিং সিস্টেম নিমার্তা প্রতিষ্ঠানগুলো প্রতিমুহূর্তে নানা নিরাপত্তামূলক আপডেট দিয়ে থাকে। ফলে র‍্যানসমওয়্যার আক্রমণ ঠেকানো সম্ভব। তাই সব সময় কম্পিউটার অপারেটিং সিস্টেম আপডেট রাখতে হবে। উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম ব্যবহারকারীরা Settings গিয়ে System মেনুতে গিয়ে About এ ক্লিক করলে দেখে নিতে পারবেন নতুন আপডেটের বিষয়গুলো।

ব্রাউজিংয়ে সময় সর্তক থাকা
ইন্টারনেটের এই যুগে আমাদের প্রতিনিয়ত নানা ওয়েবসাইট ব্রাউজার করতে হয়। তাই লোভনীয় ওয়েবসাইটের মাধ্যমে ফাঁদ পেতে বসে আছে হ্যাকাররা। ধরুণ আপনি কোনো গান বা ভিডিও ডাউনলোড করতে গুগলের সার্চ করলেন। তারপর একটি ওয়েবসাইটে গেলেন সেখানে ডাউনলোড বাটনে ক্লিক করলেন। সাথে সাথে ডাউনলোড শুরু হলো। এরপর দেখা গেলো এটি আপনার খোঁজা গান বা ফাইলটি নয়। হ্যাকাররা একই নাম ও ছবির আড়াঁলে র‍্যানসমওয়্যার সফটওয়্যার আপনার কম্পিউটার ইন্সটল করিয়ে নিলো। তাই ব্রাউজিং ও কোনো কিছু ডাউনলোডে সর্তক থাকতে হবে।

ransomware-Nicescene-techshohor

সফটওয়্যার থেকে সাবধান
নতুন কোনো সফটওয়্যার ডাউনলোড করার সময় সতর্ক থাকা খুবই জরুরি। কেননা কাঙ্খিত ইন্টারনেট সফটওয়্যারটির আড়ালে ক্ষতিকারক র‍্যানসমওয়্যার থাকতে পারে। এগুলো ভুলক্রমে ডাউনলোড করলে হ্যাকিংয়ের শিকার হতে পারেন। তাই কম্পিউটারে কোনো সফটওয়্যার ডাউনলোড করতে হলে সফটওয়্যারের অফিসিয়াল ওয়েবসাইট থেকে ডাউনলোড করা উচিত।

অ্যান্টিভাইরাস সফটওয়্যার ব্যবহার
কম্পিউটারের আপডেট অ্যান্টিভাইরাস ব্যবহার করা উচিত। অ্যান্টিভাইরাস কোনো ফাইল কম্পিউটারে প্রবেশ করলে তা চেক করে। যদি তাতে ক্ষতিকর কিছু থাকে তাহলে তা নোটিফিকেশনের মাধ্যমে জানায়। তাই অ্যান্টিভাইরাস কম্পিউটারের ব্যবহার করা উচিত ফলে র‍্যানসমওয়্যার কম্পিউটারে প্রবেশ করা মাত্রই নোটিফিকেশন জেনে ব্যবস্থা নেওয়া যাবে।

Related posts

*

*

Top