ইমেজ রিসাইজ করার ফ্রি টুলস

হাসান যোবায়ের, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ওয়েবসাইট তাড়াতাড়ি লোড না হলে ভিজিটর যেমন থাকে না, তেমনি সার্চ ইঞ্জিন অপটিমাইজেশনের (এসইও) জন্যও তা খারাপ। তাই সাইট দ্রুত লোড হয় সেজন্য ইমেজ সাইজ কমিয়ে দেওয়া যেতে পারে। ইমেজের কোনো কোয়ালিটি নষ্ট না করে সাইজ কমানোর অনেক পদ্ধতি রয়েছে। তেমন কিছু ওয়েবসাইটের খোঁজ থাকছে এ টিউটোরিয়ালে।

শ্রিঙ্ক ও’ম্যাট্রিক

এডোব এয়ার আপ্লিকেশন হলো স্রিংক ও’ম্যাট্রিক (Shrink O’Matic)। ইমেজ রিসাইজ করার জন্য এটি একটি কাজের টুল। এটি ব্যবহার করে JPGs, GIFs এবং PNG ফরম্যাটের ইমেজগুলো ড্রাগ ও ড্রপ করে রাখলেই সেটিং অনুযায়ী রিসাইজ হয়ে  যাবে। আউটপুট সেটিংস থেকে রোটেশন, আউটপুট সাইজ, নাম, লোকেশন, ফরম্যাট এবং ওয়াটার মার্কও যুক্ত করা যাবে। এ ছাড়াও রয়েছে EXIF ডাটা সাপোর্ট। ফলে ইমেজ কম্প্রেস করার পরেও সকল তথ্য থাকবে অটুট।

স্ম্যাশ ডট ইট

ইয়াহুর একটি অনলাইন সার্ভিস এটি (Smush.it)। ইমেজের কোনো ক্ষতি না করেই সাইজ কমাতে জুড়ি নেই এই সাইটের। JPEG, GIF ও PNG সাপোর্ট করে। রিসাইজ করা ছবি ডাউনলোডের জন্য একটি লিঙ্ক দেয়া হয় যা ৩০ মিনিটের জন্য কার্যকর থাকে।

রিইওট

এই টুলসের (RIOT) সব চেয়ে বড় সুবিধা ইমেজ সাইজ রিডিউস করার আগে ও পরে দুইটাই পাশাপাশি দেখা যাবে। ফলে রিসাইজ করার পর ছবির কোনো ক্ষতি হয়েছে কিনা সাথে সাথেই তা চেক করা যাবে।

খুবই ছোট, গতিসম্পন্ন এবং এডভান্স ইউজারদের জন্য রয়েছে অনেক ফিচার। অনেক ধরণের ফরম্যাট সাপোর্ট করে এটি।

6-PNGGauntlet

 

পিএনজি গাউন্টলেট

এ টুলের (PNG Gauntlet) মাধ্যমে PNG ফাইল তৈরি করা যায় সহজেই। JPG, GIF, TIFF ও BMP ফাইলগুলোকে PNG ফরম্যাটে রুপান্তর করে এটি। কম্প্রেস হচ্ছে কি না তা স্ট্যাটাস বার দেখে জানা যাবে এবং কতটুকু সাইজ বাঁচল তাও পাশাপাশি দেখা যাবে।

কমপ্রেস নাউ

এটাও (CompressNow) আরেকটি অনলাইন আপলোডার ওয়েবসাইট। কম্পিউটার থেকে ইমেজ আপলোড করে এই সাইট থেকে সাইজ কমানো যাবে। এক সাথে ১০টি ইমেজ এবং ৩ মেগাবাইটের মধ্যে ইমেজ সাপোর্ট করে।

এমন আরো অনেক অনেক সাইট এবং টুলস রয়েছে। সবগুলো ব্যবহার করতে হবে এমন নয়। আপনার প্রয়োজন মত একটি সিলেক্ট করে সব সময় ব্যবহার করুন। তবে অনেকগুলো সম্পর্কে জেনে রাখা নিশ্চই ক্ষতির কিছু নয়।

Related posts

*

*

Top