হারানো স্মার্টফোন খোঁজার উপায়

হাসান যোবায়ের, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্মার্টফোনের এই যুগে দামি মোবাইল ফোনের ব্যবহার বাড়ছে। এত দামি ফোন চুরি হলে আর্থিক ক্ষতির পাশাপাশি প্রিয় জিনিস হারানোর কষ্ট মনে বাজে। সঙ্গে পোহাতে হয় নানান সমস্যা। ভয় থাকে ফোনে জমানো তথ্য বেহাত হওয়ার। এ অবস্থা থেকে মুক্তির উপায়? অ্যান্ড্রয়েড ফোন ব্যবহারকারীদের জন্য রয়েছে কিছু উপায়। তারা চাইলেই ফোনের তথ্য নিরাপদ ও বেহাত হওয়া ঠেকাতে পারবেন।

চোর যদি মোবাইলে সব কিছুই খুব সহজে পেয়ে যায় তাহলে আপনি স্মার্টফোনের স্মার্ট ইউজার হলেন না। মোবাইল ফোন হারিয়ে গেলে কিংবা চুরি হলে সেটির লোকেশন বের করা বা সকল ডাটা মুছে দেয়ার ক্ষমতা আপনার আছে। অ্যান্ড্রয়েড ফোনে এ নিরাপত্তা নিশ্চিত করার কিছু উপায় রয়েছে। ফোন হারালেও এসব ফিচার ব্যবহার করে অনেকটাই নিশ্চিত থাকতে পারেন আপনি।

 

mobilie phone snatch_techshohor

 

অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে অনেক থার্ড পার্টি অ্যাপস রয়েছে। এগুলো ব্যবহার করে মোবাইল লক করা, লোকেশন ট্রেস করা বা রিমোটলি ডাটা মুছে দেয়া যায়। ডিফল্টভাবে অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলে এ ফিচারগুলো রয়েছে। এগুলো ব্যবহার করতে চাইলে আপনাকে শুধু বিষয়গুলো বুঝে নিতে হবে।

লক কোড

আপনার মোবাইলে পিন কোড সেট করে রাখতে পারেন। সেটা হতে পারে ৪ থেকে ১৭ অক্ষরের পাসওয়ার্ড। অ্যান্ড্রয়েড ফোনে প্যাটার্ন ফিচারও রয়েছে, যা এখন অনেকেই ব্যবহার করছে। তবে এটার সমস্যা হলো একই প্যাটার্ন সব সময় ব্যবহার করার কারণে ডিসপ্লেতে এক ধরণে চিহ্ন তৈরি হয়ে যায় যা দেখে চোর খুব সহজেই এটা খুলে ফেলতে পারে। এ ছাড়া ফেস আনলক ফিচারও রয়েছে যা বেশ উপযুক্ত ফিচারই বলা যায় তবে সব মিলিয়ে পাসওয়ার্ড লকটাই বেশি নিরাপদ। তবে কিছু কিছু ফোনে ফিঙ্গারপ্রিন্ট স্ক্যানার সুবিধাও রয়েছে!

মোবাইল ট্রেসিং সিস্টেম

অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ম্যানেজার (Android Device Manager) দিয়ে অ্যান্ড্রয়েড ফোনের লোকেশন বের করা যায়। অর্থাৎ মোবাইল ফোন যদি চুরি হয় তাহলে অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ম্যানেজারের সাহায্যে মোবাইলের বর্তমান লোকেশন বের করা সম্ভব। এ জন্য যেটা করতে হবে সেটা হচ্ছে গুগল সেটিংস মেনুতে গিয়ে অ্যান্ড্রয়েড ডিভাইস ম্যানেজার অপশনটি সিলেক্ট করতে হবে। তারপর remotely locating, locking and resetting your phone এই বক্সেগুলোতে চেক করে দিতে হবে।

 

Android Device Manager
অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল ফোন দিয়ে ট্রেস করা স্থান বা হারানো ফোনটি খুঁজে বের করার জন্য প্রথমে Android Device Manager site এ গুগল আইডি দিয়ে লগ ইন করতে হবে। সেখানে আপনার সকল ডিভাইস প্রদর্শন করবে যেগুলো এ আইডি দিয়ে আপনি ব্যবহার করছেন। প্রতিটি ডিভাইসে ক্লিক করলেই গুগল ম্যাপে লোকেশন দেখতে পারবেন। আর হ্যা অবশ্যই ফোনে ইন্টারনেট থাকতে হবে।
অ্যান্ড্রয়েড ফেস লক ফিচার

আরও কিছু অপশন রয়েছে- যেমন নতুন লক কোড সেট করা, ৫ মিনিট ফুল ভলিউমে মোবাইল বাজানো হোক সেটা সাইলেন্ট মুড এবং সেটের সকল ডাটা মুছে দেওয়া। তবে থার্ড পার্টি অ্যাপসগুলোতে আরও অনেক ফিচার রয়েছে।

 

 

অ্যান্ড্রয়েড মোবাইল যদি অফলাইন মুডে থাকে বা পাওয়ার বাটনের মাধ্যমে সুইচ অফ করে দেওয়া হয় তাহলে এ পদ্ধতিগুলো কাজে আসবে না। তবে মোবাইল অন করার পর আপনি নোটিফিকেশন পেতে পারেন। আর ডাটা যখন মুছে ফেলবেন তখন আর কোনো ট্রেসিং ফলাফল পাবেন না। আর হ্যা মোবাইল মেমরিই শুধু মুছে যাবে রিমোটলি- মেমরি কার্ডের ফাইল মুছবে না। তাই সাবধানে মেমরি কার্ড ব্যবহার করুন।

 

অপারেটিং সিস্টেম অনুযায়ী নিরাপত্তার তুলনামূলক চিত্রঃ 

Feature iOS Android Windows Phone
Mobile app Yes No No
Device tracking Yes Yes Yes
Remote wipe Yes Yes Yes
Remote screen lock Yes Yes Yes
Play a sound Yes Yes Yes
Onscreen message Yes No Yes
Prevent new activations Yes No No
Lock code choices 4-digit PIN or password 4- to 17-digit PIN, password, pattern, or face unlock 4- to 16-digit PIN only
Features accessible from lock screen Siri (including placing a call, or sending a text), Notification and Control centers Missed calls & text messages None

 

সব মিলিয়ে বলা যায় সহজ ইন্টারফেস এবং ফ্রি অ্যাপসের জন্য অ্যান্ড্রয়েড আদর্শ। তবে গুগলের উচিত অ্যাপলের মত অ্যান্ড্রয়েডে আরও বেশি নিরাপত্তা নিশ্চিত করা।

Related posts

টি মতামত

*

*

Top