৭০০ ব্যান্ডের স্পেকট্রামের নিলাম দু’ বছরের মধ্যে

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এ পর্যন্ত বাংলাদেশের হাতে যতো স্পেকট্রাম আছে সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে মূল্যবান ৭০০ ব্যান্ডের স্পেকট্রাম, যার নিলাম ২০১৬ সালের মধ্যে করার পরিকল্পনা করছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

কমিশনের তৈরি তিন বছরের (২০১৪-২০১৬) রোডম্যাপের খসড়ায় এ স্পেকট্রাম নিলামের বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে।

দেশের টেলিকম খাতকে আরও বিনিয়োগবান্ধব করতে স্বল্পমেয়াদী রোডম্যাপটি প্রণয়নের কাজ প্রায় শেষ করে এনেছে বিটিআরসি বলে জানা গেছে।

spectrum_techshohpr

জানা গেছে, মোবাইল ফোন অপারেটরসহ বিভিন্ন পর্যায় থেকে বারবার সবচেয়ে মূল্যবান ৭০০ ব্যান্ডের স্পেকট্রাম অফলোড করতে অনুরোধ করা হয়েছে। একই সঙ্গে এ বিষয়ে সুনির্দিষ্ট নির্দেশনাও চেয়েছে অপারেটরগুলো।

সংশ্লিষ্টদের মতে, এ ব্যান্ডে সেবা দিতে অপারেটরগুলোর অনেক কম বিনিয়োগ প্রয়োজন হবে। অল্প খরচের নেটওয়ার্ক দিয়ে অনেক বেশি গ্রাহককে সেবা দেওয়া যাবে বলে টেলিকম অপারেটরগুলোর নজর এ ব্যান্ডের দিকে।

রোডম্যাপ প্রণয়ন কমিটির প্রধান ও কমিশনের স্পেকট্রাম বিভাগের কমিশনার এটিএম মনিরুল কবীর এ বিষয়ে বলেন, ৭০০ ব্যান্ডের স্পেকট্রাম ২০১৬ সালের মধ্যে নিলাম করার চিন্তাভাবনা চলছে। এটি এ যাবতকালে বিটিআরসির সবচেয়ে দামী স্পেকট্রাম হবে বলে তিনি উল্লেখ করেন।

এর আগে গত বছর সেপ্টেম্বরে বিটিআরসি ২১০০ ব্যান্ডের প্রতি মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম ২ কোটি ১০ লাখ মূল্যে বিক্রি করেছে। এর আগে ২০১১ সালে চারটি মোবাইল ফোন অপারেটরের লাইসেন্স নবায়নের সময় প্রতি মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম ১৫০ কোটি টাকায় কেনে।

সে হিসেবে ৭০০ ব্যান্ডের স্পেকট্রাম আরও বেশি দামে বিক্রি হওয়ার কথা বলে জানিয়েছে সূত্র।

সূত্র জানায়, গ্রাহকদের গুণগত সেবা নিশ্চত করতে গুণগত মানের সেবায় আরও জোর দেওয়ার পাশাপাশি আন্তর্জাতিক কলের সঠিক রুট নির্ণয়ের মাধ্যমে সরকারের রাজস্ব নিশ্চিত করাসহ নিরাপদ ইন্টারনেট বিষয়ক নানা প্রস্তাবও রোডম্যাপে যুক্ত হয়েছে।

spectrum auction_techshohor

চূড়ান্ত হলে এটি হবে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটির দ্বিতীয় রোডম্যাপ। এর আগে তত্ত্বাবধায়ক সরকারের সময় ২০০৭ সালে ২০টি কর্মপরিকল্পনাসহ দুই বছরের রোডম্যাপ করা হয়েছিল।

বিটিআরসির বর্তমান চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোস দায়িত্ব নেওয়ার কিছু দিনের মধ্যে ২০১৩ সালের মার্চে তিন বছর মেয়াদী রোডম্যাপ প্রনয়নের উদ্যোগ নেন। অবশ্য তখন কমিটি গঠিত হলেও পরের এক বছরে কমিটির কাজে কোনো অগ্রগতি হয়নি। তবে সম্প্রতি কাজ শুরু করেছে কমিটি।

কমিটি এক বছর বিলম্বের কারণে ইতোমধ্যে রোডম্যাপ বাস্তবায়নের সময়ও এক বছর পিছিয়ে দিয়েছে।

এদিকে বিটিআরসির রোডম্যাপ তৈরির উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব। তারা বলছে, রোডম্যাপের মাধ্যমে নতুন বিনিয়োগ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া সহজ হবে। তবে মাত্র তিন বছরের জন্য না করে অন্তত দশ বছর মেয়াদী হওয়া জরুরি বলে সংগঠনটির নেতাদের বক্তব্য।

Related posts

*

*

Top