Maintance

বাংলালিংক-এয়ারটেলে অডিট শুরু করছে বিটিআরসি

প্রকাশঃ ৪:১৮ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ১১, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:২৬ অপরাহ্ন, ডিসেম্বর ১১, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর: গ্রামীণফোন-রবির পর এবার বাংলালিংক এবং এয়ারটেলের অর্থনৈতিক ও প্রযুক্তিগত অডিট শুরু করতে যাচ্ছে বিটিআরসি।

সম্প্রতি বিটিআরসির নিয়মিত কমিশন বৈঠকে এ বিষয়ে এক সিদ্ধান্তের পর রোববারই অডিটর নিয়োগের জন্যে দরপত্র আবহান করেছে সংস্থাটি। সোমবার সংবাদপত্রে এ বিষয়ে বিজ্ঞাপনও ছাপা হয়েছে।

আইনগতভাবে মাঝে মাঝেই বিটিআরসির বিভিন্ন অপারেটরের আর্থিক এবং প্রযুক্তিগতখাত অডিট করার এখতিয়ার থাকলেও এতো বছরে এখানে তাদের সাফল্য খুবই কম।

বর্তমানে গ্রামীণফোন এবং রবির অডিট একটি পর্যায়ে চলে আসলেও সে সব প্রতিবেদন এখনো চূড়ান্ত হয়নি। অন্যদিকে ২০১১ সালে বিটিআরসি গ্রামীণফোনের একটি অডিট করে তিন হাজার ৩৪ কোটি টাকা দাবি করলেও তার সুরাহা হয়নি আইনগত জটিলতায়।

নতুন আহবান করা দরপত্রে বাংলালিংকের সম্পূর্ণ নতুন একটি অডিট হবে। এর আগে ২০১১ সালে গ্রামীণফোনের সঙ্গে দুইবার করে অপারেটরটির অডিট শুরু করলেও দুইবার অডিটর কোম্পানি জানায়, তাদের পক্ষে এই অডিট করা সম্ভব নয়। তবে অডিট প্রতিষ্ঠান আহমেদ জাকের অ্যান্ড কোম্পানি কখনোই এর  সুনির্দিষ্ট কোনো কারণ উল্লেখ করেনি।

অন্যদিকে গত বছর রবির সঙ্গে একীভূত হয়ে গেলেও এয়ারটেলের সময়ের অডিট করা হবে বলে জানিয়েছে বিটিআরসি’র সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা।

এদিকে মাত্র ১৮০ দিনের মধ্যে গ্রামীণফোনের অডিট শেষ করার চুক্তিতে তোহা খান জামান অ্যান্ড কোম্পানি চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস নামের একটি কোম্পানি এখনও কাজ শেষ করতে পারেনি। তবে কাজের জন্যে তারা পাবে ৮ কোটি ৭৯ লাখ টাকা। এর একটি বড় অংশই ইতোমধ্যে নিয়ে নিয়েছে কোম্পানিটি।

সূত্র বলছে, তারা একটি খসড়া প্রতিবেদন জমা দিয়েছে।

একইভাবে পরের বছর শুরুর দিকে রবির অডিটের কাজ শুরু করে মসিহ মুহিত হক অ্যান্ড কোম্পানি চার্টার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস। তাদের সঙ্গেও বিটিআরসির চুক্তি ছিল ১৮০ দিন। এই কোম্পানিও রবির অডিট শেষ করতে পারেনি এখনও। এ কাজের জন্যে মসিহ মুহিত পাবে ৭ কোটি ৮২ লাখ টাকা।

তবে অন্যান্য মোবাইল অপারেটরসহ টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠানগুলোর অডিট করার জন্য আরও ২৪ কোটি ২৭ লাখ টাকা বিটিআরসির কাছে অবশিষ্ট আছে। এর আগে শুধু অডিটের জন্যে বিটিআরসি সরকারের কাছ থেকে সব মিলে ৪০ কোটি ৮৮ লাখ টাকা বরাদ্দ পায়।

তবে এক্ষেত্রে কাঙ্খিত সফলতা না পাওয়ার বিষয়ে সংশ্লিষ্ট শাখার এক কর্মকর্তা বলেন, অপারেটরদের অডিট করা তাদের দায়িত্ব হলেও লোকবল সংকটের কারণে তা অনেক সময়ই সফলভাবে করা হয়ে ওঠে না।

অনন্য ইসলাম

*

*

Related posts/