Maintance

১০০ কোটি টাকা বিল আদায়ে এজেন্ট নিয়োগ দিচ্ছে গ্রামীণফোন

প্রকাশঃ ৩:৩৯ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১, ২০১৪ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:৪৩ অপরাহ্ন, এপ্রিল ১, ২০১৪

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দীর্ঘদিন ধরে সংযোগ বিচ্ছিন্ন প্রায় ৫ লাখ ৭৫ হাজার গ্রাহকের কাছে দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের বকেয়া প্রায় একশ কোটি টাকা বিল আদায়ে কাজ করবে তৃতীয় পক্ষ।

সম্প্রতি টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন অপারেটরটিরকে বিল আদায়ে এজেন্ট নিয়োগের অনুমোদন দিয়েছে। এতে এজেন্ট প্রতিষ্ঠানটি গ্রাহকের সকল তথ্য যাচাই বাছাই করে সর্বোচ্চ উপায়ে তার কাছ থেকে টাকা আদায়ের চেষ্টা করবে।

১৯৯৭ সালে যাত্রা শুরুর পর থেকে বিভিন্ন সময়ে মূলত পোস্ট পেইড গ্রাহকদের যারা অনেক টাকা বিল বাকি ফেলে সিম বন্ধ করে দিয়েছেন তাদের খুঁজতে এ উদ্যোগ নিয়েছে অপারেটরটি।

grameenphone_techshohor

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, টাকা আদায়ের জন্য পুরনো গ্রাহকদের ফরম, সংশ্লিষ্ট কল ইনফরমেশন, এসএমএস এবং এফএনএফ নম্বর যাচাই করতে হবে। তবে লাইসেন্সের শর্ত অনুযায়ী  গ্রাহকের সকল তথ্য অপারেটরগুলার গোপন রাখার বাধ্যবাধ্যকতা রয়েছে। এ কারণে বিটিআরসির অনুমোদন ছাড়া এসব তথ্য অন্য কারো কাছে দিতে পারবে না গ্রামীণফোন।

তবে কমিশনের কাছে এ বিষয়ে অনুমোদন চাওয়ার ক্ষেত্রে গ্রামীণফোন এজেন্টের সঙ্গে তথ্য গোপন রাখার চুক্তি করবে। যাতে এজেন্টের কাছ থেকে অন্য কারো কাছে এ তথ্য চলে না যায়।

কমিশনের অনুমোদন পাওয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অপারেটরটির রেগুলেটরি বিভাগের প্রধান কর্মকর্তা মাহমুদ হোসাইন। তিনি বলেন, এ জন্য শিগগরি তারা কাজ শুরু করবেন।

এদিকে গ্রামীণফোন অনুমোদন নিলেও অন্য কয়েকটি অপারেটর বিটিআরসির কাছ থেকে কোনো রকম অনুমোদন না নিয়ে তৃতীয় পক্ষকে টাকা আদায়ের অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

সূত্র জানিয়েছে, গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্যের ভিত্তিতে তার সঙ্গে যোগাযোগ করে টাকা চাইবে এজেন্ট। প্রয়োজনে তার বিষয়ে তথ্য পেতে তার কলসম্পর্কিত তথ্য ঘাটবে এবং এফএনএফ নম্বর থেকেও তথ্য সংগ্রহ করবে।

এক্ষেত্রে গ্রহাকের সঙ্গে সারাসরি যোগাযোগ ছাড়াও ই-মেইল, এসএমএসের মাধ্যমেও যোগাযোগ করতে পারবেন তারা।

*

*