থ্রিজি নিলামের ওপর তিনশ’ কোটি টাকা চায় এনবিআর

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : থ্রিজির স্পেকট্রামের নিলাম শেষ হয়েছে ছয় মাসের বেশি হয়ে গেছে। মোবাইল অপারেটরগুলো লাইসেন্স নেওয়ার প্রক্রিয়া শেষ করে সেবা দেওয়া শুরু করেছে অনেক আগে। কিন্তু এতদিন পর জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) মনে হয়েছে নিলামের ওপর ৫ শতাংশ উৎসে কর প্রাপ্য সরকারের।

এনবিআরের দাবি অনুসারে নিলাম থেকে ২৮৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকা পাওনা আছে উৎসে কর হিসাবে।

গত ১০ মার্চ এনবিআর এ সংক্রান্ত একটি চিঠি বিটিআরসিতে পাঠিয়েছে। ট্যাক্স অধ্যাদেশের উদ্ধৃতি দিয়ে এ দাবি করেছে রাজস্ব সংস্থাটি।

btrc_nbr_techshohor

গত বছর ৮ সেপ্টেম্বর থ্রিজির স্পেকট্রামের নিলাম থেকে চারটি মোবাইল অপারেটর কিনে নেয় ২৫ মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম। আর আগে থেকেই রাষ্ট্রায়ত্ত্ব অপারেটর টেলিটক নেয় ১০ মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম।

সব মিলে ৩৫ মেগাহার্ডজ স্পেকট্রামের মূল্য ৫ হাজার ৭১৪ কোটি ৬৩ লাখ টাকার ওপর ৫ শতাংশ হারে উৎসে কর দাবি করছে এনবিআর।

বিটিআরসিও এখন এ টাকা মোবাইল ফোন অপারেটরদের ওপর চাপিয়ে দিতে চাইছে।

বিষয়টি নিয়ে মোবাইল ফোন অপারেটররা সতর্ক অবস্থান নিয়েছেন। অপারেটরগুলোর কর্মকর্তারা সরাসরি এর বিরুদ্ধেও বলছেন না বা পরিশোধ করবেন সেটাও বলছেন না।

বাংলালিংকের সিনিয়র পরিচালক জাকিউল ইসলাম বিষয়টি পর্যালোচনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন। তিনি বলেন, যে সব দাবি তোলা হয়েছে সেগুলোর কোনোটিই গ্রহণযোগ্য নয়। তা ছাড়া ছয় মাস পেরিয়ে যাওয়ার পর এতো টাকা দাবি করায় এটি নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিচ্ছে।

ওই কর্মকর্তা বলেন, নিলামে তারা কোনো পণ্য কেনেননি। একটি সেবা কিছুদিনের জন্যে নির্দিষ্ট সময়েরর জন্য ইজারা নিয়েছেন। যেটি আবার ফেরত দিতে হবে।

অপারেটরদের কর্মকর্তাদের মতে, এ নিলাম থেকে কেউ কিছু আয় করে থাকলে বিটিআরসি সেটা পেয়েছে। আর অপারেটররা ব্যয় করেছে। সুতরাং উৎসে কর দিতে হলে সেটি কমিশন দেবে। অহেতুক তাদের ওপর দায় চাপানোর কারণ খুঁজছেন তারা।

সংশ্লিষ্টরা মনে করছেন, বিষয়টি নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে আবার অনেক দিন যে ঠেলাঠেলি হবে সেটা বোঝাই যাচ্ছে। এর আগেও ভ্যাট নিয়ে মোবাইল অপারেটরগুলোর সঙ্গে এনবিআরের ঝামেলা হয়েছিল। যা আদালত পর্যন্ত গড়িয়েছে।

Related posts

*

*

Top