ছয় টেলিকম অপারেটরের সিইওকে ডেকেছেন অর্থমন্ত্রী

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বর্তমান সরকারের সময় প্রথমবারের মতো ছয়টি মোবাইল ফোন অপারেটরের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তাদেরকে বৈঠকে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

বৃহস্পতিবার অর্থমন্ত্রীর দফতর থেকে টেলিফোন করে রোববারের বৈঠকের জন্যে ছয় সিইওকে ডাকা হয়েছে।

mobile operator_telecom_companies_techshohor

বৈঠকের বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন বাংলালিংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা জিয়াদ সিতারা। তবে বৈঠকের এজেন্ডা বা তাদের আলোচ্য ইস্যু সম্পর্কে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি।

তবে অনেক দিন থেকেই মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন-অ্যামটব অর্থমন্ত্রীর কাছে একটি বৈঠক চেয়ে আসছিলো। মূল মোবাইল ফোন খাতের সমস্যা বিষয়ে অর্থমন্ত্রীকে অবহিত করা এবং তার হস্তক্ষেপ কামনা করতেই বৈঠক চাইছিলেন তারা।

এদিকে সম্পতি বড় চারটি মোবাইল ফোন অপারেটরের মূল কোম্পানি থেকে অর্থমন্ত্রীকে কয়েকটি বিষয়ে লেখা হয়েছে। তার মধ্যে মিমাংসা না হওয়া তিন হাজার কোটি টাকার সিমট্যাক্সের বিষয়টিও রয়েছে।

গ্রামীণফোনের মূল কোম্পানি টেলিনর, বাংলালিংকের মূল কোম্পানি ভিম্পেলকম, রবি’র মূল কোম্পানি আজিয়াটা এবং এয়ারটেলের মূল কোম্পানি ভারতী এয়ারটেল যৌথভাবে ওই চিঠি পাঠায়।

চিঠিতে বলা হয়, সিম রিপ্লেসমেন্ট ট্যাক্স নিয়ে যে জটিলতা দেখা দিয়েছে তার দ্রুত সমাধান না হলে এই দেশে তাদের বিনিয়োগের ওপর এর প্রভাব পড়ছে।

আর এক্ষেত্রে তারা দ্রুত অর্থমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ কামনা করেছেন।

সিম রিপ্লেসমেন্ট ট্যাক্স হিসেবে এনবিআর চারটি অপারেটরের কাছে মোট ৩ হাজার ১০ কোটি টাকা দাবি করেছে। এর মধ্যে গ্রামীণফোনের কাছে ১ হাজার ৫৬২ কোটি টাকা, বাংলালিংকের কাছে ৭৬২ কোটি, রবি’র কাছে ৬৪৭ কোটি এবং এয়ারটেলের কাছে ৩৯ কোটি টাকা দাবি করা হয়েছে।

বিষয়টি আদালতে গেলেও এর কোনো সুরাহা হচ্ছে না।

এনবিআর বলছে, মোবাইল ফোন অপারেটরদের বদলে দেওয়া সিমের ৭৯ শতাংশই সঠিকভাবে নিবন্ধিত নয় এবং একজনের সিম আরেকজনকে দেওয়া হয়েছে। আর এ জন্যে প্রতিটি সিমের ওপর তারা ৬’শ টাকা হারে ট্যাক্স দাবি করেছেন। তবে বর্তমানে সিম প্রতি ট্যাক্স আছে ৩’শ টাকা।

আর মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো এনবিআরের দাবি উড়িয়ে দিয়ে বলছেন, ২০১০ সালের আগে সিম নিবন্ধন বলে সরকারের দিক থেকে কোনো নির্দেশনাই ছিল না। ফলে সঠিক নিবন্ধন না হওয়া বা অন্য কোনো কারণে একজনের নামের সিম অন্য জনের কাছে গিয়ে থাকলে তার দায় তাদের নয়।

এসব বিষয়ে অর্থমন্ত্রীর সঙ্গে আগেও আলোচনা হয়েছে এবং রোববার আবারও আলোচনা হবে বলে জানিয়েছেন অ্যামটবের সাধারণ সম্পাদক টিআই নূরুল কবীর।

Related posts

*

*

Top