দুই মাসের মধ্যে তরঙ্গ নিলাম, ফোরজির লাইসেন্স

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যত দ্রুত সম্ভব, সম্ভব হলে এক-দুই মাসের মধ্যেই ফোরজির লাইসেন্সসহ তরঙ্গ নিলামের আয়োজন করতে নির্দেশনা দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

সেই সঙ্গে তরঙ্গ ব্যবহারে প্রযুক্তি নিরপেক্ষতাও দেওয়ার কথা বলেছেন তিনি। যাতে করে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর গ্রাহক সেবার মান ভালো হয়।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ে অনুষ্ঠিত ওই বৈঠক শেষে তিনি সাংবাদিকদের জানান, সন্তোষজনক সেবা দিতে না পারার কারণ হিসেবে সব অপারেটররা কেবল তরঙ্গ স্বল্পতার কথা বলেন। এখন আমরা নিলামের আয়োজন করবো, তারপরে যদি অপারেটররা তরঙ্গ না নেয়, অথবা সেবার মান বৃদ্ধি করতে না পারে তখন তাদেরকে ধরা হবে।

প্রতিমন্ত্রী জানান, ইতোমধ্যে তারা ফোরজির খসড়া নীতিমালা বিটিআরসির কাছ থেকে পেয়ে গেছেন। আর বৈঠক থেকে তাদেরকে তরঙ্গের বিষয়েও নীতিমালার একটি খসড়া দিতে বলা হয়েছে।

4G-techshohor

এরপর দুটি নীতিমালাই অল্প দিনের মধ্যে চূড়ান্ত করে দেওয়া হবে যাতে জুলাই মাস নাগাদ তরঙ্গের নিলাম আয়োজন করা যায়, বলছিলেন তারানা হালিম।

তাতে করে এ বছরের মধ্যেই দেশে ফোরজি চালু হবে বলেও বৈঠকে দৃঢ় আশাবাদ ব্যক্ত করা হয়।

বৈঠকে যে সব অপারেটরের কাছে অব্যবহৃত তরঙ্গ আছে সেগুলো যত দ্রুত সম্ভব ফেরত নিয়ে নিলামে তোলার কথা বলা হয়েছে বলেও জানান তারানা।

প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা সুবিধা পাওয়া গেলে অপারেটররা তখন যেকোনো তরঙ্গে যেকোনো সেবা দিতে পারবে, এতে তাদের সেবার মান বৃদ্ধি পাবে এবং একই সঙ্গে খরচও কমে আসবে।

প্রযুক্তি নিরপেক্ষতা সুবিধা দেওয়ার জন্যে প্রতি মেগাহার্জ তরঙ্গের জন্য বাড়তি পাঁচ মিলিয়ন ডলার করে দেওয়া হতে পারে বলে আলোচনা হয়েছে, তবে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি। অন্যদিকে আবার নিলামে তোলা তরঙ্গের মূল্য কত হবে সে বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত বৈঠক থেকে দেওয়া হয়নি।

কল ড্রপের ক্ষেত্রে সব গ্রাহকদের ক্ষতিপূরণ দেওয়া হয় কিনা বা দিলেও সেটি গ্রাহকদেরকে অবহিত করা হয় কিনা সে বিষয়ে বিটিআরসিকে কড়াকড়ি আরোপের নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে বৈঠক থেকে।

এর বাইরে মোবাইল ফোন অপারেটররা কোনো অপরাধ করলে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নেওয়ার জন্যে বিটিআরসিকে কঠোর হতে বলা হয়েছে বলে জানিয়েছে বৈঠক সূত্র।

আর. এস হুসেইন

Related posts

*

*

Top