দক্ষিণ এশিয়া স্যাটেলাইটের সুবিধা এখনই পাচ্ছে না বাংলাদেশ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : পরিকল্পনার আড়াই বছরের মধ্যে মহাকাশে উড়ল দক্ষিণ এশিয়া স্যাটেলাইট। তবে এ স্যাটেলাইটের অংশীদার হয়েও কবে বাংলাদেশ এটির সেবা পাবে সেটি নিশ্চিত করে বলতে পারছেন না কেউ।

এ স্যাটেলাইটের বিষয়ে ভারত-বাংলাদেশের মধ্যে গত ২৩ মার্চ যে চুক্তি হয়েছে, সেটি অনুসারে স্বল্প ক্ষমতার স্যাটেলাইটটির ১২ ট্রান্সপন্ডারের মধ্যে একটি ব্যবহার করবে বাংলাদেশ।

এ জন্য নিজ খরচে বাংলাদেশেকে বানাতে হবে স্যাটেলাইটের লিংক ডাইনলোডের গ্রাউন্ড স্টেশন। সেটিও এখনও তৈরি করা হয়নি।

SAS-satelite-techshohor

সংশ্লিষ্টদের মতে, বাংলাদেশ নিজস্ব স্যাটেলাইট বঙ্গবন্ধু-১ এর জন্য যে গ্রাউন্ড স্টেশন তৈরি করছে- সেটি ব্যবহার করেই দক্ষিণ এশিয়া স্যাটেলাইটের লিংক ডাউনলোড করা যাবে।

সর্বশেষ তথ্য অনুযায়ী, এ কাজ শেষ হতে আরও চার থেকে পাঁচ মাস লেগে যাবে। আর ওই গ্রাউন্ড স্টেশন ব্যবহার করে দক্ষিণ এশিয়া স্যাটেলাইটের লিংক ডাউনলোড করার বিষয়েও এখন পর্যন্ত সরকার সিদ্ধান্ত নেয়নি।

ফলে স্যাটেলাইট মহাকাশে প্রদক্ষিণ শুরু করলেও সেবা পাওয়ার বিষয়টি বিলম্বিত হবে, সেটি নিশ্চিত। এমনকি কবে থেকে এটি ব্যবহার করা সম্ভব হবে সেটিও অনিশ্চিত।

এ বিষয়ে সরকারের দিকে থেকে আনুষ্ঠানিক কোনও মন্তব্য পাওয়া যায়নি। বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইট তৈরির ব্যবস্থাপনা সংক্রান্ত কার্যক্রম বাস্তবায়নকারী সংস্থা টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসিও এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হয়নি।

এ বিষয়ে গত শুক্রবার বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহাজাহান মাহমুদ একটি সংবাদপত্রকে বলেছেন, বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের জন্য নির্মাণাধীন দুটি আর্থ স্টেশনের যে কোনো একটির কিছু অংশে দক্ষিণ এশিয়া স্যাটেলাউটের লিংক ডাউনলোড করা যেতে পারে। তবে এ জন্য সরকারি সিদ্ধান্তের প্রয়োজন হবে।

ড. মাহমুদের বিবেচনায় গাজীপুরের স্টেশনটিই এ কাজে ব্যবহার করা যেতে পারে। বিটিআরসি অপর স্টেশনটি করছে রাঙামাটিতে।

বলা হচ্ছে, দক্ষিণ এশিয়ান স্যাটেলাইটের একটি ট্রান্সপন্ডার ব্যবহার করে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন, টেলি-মেডিসিন ও ইন্টার গভর্নমেন্ট নেটওয়ার্ক, দুর্যোগ অবস্থায় জরুরি যোগাযোগ, টেলিভিশন ব্রডকাস্ট ও ডিটিএইচ টেলিভিশন সার্ভিস সুবিধা নিতে পারবে।

তবে প্রত্যেকটি দেশই বিষয়বস্তু সংযোজন ও এর ব্যবহারের জন্য দায়ি থাকবে বলে জানানো হয়েছে।

এর আগে ২০১৪ সালের নভেম্বরে কাঠমুন্ডুতে সার্ক শীর্ষ সম্মেলনে ভারত এ স্যাটেলাইট বিষয়ে তাদের প্রস্তাব দেয়। তাদের খরচেই উড়ল এ স্যাটেলাইট। ব্যবস্থাপনা ও অন্যান্য সব কাজও করবে তারাই।

শুক্রবার স্যাটেলাইট উক্ষেপনের সময় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গণভবন থেকে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্স করেন। এ সময় তিনি এ স্যাটেলাইটের বিষয়ে নিজের ইতিবাচক অবস্থান জানান।

বাংলাদেশের পাশাপাশি মালদ্বীপ, নেপাল, ভুটান ও শ্রীলঙ্কা এ স্যাটেলাইট বিষয়ে চুক্তি করে সম্মতি দিয়েছে।

আফগানিস্তান আনুষ্ঠানিক চুক্তি না করলেও তারা আছে এর সঙ্গে থাকার কথা জানিয়েছে।সার্ক দেশগুলোর মধ্যে শুধু পাকিস্তান নেই এই আয়োজনে।

Related posts

*

*

Top