Maintance

স্পুফিং নিয়ে হুয়াওয়ে-এরিকসনের সঙ্গে বসছে বিটিআরসি

প্রকাশঃ ৪:২৪ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৪:২৪ অপরাহ্ন, ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০১৭

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্পুফিং নিয়ন্ত্রণে বিশ্বের অন্যতম তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা দুই কোম্পানি হুয়াওয়ে ও এরিকসনের সঙ্গে বৈঠকে বসছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

এতে স্পুফিং বিষয়ে কোম্পানি দুটির কাছ থেকে করণীয় সম্পর্কে ধারণা নিতে চায় বিটিআরসি। একই সঙ্গে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে তাদের সহযোগিতাও চাইবে কমিশন।

বুধবার এই বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। বিটিআরসির সংশ্লিষ্ট বিভাগের এক কর্মকর্তা এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছি। অনেক পদক্ষেপ নেওয়া হলেও কিছুতেই কিছুই করা যাচ্ছে না। আর সে কারণেই হুয়াওয়ে এবং এরিকসনকে ডাকার সিদ্ধান্ত।’

‘কোম্পানি দুটি বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে। আর সমস্যা মোকাবেলায় তাদের গবেষণা ও উদ্ভাবন রয়েছে।’- সে কারণেই তাদেরকে ডাকা হয়েছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনে তাদের কাছ থেকে প্রযুক্তিগত সহায়তাও নেওয়া হবে।’

উন্নত বিশ্ব কীভাবে এই সমস্যার সমাধান করেছে সেটি এই বৈঠক থেকে বুঝতে চায় বিটিআরসি-বলেন ওই কর্মকর্তা।

spoofing.techshohor

কারও নাম্বার কপি করে করা কলকেই প্রযুক্তির ভাষায় স্পুফিং বলা হয়। এটি হলে প্রতারণার বিষয়টি সহজ হয়ে যায়। এই স্পুফিং ঠেকাতে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে নিজস্ব সফটওয়্যার ডেভেলপ করতে বলা হলেও তেমন অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না।

এসব উদ্যোগের সঙ্গে গ্রাহকদের সচেতন করতে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে বিটিআরসি।

চলতি মাসের শুরুতে টেলিযোগাযোগ বিভাগের এক বৈঠকেও প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এ বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন।

এক আলোচনায় বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বিষয়টি নিয়ে বলেন, আইভিপি-৬ ব্যবহার শুরু হলে এটি সনাক্ত করা সম্ভব হবে। তখন এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া যাবে।

বর্তমানে বাংলাদেশ আইভিপি-৪ ব্যবহার করছে।

দেশে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এখন ইন্টারনেট প্রটোকলের আইপিভি ফোর ভার্সন ব্যবহার করা হয়। এর সীমাবদ্ধতার কারণে দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর একটি বড় অংশ কোনো আসল আইপি ব্যবহার করেন না। তাদেরকে একটি আসল আইপি থেকে অনেকগুলো প্রাইভেট আইপি তৈরি করে দেওয়া হয়। এতে দেশের ভেতরে রিয়েল আইপি পর্যন্ত ট্র্যাক করা যায় কিন্তু প্রাইভেট পর্যন্ত যাওয়া যায় না।

*

*

Related posts/