কল শেষে নোটিফিকেশন দিচ্ছে না অপারেটররা

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রতিটি কল শেষে সময়ের ও ব্যয়ের পরিমাণ গ্রাহককে জানানো বাধ্যতামূলক করা হলেও তা মানছে না মোবাইল ফোন অপারেটররা।

বিশেষ করে মোবাইল ফোনের প্রিপেইড গ্রাহকদের জন্য প্রতিটি কলের শেষে এমন তথ্য (কল ডেটা নোটিফিকেশন) দেওয়া বাধ্যতামূলক করেও কোনো লাভ হয়নি। বেশিরভাগ গ্রাহক এ সেবা পাচ্ছেন না।

একই নোটিফিকেশনে কল করার পর ব্যালান্সের পরিমাণ কত সেটিও উল্লেখ থাকার কথা।

mobile call notification_techshohor

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) গত সেপ্টেম্বরে সব অপারেটরের জন্য এমন নোটিফিকেশন প্রদান বাধ্যতামূলক করে নির্দেশনা জারি করে। কিন্তু একটি অপারেটর সীমিত পর্যায়ে কিছু সেবা দিলেও কোটি কোটি গ্রাহক রয়েছেন এ সেবার বাইরে।

বিটিআরসির সিস্টেমস অ্যান্ড সার্ভিস বিভাগের এক কর্মকর্তা বলেন, কলের খরচ এবং সময় নিয়ে গ্রাহকরা হরহামেশা প্রতারিত হন। এ জন্য এমন সুবিধা চালুর নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। যাতে প্রতিটি কল শেষে গ্রাহক তার হিসাব মিলিয়ে দেখতে পারেন।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর কর্মকর্তারা বলছেন, শুধু সেবা বাড়াতে বললেই তো হবে না। তাদেরকে ব্যবসা করার সুযোগও দিতে হবে।

এক কর্মকর্তা বলেন, বিশ্বের সবচেয়ে কম ট্যারিফের দেশে অত্যাধুনিক সব সুবিধা চাওয়া ঠিক নয়। তবে তারা ডেটা নোটিফিকেশনের পক্ষে বলেও দাবি করেন তিনি।

ওই কর্মকর্তা বলেন, এর জন্যে কিছু বাড়তি খরচের বিষয় আছে। সাম্প্রতিক সময়ে তারা টুজি নবায়ন এবং থ্রিজি মিলিয়ে বিনিয়োগের পরিমাণ অনেক বেশি হওয়ায় নতুন করে বিনিয়োগে যেতে আরও ভাবতে হচ্ছে।

জানা গেছে, গ্রামীণফোন কেবল সীমিত পর্যায়ে এমন ডেটা নোটিফিকেশন চালু করেছে। শুরুর দিকে এয়ারটেল কিছু পর্যায়ে এমন সুবিধা দিয়ে চমক দিলেও এখন আবার তাদের খবর নেই।

এদিকে গ্রাহকদের অনেকে বলছেন, কেবল কলের খরচের হিসাব নয়, ডেটার ক্ষেত্রেও হিসাব দিতে হবে। তারা বলেন, কলের চেয়েও ডেটা ব্যবহারে গ্রাহকরা সবচেয়ে বেশি প্রতারণার সম্মুখীন হন।

কারণ ডেটার ক্ষেত্রে কেউ কোনো হিসাব রাখতে পারেন না। কে কতোটা ব্যবহার করল, কি স্পিড পাওয়া যাচ্ছে সেটির কোনো তথ্য জানা যায় না। অথচ একটি নির্দিষ্ট টাকা ঠিকই কাটা হচ্ছে প্রতিবার ব্যবহারের পর।

দেশে বর্তমানে ১১ কোটি ৩৮ লাখ মোবাইল গ্রাহক আছে যার ৯৫ শতাংশ প্রিপেইড গ্রাহক।

Related posts

*

*

Top