সেবা নিশ্চিত করতে বিটিআরসির গুচ্ছ নির্দেশনা

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল ফোনের গ্রাহকদের ফোন করার ক্ষেত্রে প্রতি ১০০ চেষ্টায় ৯৫ ভাগ ক্ষেত্রে সফল হতে হবে। সেটিও হতে হবে ৮ সেকেন্ডের মধ্যে। তা না হলে সেটি অপারেটরের নেতিবাচক পয়েন্ট হিসেবে কাজ করবে।

গ্রাহকদের অভিযোগের হার কোনো অবস্থায় আড়াই শতাংশের বেশি নয় এবং দুই বছরের মধ্যে তা এক শতাংশের নিচে নামিয়ে আনতে হবে। কল ড্রপের হারও এখন তিন শতাংশের নীচে থাকতে হবে আর দুই বছরের মধ্যে তা দুই শতাংশের নীচে নামিয়ে আনতে হবে।

mobile operator_telecom_companies_techshohor

সাম্প্রতিক সময়ে অপারেটরগুলোর বিরুদ্ধে গ্রাহকদের বিভিন্ন অভিযোগের প্রেক্ষিতে সেবা নিশ্চিত করতে কোয়ালিটি অব সার্ভিসের এ সব নির্ধারক ঠিক করে দিয়েছে বিটিআরসি। টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থাটি গত বুধবার এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করেছে।

প্রতি মাসের প্রথম সপ্তাহে এ সংক্রান্ত প্রতিবেদন বিটিআরসিকে জমা দিতে হবে অপারেটরদের। বিটিআরসি তা নিরীক্ষা করে এর সত্যতা যাচাই করবে। পরে এর ভিত্তিতে রেটিং প্রকাশ করা হবে।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো এ নির্দেশনাকে স্বাগত জানালেও এক্ষেত্রে দেশি বাস্তবতা এবং আন্তর্জাতিক অনুশীলনকে বিবেচনায় নেওয়া হয়নি বলে জানিয়েছে।

এর আগে গত ২ জানুয়ারি কমিশন বৈঠকে এ সংক্রান্ত নির্দেশনার বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেওয়া হলে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব কোনো কোনো ক্ষেত্রে খানিকটা বাড়তি সময় চায়। তবে বিটিআরসি শেষ পর্যন্ত তাদের কথা আমলে নেয়নি।

নির্দেশনায় কোন অপারেটরের কনজেশানের কি অবস্থা, কল ড্রপ হয় কিনা, ভয়েস কোয়ালিটির কি অবস্থা-এ সব উল্লেখ করা হয়েছে।

নির্দেশনা তৈরির ক্ষেত্রে বিটিআরসি দুর্বল নেটওয়ার্ক, অব্যহত কল ড্রপ এবং গ্রাহকের অসন্তুষ্ঠির বিষয়টিকে বিবেচনায় নিয়েছে। আর এ কারণে এমন একটি নির্দেশনা তৈরি করেছে কমিশন।

অভিযোগ গ্রহণের ক্ষেত্রে ইলেক্ট্রনিক বা এসএমএস সংক্রান্ত অভিযোগে শতভাগ ক্ষেত্রে ২০ সেকেন্ডের মধ্যে আমলে নেওয়া এবং ভয়েস অভিযোগের ক্ষেত্রে তা ৩০ সেকেন্ডের মধ্যে আমলে নেওয়ার কথা বলা হয়েছে।

তবে এক্ষেত্রে অ্যামটব দাবি করেছে যথাক্রমে ৬০ সেকেন্ড ও ১৮০ সেকেন্ড।

বর্তমানে গ্রাহক অভিযোগ জানাতে ফোন করলে বেশ কয়েক মিনিট অপেক্ষা করেও অনেক সময় অভিযোগ জানাতে পারে না। এ দুর্ভোগ থেকে মুক্তি দিতে এ বিষয়টি আমলে নেওয়া হয়েছে বলে জানান নির্দেশনা প্রণয়ন কমিটিতে থাকা এক কর্মকর্তা।

এক্ষেত্রে বিটিআরসি স্বল্প মেয়াদী (২ বছরের কম সময়ের মধ্যে বাস্তবায়নযোগ্য) এবং দীর্ঘ মেয়াদী বেশ কিছু প্যারামিটার ঠিক করে দিয়েছে।

নির্দেশনার বিষয়ে গ্রামীণফোনের চিফ কর্পোরেট অ্যাফেয়ার অফিসার মাহমুদ হোসইন নির্দেশনাকে স্বাগত জানালেও বলেন, এ বিষয়ে সকলের সঙ্গে আরও করে সিদ্ধান্ত নেওয়া প্রয়োজন ছিল। এ ক্ষেত্রে স্থানীয় বাস্তবতা ও প্রেক্ষিতকে যুক্ত করে আন্তর্জাতিক মানদন্ডের সঙ্গে মিলিয়ে একটি পূর্ণাঙ্গ নীতিমালা প্রনয়ণ করা দরকার বলে তিনি উল্লেখ করেন।

Related posts

*

*

Top