সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলের প্রতি অনেকের দৃষ্টি

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আইন সংশোধন করে গঠন করা সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিলে এখন সব মিলে প্রায় চারশ কোটি টাকা রয়েছে। আর তার দিকেই অনেকেরই নজর পড়েছে।

সম্প্রতি সরকারের একটি গোয়েন্দা সংস্থা ‘রাষ্ট্রীয় শৃঙ্খলা রক্ষ্মা এবং সামাজিক কর্তব্য’ লক্ষ্যে এই তহবিল থেকে ৬০ কোটি টাকার বরাদ্দ চেয়েছে।

BTRC_techshohor

একই সঙ্গে তহবিলের ব্যবস্থাপনা কমিটিতেও নিজেদের প্রতিনিধি অন্তর্ভূক্ত করার কথা বলেছে সংস্থাটি। এ সংশ্লিষ্ট দুটি আবেদন স্বরাষ্ট্র এবং ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয় ঘুরে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনে জমা পড়ছে।

তবে স্বরাষ্ট্র বা টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের ওই সুপারিশের ওপর এখনো কোনো সিদ্ধান্তে আসেনি বিটিআরসি।

এদিকে অন্য একটি সুপারিশে মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব বলছে, কেবল যাদের অর্থে তহবিলটির জন্ম হয়েছে তারাই এর বৈধ অংশীদার হতে পারবে।

গত সপ্তাহে টেলিযোগাযোগ মন্ত্রীর দফতরে এই আবেদন পাঠিয়েছে অ্যামটব।

অ্যামটবের সাধারণ সম্পাদক টিআইএম নূরুল কবীর স্বাক্ষরিত ওই চিঠিতে সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিল বিষয়ে আরো কিছু প্রস্তাবনাও দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, সেপ্টেম্বরের শেষ পর্যন্ত তহবিলে ৩’শ ৩৩ কোটি টাকা জমা পড়েছিল। আর বছরের শেষে তা প্রায় চারশ কোটি টাকা ছুঁই ছুঁই হয়ে গেছে।

এর নেটওয়ার্ক সার্ভিস কোম্পানিগুলোও এই তহবিলে থেকে বরাদ্দ চেয়েছে।

এর আগে ২০১০ সালে টেলিযোগাযোগ আইন সংশোধনের সময় সামাজিক দায়বদ্ধতা তহবিল যুক্ত করা হয়। আইন অনুসারে পরে এ বিষয়ে বিধি তৈরী করে তহবিল সংগ্রহ এবং কোন অপারেটরের তাতে কি অবদান থাকবে তা নির্ধারিত হওয়ার কথা।

সাড়ে তিন বছরে কোনো বিধি চূড়ান্ত না হলেও মোবাইল ফোন অপারেটররা তাদের মোট আয়ের এক শতাংশ তহবিলে জমা করে যাচ্ছেন।

দুই বছরেরও বেশী সময় ধরে গ্রামীণফোন, বাংলালিংক, রবি এবং এয়ারটেল এই টাকা দিচ্ছে।

Related posts

*

*

Top