গ্রাহকের কাছে গ্রামীণফোন পাবে ১০০ কোটি টাকা

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ আছে এমন প্রায় ৫ লাখ ৭৫ হাজার গ্রাহকের কাছে দেশের শীর্ষ মোবাইল ফোন অপারেটর গ্রামীণফোনের বকেয়া বিলের পরিমাণ প্রায় একশ কোটি টাকা।

১৯৯৭ সালে গ্রামীণফোনের যাত্রার পর থেকে বিভিন্ন সময় বিল বাকি রেখে সটকে পড়েছেন এমন গ্রাহকের বয়েকা বিবেচনায় নিয়ে এ হিসেব তৈরি করেছে অপারেটরটি।

grameen Phone 3g_ Tech Shohor

দীর্ঘদিন পরে হলেও এ অর্থ আদায়ের উদ্যোগ নিয়েছে গ্রামীণফোন। এ জন্য এজেন্টের সহায়তা নেওয়া সিদ্ধান্ত নিয়েছে কোম্পানিটি। সম্প্রতি এজেন্ট নিয়োগে এ বিষয়ে অনুমতি চেয়ে বিটিআরসির কাছে আবেদন করেছে অপারেটরটি।

তবে বিটিআরসি এখনও এ বিষয়ে সাড়া দেয়নি। তবে টেলিযোগাযোগ সংস্থার অনুমোদন মিলবে বলে আশা করছে গ্রামীণফোন কর্তৃপক্ষ।

এদিকে আরও কয়েকটি অপারেটর বিটিআরসির কাছ থেকে কোনো রকম অনুমোদন না নিয়ে তৃতীয় পক্ষকে টাকা আদায়ের অনুমোদন দিয়ে দিয়েছে বলে জানা গেছে।

গ্রামীণফোনটির একাধিক কর্মকর্তা বলেন, কমপ্লায়েন্ট অপারেটর হওয়ার কারণে সামান্য এ বিষয়েও রেগুলেটরের অনুমোদন চাওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্টদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, বকেয়া অর্থ আদায়ের ক্ষেত্রে গ্রাহকদের তথ্য জানতে পুরনো গ্রাহকদের ফরম, সংশ্লিষ্ট কল ইনফরমেশন, এসএমএস এবং এফএনএফ নম্বর যাচাই করার বিষয় আছে। আর লাইসেন্স পাওয়ার ক্ষেত্রে শর্ত ছিল গ্রাহকের সকল তথ্য অপারেটররা গোপন রাখবেন। এ কারণে বিটিআরসির অনুমোদন ছাড়া এসব তথ্য এজেন্ট বা তৃতীয় কোনো পক্ষকে জানাতে পারবে না কোনো অপারেটর।

গ্রামীণফোনের আবেদনে বলা হয়েছে, পোস্ট পেইড গ্রাহকের কাছে তাদের বকেয়ার পরিমাণ একশ কোটি টাকার মতো। এ টাকা আদায়ে তৃতীয় একটি পক্ষের সহায়তা নেওয়া প্রয়োজন।

আবেদনে বলা হয়, টাকা আদায় করতে গিয়ে এজেন্টের সঙ্গে তথ্য গোপন রাখার চুক্তি করা হবে। এজেন্টের মাধ্যমে যাতে এসব অন্য কারও কাছে চলে না যায় তা নিশ্চিত করা হবে।

সূত্র জানিয়েছে, গ্রাহকের ব্যক্তিগত তথ্যের ভিত্তিতে তার সঙ্গে যোগাযোগ করে অর্থ আদায়ের চেষ্টা চালাবে এজেন্ট। প্রয়োজনে তার বিষয়ে তথ্য পেতে তার কলসম্পর্কিত তথ্য ঘাটবে এবং এফএনএফ নম্বর থেকেও তথ্য পেতে পারেন তারা।

এ ক্ষেত্রে গ্রাহকের সঙ্গে সরাসরি যোগাযোগ ছাড়াও ই-মেইল, এসএমএসের মাধ্যমেও যোগাযোগ করতে পারবেন তারা।

এদিকে পুরনো পোস্ট পেইড গ্রাহকের কাছে অর্থ বকেয়া থাকা কথা জানালেও ওই সব গ্রাহকের জামানতের অর্থের বিষয়টি স্পষ্ট করেনি অপারেটরটি। এ বিষয়ে কথাও বলতে চাননি কোনো কর্মকর্তা।

Related posts

*

*

Top