মোবাইল ফোনে লেনদেনে খবরদারি থেকে বিটিআরসির পিছুটান

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল ফোনে আর্থিক লেনদেনের সীমা বেঁধে দেওয়ার দু’দিনের মধ্যে পিছু হটল টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

আর্থিক লেনদেন নিয়ন্ত্রণের একক ক্ষমতা বাংলাদেশ ব্যাংকের হলেও মাঝখানে এক দিনের জন্য ঢুকে পড়েছিল বিটিআরসি। গত মঙ্গলবার এ সংক্রান্ত একটি নির্দেশনা জারি করেছিল সংস্থাটি। তবে নানা সমালোচনার পর বৃহস্পতিবার নির্দেশনাটি তারা প্রত্যাহার করে নেয়।

mobile operator_telecom_companies_techshohor

বিটিআরসির এ নির্দেশনার পর বৃহস্পতিবার সকালে বাংলাদেশ ব্যাংক গভর্নর ড. আতিউর রহমান বিটিআরসি চেয়্যারম্যান সুনীল কান্তি বোসকে ফোন করেন। তিনি কমিশন চেয়ারম্যানকে এ ধরনের নির্দেশনা দেওয়ার এখতিয়ার নেই বলে জানান।

এরপরই কমিশন নিদের্শনা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। বিটিআরসির সিস্টেমস অ্যান্ড সার্ভিস বিভাগের এক কর্মকর্তা এ খবর নিশ্চিত করেছেন। তিনি বলেন, সমালোচনার কারণে বিটিআরসির চেয়ারম্যানের নির্দেশে নির্দেশনা সরিয়ে নেওয়া হয়েছে। পরে এ বিষয়ে করণীয় ঠিক করা হবে।

বিটিআরসির নির্দেশনায় বলা হয়েছিল,   মোবাইল ফোন অপারেটররা আর্থিক লেনদেনের জন্য ইচ্ছে খুশি ফি বা চার্জ আরোপ করতে পারবে না।

এ নির্দেশনা জারির পর সংশ্লিষ্টরা এ নিয়ে আপত্তি জানায়। দেখা গেল নির্দেশনা জারি করতে গিয়ে বিটিআরসি নিজেদের এখতিয়ারের বাইরে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। পরে সমালোচনার পর আগের অবস্থান থেকে সরে আসল টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ফাইন্যান্সিয়াল সার্ভিস সংক্রান্ত নীতিমালায় বলা আছে এক দিনে একজন ২৫ হাজার টাকার বেশি লেনদেন করা যাবে না। কিন্তু বিটিআরসির নির্দেশনায় লাখ টাকার ওপরেও লেনদেনের সুযোগ রাখা হয়।

তা ছাড়া বর্তমানে লেনদেনের জন্যে ১ দশমিক ৮৫ শতাংশ সার্ভিস চার্জের উল্লেখ থাকলেও বিটিআরসি সেটি দুই শতাংশ পর্যন্ত রাখার বিধান করে।

এ দুই সমালোচনার কারণে বিটিআরসি তাদের অবস্থান থেকে সরে আসে বলেও জানান বিটিআরসির ওই কর্মকর্তা।

বিটিআরসির নির্দেশনায় তিনটি ক্ষেত্র বাদে আর কোথাও কোনো চার্জও নিতে পারবে না বলেও উল্লেখ ছিল।

র্নিদেশনায় বলা হয়েছে, মোবাইল ফোন অপারেটরদের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে মাত্র ক্যাশ-ইন ও ক্যাশ আউট, ব্যক্তি টু ব্যক্তি (পি২পি) লেনদন এবং যে কোনো ধরণের বিল প্রদান হলেই কেবল মাত্র চার্জ আরোপ করা যাবে।

বিটিআরসি নির্দেশনায় উল্লেখ করেছিল, কমিশনের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে মোবাইল ফোন অপারেটররা আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে বিভিন্ন খাতে বিভিন্ন রকম চার্জ আরোপ করছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে তারা অতিরিক্ত চার্জও আরোপ করছে। এ জন্য নির্দেশনা জারি করা হয়েছে।

Related posts

*

*

Top