মোবাইল ফোনে লেনদেনের চার্জ বেঁধে দিল বিটিআরসি

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এখন থেকে মোবাইল ফোন অপারেটররা আর্থিক লেনদেনের সেবার জন্যে ইচ্ছে খুশি ফি বা চার্জ আরোপ করতে পারবে না। এ ছাড়া তিনটি ক্ষেত্র বাদে আর কোথাও তারা কোনো চার্জও নিতে পারবে না।

চলতি সপ্তাহে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি) এ সংক্রান্ত একটি র্নিদেশনা জারি করে তা পালন করতে কড়াকড়ি আরোপ করেছে।

mobile operatior_telecom_companies_techshohor

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, মোবাইল ফোন অপারেটরদের নেটওয়ার্ক ব্যবহার করে ক্যাশ-ইন ও ক্যাশ আউট, ব্যক্তি টু ব্যক্তি (পি২পি) লেনদেন এবং যে কোনো ধরনের বিল প্রদান করা হলেই কেবলমাত্র চার্জ আরোপ করা যাবে। আবার চার্জের ক্ষেত্রে কয়েকটি স্লাব করে দিয়েছে বিটিআরসি।

এতে আরও বলা হয়েছে, কমিশনের পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে- মোবাইল ফোন অপারেটররা আর্থিক লেনদেনের ক্ষেত্রে বিভিন্ন খাতে বিভিন্ন রকম চার্জ নিচ্ছে। কোনো কোনো ক্ষেত্রে আবার তারা অতিরিক্ত চার্জও আরোপ করছে।

বিটিআরসি চার্জের ক্ষেত্রে এ ভিন্নতা দূর করে আরও এ সেবাকে আরও বিস্তৃত করতে আর্থিক লেনদেনের ফি ও চার্জ নির্ধারণের সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

র্নিদেশনা অনুসারে ক্যাশ ইন ও ক্যাশ আউটের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ দুই শতাংশ চার্জ আরোপের সুযোগ রাখা হয়েছে। দশ হাজার টাকার নীচে লেনদেনের ক্ষেত্রে এ বিধান করা হয়েছে। তবে লেনদেনের অংক আরও বড় হলে তখন ফি বা চার্জের হার কমতে থাকবে।

এক লাখ টাকার উর্ধ্বে লেনদেনের ক্ষেত্রে সর্বোচ্চ চার্জ ধরা হয়েছে এক শতাংশ। তবে এর কমেও অপারেটররা সার্ভিস অফার করতে পারবে।

পি২পি সার্ভিসের ক্ষেত্রে ৫০০ টাকার নীচে পর্যন্ত দুই টাকা এবং তার ওপরে হলে ৫ টাকা পর্যন্ত চার্জ আরোপ করা যাবে।

যে কোনো ইউটিলিটি বিল দেওয়া বা ব্যাংকের এসডিপিএস জমা করতেও ১০ হাজার টাকার নীচে হলে সর্বোচ্চ দুই শতাংশ এবং এর বেশি হলে কয়েক ধাপে কমবে এ চার্জ।

তবে বেতন, রেমিটেন্স আনা, অ্যাকাউন্ট সম্পর্কিত তথ্য জানা বা রেজিস্টেশন করাসহ আরও কয়েকটি বিষয়ে কোনো চার্জ আরোপ করা যাবে না।

Related posts

*

*

Top