ইন্টারনেট মূল্য নির্ধারণের পক্ষ নেওয়ায় বেকায়দায় এয়ারটেল

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল ফোনে ইন্টারনেট ব্যবহারের মূল্য নির্ধারণে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের (বিটিআরসি) উদ্যোগকে স্বাগত জানিয়ে অন্যদের চক্ষুশুল হয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটর এয়ারটেল। বুধবার টেলিকম রিপোটার্স নেটওয়ার্ক, বাংলাদেশ (টিআএনবি) এর সঙ্গে আয়োজিত এক কর্মশালায় নিজেদের এমন অভিমতের কথা জানিয়েছেন এয়ারটেল কর্তৃপক্ষ।

আর বৃহস্পতিবার মোবাইল ফোন অপারেটর অ্যামটব এবং অন্যান্য অপারেটররা এয়ারটেলের সিইও ক্রিস টবিটকে এ বিষয়ে তাদের অসন্তোশের কথা জানান। এমনকি এ বিষয়ে গণমাধ্যমে কথা বলার ক্ষেত্রে সতর্ক থাকার অনুরোধ করেন তারা। এয়ারটেলের একাধিক সূত্র এই খবর নিশ্চিত করেছে।

Airtel-BTRC-TechShohor

আগে থেকেই শীর্ষ অপারেটর গ্রামীণফোন, বাংলালিংক এবং রবি ইন্টারনেটের মূল্য নির্ধারণকে নিয়ন্ত্রণের সঙ্গে তুলনা করছেন।
তবে এয়ারটেলের যুক্তি মূল্য নির্ধারিত হলে দফায় দফায় আর বিটিআরসি’র কাছে তাদেরকে প্যাকেজ অনুমোদনের জন্যে যেতে হবে না। বরং নির্ধারিত মূল্যের মধ্যেই এ বিষয়ে নিজেদের পরিকল্পনা সাজাতে পারবেন তারা।

এয়ারটেল বলছে, এয়ারটেল যেহেতু সার্ভিস লিডার হিসেবে বাজারে থাকতে চায় তাই গ্রাহক সন্তুষ্ঠিই তাদের জন্যে শেষ কথা। এর আগে বিটিআরসি ফোন কল রেটের উচ্চ এবং নিন্ম সীমা বেঁধে দিলেও এই প্রথম ইন্টারনেট ব্যান্ডউইথের মূল্য বেঁধে দেওয়ার উদ্যোগ নেয়।

তবে বিটিআরসি’র এই উদ্যোগে অসন্তুষ্ঠি জানিয়েছেন গ্রামীণফোন এবং বাংলালিংকের কয়েকজন কর্মকর্তা। তারা বলছেন, মোবাইল ইন্টারনেটের বাজার এখনো ততোটা পোক্ত হয়নি। সুতরাং আরো খানিকটা সময় দেওয়া উচিৎ।

এর আগে তথ্য প্রযুক্তি বিষয়ক কয়েকটি সংগঠন মোবাইল ইন্টারনেটের মূল্য কমানোর বিষয়ে আন্দোলন করলেও মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো নামকাওয়াস্তে কিছু মূল্য কমিয়েছে। সে কারণে বিটিআরসি বাধ্য হয়ে উদ্যোগ নিয়েছে বলে জানিয়েছেন বেশ কয়েক জন কর্মকর্তা।

সম্প্রতি বিটিআরসি এ বিষয়ে একটি বৈঠক করে। আগামী সপ্তাহে আরেকটি বৈঠকের পর মূল্য নির্ধারণের বিষয়টি চূড়ান্ত হবে। সূত্র জানিয়েছে, বিটিআরসি প্রতি ১০০ এমবি ব্যান্ডউইথ ২০ টাকার নীচে নামিয়ে আনার পক্ষে। তবে আলোচনার পরেই এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত হবে বলে তারা ঠিক করেছেন।

একই ইন্টারনেটের অসংখ্য প্যাকেজের বদলে নূন্যতম কিছু প্যাকেজ করার কথা বলবে রেগুলেটর। এর আগে ২০০৮ সালে বিটিআরসি প্রথম কল রেট সর্বনিন্ম ২৫ পয়সা এবং সর্বোচ্চ দুই টাকা বেঁধে দেয়। ২০১১ সালে স্থানীয় এসএমএসের মূল্য বেধে দেওয়া হয় সর্বোচ্চ ৫০ পয়সা। আর আন্তর্জাতিক এসএমএস সর্বোচ্চ দুই টাকা। গত বছর বিটিআরসি সকল প্যাকেজে বাধ্যতামূলক ১০ সেকেন্ডের পালস চালু করে।

Related posts

*

*

Top