‘১৯৭১’ শর্ট কোড বরাদ্দে নিয়ম ভাঙ্গল বিটিআরসি

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলা ও বাঙালীর ইতিহাসের সবচেয়ে মাইলফলক বছর ‘১৯৭১’। মুক্তিযুদ্ধের এ বছর বাঙালীর হাজারো বছরের ইতিহাস ও ঐতিহ্যের মধ্যে স্মরণীয়তম। এই সালের চার অংকের ভিত্তিতে সম্প্রতি একটি শর্ট কোড বরাদ্দ দিয়েছে বিটিআরসি। তবে এ ক্ষেত্রে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটি নিজের তৈরি নীতিমালা মানেনি।

ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশনকে (সিআরআই) ‘১৯৭১’ শর্ট কোড বরাদ্দ দিয়েছে কমিশন। এ কোড ব্যবহার করে সিআরআই এসএমএস সেবা প্রদান বিষয়ক কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারবে বলে বিটিআরসির ১৬১তম কমিশন বৈঠকের কার্যবিবরণীতে সিদ্ধান্ত হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে।

Bangladesh_Flag-TechShohor

বিটিআরসির ওই বৈঠকে এ বরাদ্দ অনুমোদন করা হয়। যদিও ২০১০ সালের শর্ট কোড বিষয়ক প্রণীত নীতিমালা অনুসারে প্রতিটি কোড হবে নূন্যতম পাঁচ অংকের। কিন্তু সম্পতি সিআরআই শর্ট কোড বিষয়ে আবেদন করলে বিটিআরসি আগের অবস্থা থেকে সরে আসে।

এর আগে বিটিআরসির নীতিমালায় ১৯*** সিরিজের শর্ট কোড সংরক্ষিত রেখেছিল বিটিআরসি। আর বর্তমানে কেবল ১৬৩** সিরিজের শর্ট কোডের বরাদ্দ দেওয়া হচ্ছে। তবে ১৬১তম কমিশন বৈঠকে নতুন নীতিমালা তৈরি করা হয়।

বিটিআরসির কার্যবিবরণী থেকে জানা যায়, বৈঠকে কমিশন নতুন নীতিমালায় ১৯৭১ থেকে ১৯৭৯ পর্যন্ত সিরিজের আটটি শর্ট কোডকে গবেষণা প্রতিষ্ঠানের জন্যে সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত নেয়।

এ বিষয়ে বিটিআরসির কোনো কর্মকর্তা আনুষ্ঠানিকভাবে মন্তব্য করতে রাজি হননি। তবে একাধিক কর্মকর্তা বলেছেন, আওয়ামী লীগের গবেষণা প্রতিষ্ঠান সিআরআই একটি শর্ট কোড চাইবে, আর বিটিআরসি তা দিতে পারবে না- সেটা হয় কিভাবে? সামান্য নীতিমালা পরিবর্তন তো হতেই পারে।

বিটিআরসির অপর একটি সূত্র জানিয়েছে, শর্ট কোড নীতিমালা প্রণয়নের আগে মোবাইল ফোন অপারেটরদের কিছু কোড চার ডিজিটের রয়ে গেছে। সেগুলোকে পাঁচ ডিজিটে আনার প্রক্রিয়া চলছে।

এর বাইরে বিশেষ সেবা প্রদানকারী সংস্থা যেমন পুলিশ, র্যা ব, ফায়ারসার্ভিস, অ্যাম্বুলেন্সকে আগেই চার ডিজিটের শর্ট কোড বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

Related posts

*

*

Top