কলিং কার্ড চালুর ব্যর্থ চেষ্টা মীর টেলিকমের

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশের অন্যতম সেরা বেসরকারি আন্তর্জাতিক গেটওয়ে (আইজিডব্লিউ) অপারেটর মীর টেলিকম আন্তর্জাতিক কলিং কার্ড চালু করার চেষ্টা করেও শেষ পর্যন্ত ব্যর্থ হয়ে এ দফায় ক্ষান্ত দিয়েছে।

কোম্পানির প্রধান মীর নাসির হোসেন মনে করছেন বাংলাদেশের টেলিকম বাজার এখনও কলিং কার্ডের উপযুক্ত হয়নি। সে কারণে এখই আর এ ব্যবসার দিকে এগুতে চাচ্ছেন না তিনি।

Mir-telecom_techshohor

দেশের ব্যবসায়ীদের শীর্ষ সংগঠন এফবিসিসিআইর সাবেক সভাপতি নাসির হোসেন বলেন, অনেক দেশেই কলিং কার্ডের মাধ্যমে টেলিকম খাতের অনেক সেবা দেওয়া হয়। কিন্তু আমাদের দেশে এখনও এ ধরনের কার্ড সেবার বাজার তৈরি হয়নি। তাই এ বিষয়ে যথেষ্ট আগ্রহ থাকলেও আমাদের পিছিয়ে যেতে হচ্ছে।

জানা গেছে, কলিং কার্ড চালু করার ক্ষেত্রে মাঠ পর্যায়ে বেশ কিছু জরিপও করেছিল মীর টেলিকম। কিন্তু যথেষ্ট ভালো সাড়া পায়নি তারা। তা ছাড়া দেশের টেলিযোগাযোগ নীতিমালাও একটি আইজিডব্লিউ কলিং কার্ড ছাড়ার জন্যে সহযোগী নয় বলে মনে করছেন মীর কর্তৃপক্ষ।

নাসির হোসেন বলেন, দেশের টেলিযোগাযোগ নীতিমালা অনুসারে কেবল মোবাইল বা ল্যান্ডফোন অপারেটররা ভয়েস বা এ সংক্রান্ত সেবা দিতে পারে। তারপরেও কারো কাছ থেকে মিনিট কিনে আমরা সেটি বিক্রি করতে পারতাম। কিন্তু এটি যথেষ্ট কস্ট ইফেক্টিভ হবে না বলেই আমাদের মনে হচ্ছে। সুতরাং এখন আর এগুতে পারছি না।

উন্নত দেশগুলোতে সাধারণত একজন গ্রাহক বাজার থেকে যে কোনো কলিং কার্ড কিনে সেটি ব্যবহার করে ফোন করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে মোবাইল বা ল্যান্ডফোনের সেবা লাইসেন্স না থাকলেও একজন কলিং কার্ডের ব্যবসা করতে পারেন।

ওই কলিং কার্ডের বাজারজাত করা বা অন্যান্য সকল দায়িত্ব তখন নির্দিষ্ট ওই কোম্পানির থাকে।

মীর টেলিকম আইজিডব্লিউ অপারেটর হওয়ায় এমনিতে তারা আন্তর্জাতিক টেলিফোন কল আদান-প্রদান করে থাকে। সেক্ষেত্রে কলিং কার্ডের ব্যবসা চালু করতে পারলে সেটি তাদেরকে জন্যে আরো সহায়ক হতো।

২০০৮ সালে নিলামের মাধ্যমে আইজিডব্লিউর লাইসেন্স পায় মীর টেলিকম।

Related posts

*

*

Top