আবারও বিটিআরসি চেয়ারম্যানের বিদেশ সফরে পিএম অফিসের না

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মাত্র দুই মাসের মধ্যে দু’বার বিটিআরসির চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোসের বিদেশ সফরের ফাইল আটকে দিল প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়।

গত ৯ ডিসেম্বর জেনেভাতে একটি সম্মেলনে যাওয়ার জন্যে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে ফাইল পাঠিয়েছিল বিটিআরসি। কিন্তু প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় অনুমোদন দেয়নি। এর আগে ১৩-১৮ অক্টোবর দক্ষিণ কোরিয়া সফরে যেতে চেয়েছিলেন বিটিআরসি চেয়ারম্যান। সে সময়ও তা ফেরত পাঠায় পিএম কার্যালয়।

BTRC Chairman_ Tech Shohor

চলতি বছরে বিটিআরসি চেয়ারম্যান ফেব্রুয়ারিতে বার্সেলোনা,  এপ্রিলে ভিয়েতনাম,  জুলাইয়ে পোল্যান্ড এবং অস্ট্রিয়া, সেপ্টেম্বরে যুক্তরাষ্ট্র এবং অক্টোবরে নাইজেরিয়া সফর করেন। এর মধ্যে তিনি দুবাই সফরও করেন। নাইজেরিয়া সফর থেকে ফিরে পরদিনই ১৩ অক্টোবর তিনি দক্ষিণ কোরিয়া যেতে চেয়েছিলেন।

জেনেভায় সুনীল কান্তি বোসের বদলে বিটিআরসি থেকে গেছেন কমিশনার এটিএম মনিরুল আলম এবং একজন সহকারি পরিচালক।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, অক্টোবরের আগে এক বছরে নয় বার বিভিন্ন দেশ সফর করেন সুনীল কান্তি। অক্টোবরে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় ফাইল পাঠানোর পর বেশ খানিকটা দমে গিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু দু’মাস পর আরেকটি ফাইল পাঠালেও অনুমোদন পাননি।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, গত ১১ বছরে অক্টোবরেই প্রথম বিটিআরসির কোনো চেয়ারম্যানের ফাইল আটকে দিল সরকার। দু’মাস পর আবার ঘটল একই ঘটনা। সব মিলে এটি চেয়ারম্যান পদের জন্যে অসম্মানের বলেও মনে করেন বিটিআরসির অনেক কর্মকর্তা।

চেয়ারম্যানের বিদেশ সফর বাতিল করায় বিটিআরসির বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের অনেকেই খুশি হয়েছেন। তাদের মতে, “একক সিদ্ধান্ত নেওয়ার ক্ষমতা বলে কেবল তিনি একাই সব সফরে যাবেন সেটা কিভাবে হয়-প্রশ্ন তাদের। তা ছাড়া কমিশনের স্থায়ী কর্মকর্তাদের বারবার বাদ দিয়ে চুক্তি ভিত্তিক নিয়োগপ্রাপ্তদেরই তিনি বিদেশে নিয়ে যেতেন। এতে বিভিন্ন সময় ক্ষোভও প্রকাশ করেছেন বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান হওয়ার আগে টেলিযোগাযোগ সচিব থাকাকালেও তার বিদেশ প্রীতির খবর ছিল। সচিদের বছরে চার বারের বেশি বিদেশ না যাওয়ার বাধ্যবাধকতা থাকলেও এক বছরে সাত-আটবারের বেশি বিদেশ সফর করেছেন তিনি। আবার মন্ত্রী-সচিব একই সঙ্গে দেশের বাইরে না থাকার বাধ্যবাধকতাও তাকে আটকে রাখতে পারেনি।

Related posts

*

*

Top