টেলিটক থ্রিজির পরীক্ষামূলক তকমা আরও ছয় মাস

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বেসরকারি মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো লাইসেন্স নেওয়ার কয়েক মাসের মধ্যে বাণিজ্যিকভাবে থ্রিজি সেবা দেওয়া শুরু করেছে। অথচ প্রায় দেড় বছর পেরিয়ে গেলেও সরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক এখনও পরীক্ষামূলক তকমা লাগিয়ে রেখেছে। সম্প্রতি আরও এক দফা সময় বাড়িয়েছে কোম্পানিটি।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসির সম্প্রতি অনুষ্ঠিত কমিশন বৈঠকে টেলিটকের থ্রিজি সেবা পরীক্ষামূলক রাখার মেয়াদ বৃদ্ধির সিদ্ধান্ত অনুমোদন করা হয়েছে।  চতুর্থবারের মতো এ মেয়াদ বাড়িয়ে আগামী বছরের ৪ এপ্রিল পর্যন্ত করা হয়েছে বলে জানা গেছে।

Teletalk_3G_Techshohor

এর আগে ২০১২ সালের ১০ এপ্রিল ছয় মাসের জন্যে ১৯৬০-১৯৭০ এবং ২১৫০-২১৬০ মেগাহার্ডজ স্পেকট্রাম পরীক্ষামূলক সেবার অনুমোদন দেয় বিটিআরসি। একই বছর ১৪ অক্টোবর থ্রিজির পরীক্ষামূলক বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করে টেলিটক।  কিন্তু এর আগেই ১০ অক্টোবর ছয় মাসের অনুমোদিত সময় পেরিয়ে যায়। পরে আরও দু’বার ছয় মাস করে স্পেকট্রাম বরাদ্দের মেয়াদ বাড়ানো হয়।

সংশ্লিষ্টদের মতে, সরকারকে স্পেকট্রাম বরাদ্দের অর্থ পরিশোধ করতে না পারায় সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে এখনও পরীক্ষামূলক রাখতে বাধ্য হচ্ছে টেলিটক।

এদিকে চলতি বছরের ৮ সেপ্টেম্বর বেসরকারি অপারেটরগুলোর জন্য থ্রিজি স্পেকট্রাম বরাদ্দের নিলাম অনুষ্ঠিত হয়। ইতোমধ্যে নিলামে বিজয়ী চার অপারেটর তাদের লাইসেন্স ফিসহ স্পেকট্রাম ফির কিছুটা পরিশোধ করে বাণিজ্যিক কার্যক্রম শুরু করেছে। অথচ প্রায় দেড় বছর আগে লাইসেন্স পেলেও টেলিটক এখনও পরীক্ষামূলক রয়ে গেছে।

এ বিষয়ে টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মুজিবুর রহমান বলেন, তার কোম্পানি ইতোমধ্যে লাইসেন্স ফির সাড়ে দশ কোটি টাকা পরিশোধ করেছে। তবে স্টেকট্রাম ফির বিষয়ে সরকারের সিদ্ধান্তের জন্যে অপেক্ষা রয়েছে।

২১শ’ ব্যান্ডের ১০ মেগাহার্ডজ স্টেকট্রামের জন্যে টেলিটকের পরিশোধ করার কথা ১ হাজার ৬৩২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। সঙ্গে ৫ শতাংশ ভ্যাট।

এ বিষয়ে বেসরকারি একটি অপারেটরের ঊধ্বর্তন কর্মকর্তা বলেন, বিটিআরসির দায়িত্ব সকলের মধ্যে সাম্য নিয়ে আসা। কিন্তু তারা সেটি সঠিকভাবে করতে পারছে বলে মনে হয় না। এতে প্রতিযোগিতা নষ্ট হবে।

Related posts

*

*

Top