ওয়ারিদের আরও একটি কোম্পানি কিনল এয়ারটেল

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশের মতো কঙ্গোতেও ওয়ারিদের একটি মোবাইল ফোন অপারেশন কিনেছে এয়ারটেল। তবে বরাবরের মতো এবারও কেনা বেচার আর্থিক লেনদেনের কোনো তথ্য জানানো হয়নি বলে বিভিন্ন বার্তা সংস্থার খবরে প্রকাশ করা হয়েছে।

চলতি মাসের শুরুর দিকে ওয়ারিদের মালিকানাধীন কঙ্গোর দ্বিতীয় সেরা মোবাইল অপারেটর কিনে নেয় ভারতীয় মোবাইল কোম্পানি এয়ারটেল। এর আগে উগান্ডাতেও এয়ারটেল ওয়ারিদের আরও একটি অপারেশন কেনে। আর বাংলাদেশে দুই ধাপে ওয়ারিদের মালিকানা গ্রহণ করে এয়ারটেল। ওই সময় এ নিয়ে ব্যাপক বিতর্ক তৈরি হয়।

Warid-Airtel_techshohor

বাংলাদেশে প্রথম ধাপে শেয়ার কেনার সময় ওয়ারিদের ৭০ শতাংশ শেয়ারের মূল্য দেখানো হয় মাত্র ৩৮ লাখ টাকা। ২০১০ সালের ওই লেনদেনের ক্ষেত্রে প্রায় ১২০ কোটি টাকার কর ফাঁকি দিতেও শেয়ারমূল্য কম দেখানো হয় বলে অভিযোগ রয়েছে।

চলতি বছর ওয়ারিদের বাকি ৩০ শতাংশও কিনে নিয়েছে ভারতীয় কোম্পানিটি। এখানেও মূল্য সম্পর্কে পরিস্কারভাবে কিছুই উল্লেখ করেনি তারা। তবে চুক্তিপত্রে বিনিময় মূল্য ৮৫ মিলিয়ন ডলার উল্লেখ করা আছে, যার পুরোটাই বাংলাদেশের বাইরে লেনদেন হয়েছে। এ দফায় অবশ্য কেনা বেচার অর্থের ওপর কোনো কর নেই। এ কারণে চুক্তিপত্রে এ মূল্য উল্লেখ করা হয়েছে বলে মনে করেন বিটিআরসির বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তারা। গত ২ মে ৩০ শতাংশ শেয়ার হস্তান্তরের বিষয়ে দুই পক্ষের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়।

সংশ্লিষ্টরা জানিয়েছেন, তখন কোনো শেয়ার বিক্রি হলে তার সাড়ে ৫ শতাংশ বিটিআরসিকে দেওয়ার নিয়ম ছিল। সে কারণে কৌশলে মূল্য কম দেখানো হয় বলে মনে করেন অনেকে। কিন্তু বর্তমানে যেহেতু শেয়ার বিক্রির মূল্যের ওপর কোনো ফি বিটিআরসিকে দিতে হয় না সে কারণে এ দফায় এয়ারটেল তাদের কেনা ৩০ শতাংশ স্টেকের প্রকৃত মূল্য দেখিয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে।

বিভিন্ন বার্তা সংস্থার প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কঙ্গোর অপারেশনের মূল্য কম করে হলেও ৭০ থেকে ৮০ মিলিয়ন ডলার। কিন্তু এ বিষয়ে কিছুই জানায়নি উভয় পক্ষ।

বর্তমানে ভারতী এয়ারটেলের এশিয়া ও আফ্রিকা জুড়ে ২১ দেশে কার্যক্রম রয়েছে। প্রায় ত্রিশ কোটি গ্রাহক নিয়ে বর্তমানে বিশ্বের টেলিযোগাযোগ প্রতিষ্ঠানগুলোর প্রথম চারটির মধ্যে অবস্থান এয়ারটেলের।

Related posts

*

*

Top