Maintance

‘দেশে সংযোজিত’ ওকে মোবাইল যাত্রা করছে বিকালে

প্রকাশঃ ১২:২৭ অপরাহ্ন, জুলাই ১৭, ২০১৪ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১২:৩৯ অপরাহ্ন, জুলাই ১৭, ২০১৪

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চলতি বছরের শেষ নাগাদ দেশে প্রথমবারের মতো সংযোজিত হতে যাচ্ছে স্মার্ট মোবাইল হ্যান্ডসেট। সেই সঙ্গে কম দামের ফিচার ফোনও সংযোজিত হবে। নতুন এ ব্র্যান্ডের নাম হবে ওকে মোবাইল

তবে এখন সীমিত পরিসরে এ হ্যান্ডসেট সংযোজনের কিছু কাজ হচ্ছে। ওকে মোবাইল নামের দেশি ব্র্যান্ডটি যাত্রা শুরু করছে বৃহস্পতিবার। রাজধানীর হোটেল সোনারগাঁওয়ে এক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ ব্র্যান্ডের বাজারজাত শুরু করা হবে।

প্রাথমিকভাবে চীন থেকে একটি হ্যান্ডসেটের বিভিন্ন যন্ত্রাংশ এনে তা সংযোজন করে ৩০ হাজার হ্যান্ডসেট বাজারে ছাড়া হচ্ছে বলে জানিয়েছে ওকে মোবাইল কর্তৃপক্ষ। বর্তমানে টেলিফোন শিল্প সংস্থায় (টেশিস) মোবাইল হ্যান্ডসেট সংযোজনের প্ল্যান্ট বসানোর কাজ করছে দেশে টেলিকম খাতের নতুন এ কোম্পানি।

আরও পড়ুন : দেশে প্রথম স্মার্টফোন বানাচ্ছে ইন্ডিগো

ok mobile_techshohor

বৃহস্পতিবার মূলত দুটি মডেলের সেট বাজারে ছাড়া হবে। একটির মূল্য ১২’শ টাকা এবং অপরটি চার হাজার টাকার থ্রিজি অ্যানাবল সেট।

ওকে মোবাইলের চেয়ারম্যান খন্দকার জামিল উদ্দিন জানান, প্রথমে দুটি হ্যান্ডসেট বাজারে ছাড়া হলেও ইতিমধ্যে পাঁচটি মডেলের সেট তৈরি করা হচ্ছে। বাকি সেটগুলো বাজারজাত করতে বিটিআরসির অনুমতি না পাওয়ায় কেবল দুটি মডেল দিয়েই বাজারে আসছেন তারা।

খন্দকার জামিল জানান, মূলত ঈদের আগে বাজারে ব্র্যান্ডটিকে পরিচিতি করাতে প্ল্যান্ট পুরোপুরি চালু না হলেও বাজারজাত শুরু করা হচ্ছে।

প্ল্যান্ট স্থাপনের জন্য টেশিসের কাছ থেকে জায়গা এবং বিদ্যমান অবকাঠামো ভাড়া নিয়েছে ইন্ডিগো গ্রুপের মালিকানাধীন ওকে মোবাইল কর্তৃপক্ষ। কোম্পানিটি চীন থেকে প্রযুক্তি আনছে।

সংশ্লিষ্টদের দাবি, এটিই হবে ‘মেড ইন বাংলাদেশ’ এর প্রথম মোবাইল হ্যান্ডসেট। এর আগে আরও কয়েকটি কোম্পানি হ্যান্ডসেট সংযোজনের উদ্যোগ নিলেও শেষ পর্যন্ত তা সফল হয়নি।

বর্তমানে চীনের ছয় জন প্রকৌশলী এ বিষয়ে টঙ্গিতে টেশিস ফ্যাক্টরিতে কাজ করছেন বলে জানিয়েছেন ওকে মোবাইলের শীর্ষ কর্মকর্তারা।

সর্বনিন্ম মূল্য ১২’শ টাকা থেকে শুরু করে ৩০ হাজার টাকা মূল্যের হ্যান্ডসেট দেশে সংযোজন করবে ওকে মোবাইল। এগুলোর মধ্যে ৭ হাজার, ১৪ হাজার এবং ২২ হাজার টাকা মূল্যের কয়েকটি মডেলের হ্যান্ডসেটও এখানে সংযোজিত হবে বলে জানিয়েছেন উদ্যোক্তরা।

এসব সেটে ২ থেকে ১২ মেগাপিকজেল পর্যন্ত ক্ষমতার ক্যামেরা থাকবে। তাছাড়া প্রতিটি হ্যান্ডসেটই ডুয়েল সিমের হবে।

ইতিমধ্যে ওকে ব্র্যান্ডের উন্নত মানের কয়েকটি হ্যান্ডসেট চীন থেকে সংযোজন করিয়ে আনা হয়েছে। যেগুলো পরীক্ষা-নিরিক্ষা এবং অনুমোদনের জন্যে সরকারের বিভিন্ন পর্যায়ে দেওয়া হয়েছে।

এর আগে কয়েকবার হ্যান্ডসেট সংযোজনের জন্যে দরপত্র আহবান করেও টেশিস ভালো সাড়া পায়নি। অবশেষে চতুর্থবারের মতো দরপত্র আহবান করলে কাজ পায় ওকে মোবাইল।

টেশিসের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনুল মাহমুদ খান জানান, প্রতি বর্গফুট ছয় টাকা হিসেবে ইন্ডিগোকে ১৪ হাজার ৯২৩ বর্গফুট জায়গা ভাড়া দেওয়া হয়েছে। একই সঙ্গে চুক্তি অনুসারে লাভের ৫ শতাংশও পাবে টেশিস।

এ বছরের ২৭ ফেব্রুয়ারি দুই পক্ষের মধ্যে এ বিষয়ে চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। চুক্তি অনুসারে ছয় মাসের মধ্যে হ্যান্ডসেট সংযোজনে যেতে হবে কোম্পানিটিকে।

এর আগে দোয়েল ল্যাপটপের মাধ্যমে বেশ সাড়া ফেলেছিল টেশিস। কিন্তু অল্প দিনের মধ্যেই সরকারি এ প্রতিষ্ঠানের আশা ভঙ্গ হয়। বর্তমানে ল্যাপটপ সংযোজন বন্ধ রয়েছে বলেও জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে ওকে মোবাইল আশা করছে প্রথম বছরে মাসে ১ লাখ হ্যান্ডসেট সংযোজন করতে পারবে। আর দুই বছরের মধ্যে দেশের ১০ থেকে ১২ শতাংশ হ্যান্ডসেটের বাজার ধরতে পারবে বলেও দাবি করেন উদ্যোক্তারা। এটা করা সম্ভব হলে দুই বছরের মধ্যেই কোম্পানিটি লাভের মুখ দেখতে পারবে বলে মনে করেন ওকে কর্তৃপক্ষ।

কোম্পানির চেয়ারম্যান বলেন, শুধু দেশের বাজার নয় বরং এর পর আফ্রিকা, ব্রাজিল, মেক্সিকোসহ দক্ষিণ আমেরিকার আরও কয়েকটি দেশে হ্যান্ডসেট রপ্তানি করাও সম্ভব হবে।

*

*