Maintance

সমঝোতার দায়িত্ব নিল সরকার, অনশন ভাঙলেন এরিকসন কর্মীরা

প্রকাশঃ ১২:১৬ পূর্বাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৭ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ১:০৮ পূর্বাহ্ন, সেপ্টেম্বর ১, ২০১৭

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রায় ৪ দিন পর অনশন ভাঙলেন এরিকসন বাংলাদেশের চাকরিচ্যুতির নোটিশ পাওয়া কর্মীরা। দাবির বিষয়ে সরকারের সমঝোতার আশ্বাসে বৃহস্পতিবার অনশন ভেঙে আন্দোলন কর্মসূচি ১১ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত স্থগিত রাখেন তারা।

বৃহস্পতিবার চাকরিচ্যুত কর্মীদের এবং কোম্পানি কর্তৃপক্ষের প্রতিনিধিদের সঙ্গে বৈঠকে বসেন সরকারের শ্রম পরিদপ্তদের শ্রম পরিচালক আবু হেনা মোস্তাফা কামাল।

বৈঠকে কর্মীদের পক্ষে ছিলেন এরিকসন এমপ্লয়িজ ইউনিয়ন অব বাংলাদেশের সাধারণ সম্পাদক লুৎফর রহমান, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামানসহ চার সদস্যের দল। অন্যদিকে এরিকসন কর্তৃপক্ষ হিসেবে অ্যাক্টিং হেড অব কান্ট্রি ইউনিট আবদুস সালাম ও এইচআর হেড মীর আওয়াল খাদেমুর রহমানসহ তিন সদস্যের একটি দল প্রতিনিধিত্ব করছেন।

লুৎফর রহমান টেকশহরডটকমকে জানান, বৈঠকে উভয় পক্ষের বক্তব্য শুনেছেন শ্রম পরিচালক। এরপর বিস্তারিত বিষয় আনুষ্ঠানিকভাবে লিখিত হিসেবে আবেদন করতে বলেছেন। ১১ সেপ্টেম্বর পরবর্তী বৈঠকের দিন ঠিক করেছেন।

এই সময় পর্যন্ত কর্মসূচি স্থগিত করা হয়েছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ১১ তারিখে সমঝোতা না হলে পুনরায় কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

এর আগে কর্মীদের একটি প্রতিনিধি দল শ্রম প্রতিমন্ত্রী মুজিবুল হক চুন্নুর সঙ্গে উদ্ভুত পরিস্থিতি জানাতে দেখা করেন। প্রতিমন্ত্রী শ্রম পরিচালককে বিষয়টি সমঝোতার নির্দেশনা দেন।

চাকরিচ্যুতির নোটিশ পাওয়া কোম্পানিটির কর্মীরা সোমবার দুপুর হতে গুলশানস্থ এরিকসন বাংলাদেশের কার্যালয়ে এই অনশন করছিলেন। এসব কর্মীরা মোবাইল ফোন অপারেটরসহ অন্যান্য প্রতিষ্ঠানের মতো স্বেচ্ছা অবসর স্কিমসহ চাকরিচ্যুতির প্রাপ্য সুবিধা চান।

এর মধ্যে দীর্ঘ সময় ধরে অনশনে অসুস্থ হয়ে পড়েন অনেক কর্মী।

গত ১৮ আগস্ট বিনা নোটিশে এবং কোনো রকম বাড়তি সুবিধা না দিয়ে অন্তত ৭০ জনকে চাকুরিচ্যুতির নোটিশ দেয় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানটি। সে অনুসারে সেপ্টেম্বরের ১ তারিখ হতে এই কর্মীদের কারও চাকরি আর এরিকসনে থাকছে না।

চাকরিচ্যুতির নোটিশ পাওয়ার পর দাবি আদায়ে কর্মীরা মানববন্ধন, কর্মবিরতিসহ নানা কর্মসূচি করে আসছিলেন।

আল-আমীন দেওয়ান

*

*

Related posts/