টি-২০ বিশ্বকাপে মোবাইল ফোন অপারেটরদের চাঁদা ১৫ কোটি টাকা

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং স্বাধীনতা দিবসে তিন লাখ ব্যক্তির কণ্ঠে জাতীয় সংগীত গাওয়ার গিনেজ রেকর্ডের আয়োজন সফল করতে সরকারকে ১৫ কোটি টাকা চাঁদা দিতে রাজি হয়েছে মোবাইল ফোন অপারেটররা।

এ দুটি অনুষ্ঠান সফল করতে সরকার বেসরকারি কোম্পানি ও প্রতিষ্ঠানের কাছ থেকে একশ কোটি টাকা তহবিল সংগ্রহের উদ্যোগ নিয়েছে।

আগামী ১৬ মার্চ থেকে শুরু হবে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ। যেখানে বাছাই পর্ব মিলেয়ে ২৪টি দল অংশ নেবে।

mobile operator_telecom_companies_techshohor

মোবাইল ফোন অপারেটর ছাড়াও বড় বড় ব্যবসায়ী গ্রুপ, ব্যাংক, বিভিন্ন আর্থিক প্রতিষ্ঠান এবং শিল্প গ্রুপের কাছ থেকেও এক থেকে দেড় কোটি টাকা করে সহায়তা নিচ্ছে সরকার।

রোববার ছয় মোবাইল ফোন অপারেটরের প্রধান নির্বাহীদের (সিইও) ডেকে এ অর্থ সহায়তা দেওয়ার কথা বলেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

পরে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির এক বৈঠকের পর নিজেই এ সহায়তাকে ‘চাঁদা’ হিসেবে উল্লেখ করেন অর্থমন্ত্রী।

রোববার ছয়টি মোবাইল অপারেটরদের প্রধানকে নিয়ে বসেন অর্থমন্ত্রী। কয়েক মিনিটের বৈঠকে কোনো ভনিতা না করেই অর্থমন্ত্রী সরাসরি বিশ্বকাপের জন্যে অর্থ সহায়তার কথা বলেন বলে জানা গেছে।

এ সময় ছয়টি অপারেটরের কাছ থেকে মুহিত ১৫ কোটি টাকা চাইলে সিইওরা একে অপরের মুখ চাওয়া চায়ি করেন। এক পর্যায়ে তাদের একজন মন্ত্রীকে জিজ্ঞেস করেন, ‘ইজ ইট ফিফটিন অর ফিফটি?’

মন্ত্রী দ্বিতীয়বারও একই উত্তর দিলে তারা তাদের ট্যাক্স সংক্রান্ত বিষয় তোলার চেষ্টা করেন। কিন্তু মুহিত কাউকে আর কোনো কথা বলার সুযোগ না দিয়ে বৈঠক শেষ করে দেন।

তবে আগামী ১৪ মার্চের মধ্যে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে অনুদানের চেক দেওয়ার জন্য অনুরোধ করেন মুহিত।

এ অর্থ চাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন বেশ কয়েকটি মোবাইল ফোন অপারেটরের শীর্ষ কর্মকর্তা। তবে এর জন্য তারা কিছু সুবিধাও পাবেন বলেও জানান।

এ সহায়তার জন্য অপারেটররা তাদের প্রচারণায় টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ এবং গিনেজ বুক অব রেকর্ডসের আয়োজনকে ব্যবহার করতে পারবেন। তবে বিশ্বকাপের প্রচারণায় আইসিসি বা বিশ্বকাপের কোনো লোগো তারা ব্যবহার করতে পারবেন না।

তা ছাড়া বেশ কয়েকটি ম্যাচে অপারেটরদেরকে হসপিটালিটি বক্সসহ বেশ কিছু ভিআইপি টিকিট দেওয়া হবে বলে অর্থমন্ত্রনালয় জানিয়েছে।

বৈঠকে টেলিযোগাযোগমন্ত্রী আবদুল লতিফ সিদ্দিকীসহ বিটিআরসির চেয়ারম্যান সুনীল কান্তি বোস উপস্থিত ছিলেন।

এ দিকে ছয়টি মোবাইল ফোন অপারেটরদের মধ্যে ১৫ কোটি টাকার মধ্যে কে কতোটা দেবে তা এখনও ঠিক হয়নি। সোমবার এ বিষয়ে মোবাইল ফোন অপারেটরদের একটি বৈঠক রয়েছে। ওই বৈঠকেই ঠিক হবে কে কত চাঁদা দেবে।

Related posts

*

*

Top