বাংলাদেশে ব্ল্যাকবেরি সার্ভিস বন্ধ হচ্ছে

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নিরাপত্তার কারণে বাংলাদেশে ব্ল্যাকবেরির সার্ভিস বন্ধ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

অত্যন্ত গোপনীয়তার মাধ্যমে ইন্টারনেট সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানটির কার্যক্রম যদিও দিনে দিনে সীমিত হয়ে পড়ছিল, তারপরও জাতীয় নিরাপত্তার কথা বিবেচনা করে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির উচ্চ পর্যায়ের কর্মকর্তারা।

বাংলাদেশে মূলত গ্রামীণফোন এবং এয়ারটেল ব্ল্যাকবেরি সার্ভিস দেয়। এখন সব মিলে দুটি অপারেটরের গ্রাহক সংখ্যা ছয় হাজারের মতো। বছর কয়েক আগেও এটি ৯ হাজারের বেশি ছিল।

blackberry techshohor

অপারেটর দুটিকে বিটিআরসি এক সপ্তাহ সময় দিয়েছে গ্রাহকদেরকে বিকল্প সেবা দেওয়ার ব্যবস্থা করার জন্য। কিন্তু অপারেটররা এর জন্য আরও দুই সপ্তাহ সময় চেয়েছেন।

ব্ল্যাকব্যরি হল কানাডা থেকে নিয়েন্ত্রিত একটি সেবা যার নেটওয়ার্কের মধ্যে অন্য কোনো নিরাপত্তা প্রযুক্তি প্রবেশ করতে পারে না। ফলে এ সেবাটি সব সময়ই নজরদারির বাইরে থেকে যাচ্ছে।

এর প্রেক্ষিতে বিটিআরসি ২০১২ সালে এটি বাংলাদেশে নিয়ন্ত্রণের উদ্যোগ নেয়। তখন ব্ল্যাকবেরি কর্তৃপক্ষ ঢাকায় এসে কয়েকবার বিটিআরসির সঙ্গে বৈঠক করে। তখন ব্ল্যাকবেরি ঢাকায় একটি সার্ভার রুম বসাতে রাজি হয়েছিল। তবে গ্রাহক কম হওয়ায় সেটি তাদের জন্য ব্যবসা সফল না হওয়ার কথাও জানায় তারা।

কিন্তু এরপর তারা আর কোনো সাড়া না দেওয়ায় অবশেষে সেবাটি বন্ধ করার উদ্যোগ নিল বিটিআরসি।

এ বিষয়ে বিটিআরসির এক কর্মকর্তা বলেন, টেলিকম নীতিমালায় উল্লেখিত জাতীয় নিরাপত্তা ইস্যুর সঙ্গে ব্ল্যাকবেরি সেবা সঙ্গতিপূর্ণ না হওয়ায় সরকার এ সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

অভিজাত ও নীতিনির্ধারক মহলে ব্ল্যাকবেরি বেশ গ্রহণযোগ্যতা ও জনপ্রিয়তা পেয়েছিল প্রথম থেকেই। সে তালিকায় মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামাও রয়েছেন।

বাংলাদেশে ২০০৮ সালের জুলাই মাসে সেবাটি নিয়ে আসে গ্রামীণফোন। পরে দুই বছর আগে এর সঙ্গে যুক্ত হয় এয়ারটেলও।

বাংলাদেশের মতো ভারত, সৌদি আরব ও চীনেও একই সমস্যার সম্মুখীন হয়েছিল ব্ল্যাকবেরি কর্তৃপক্ষ।

Related posts

*

*

Top