Maintance

দুটি আইজিডব্লিউর লাইসেন্স বাতিলের সিদ্ধান্ত বিটিআরসির

প্রকাশঃ ৩:৫৭ অপরাহ্ন, অক্টোবর ২৪, ২০১৩ - সর্বশেষ সম্পাদনাঃ ৩:৫৭ অপরাহ্ন, অক্টোবর ২৪, ২০১৩

অনন্য ইসলাম, টেক শহর প্রতিবেদক : স্থানীয় সরকার প্রতিমন্ত্রী জাহাঙ্গীর কবির নানকের মেয়ে সৈয়দা আমরিন রাখি এবং স্ত্রী সৈয়দা আরজুমান্দ বানুর মালিকানাধীন আন্তর্জাতিক গেটওয়ে রাতুল টেলিকমসহ আরও একটি আইজিডব্লিউর লাইসেন্স বাতিল করতে চায় টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন বিটিআরসি।

প্রায় দুইশ কোটি টাকা বাকি পড়ায় বর্তমানে বন্ধ থাকা কোম্পানি দুটির লাইসেন্স বাতিল করার বিষয়ে বৃহস্পতিবার ১৬০তম কমিশন বৈঠকে সিদ্ধান্ত নিয়েছে বিটিআরসি। তবে টেলিযোগাযোগ আইন অনুসারে এ জন্য সরকারের অনুমোদন নিতে হবে।

আগামী রোববার এ বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রনালয়কে নিয়ন্ত্রণ সংস্থাটি চিঠি দেবে জানিয়েছেন বৈঠকে অংশ নেওয়া এক শীর্ষ কর্মকর্তা।

ওই কর্মকর্তা বলেন, “রাতুল এবং টেলিক্সের লাইসেন্স বাতিল করার বিষয়ে সরকারের কাছে অনুমোদন চাওয়া হবে। এ বিষয়ে মন্ত্রণালয় যে সিদ্ধান্ত দেবে সে অনুযায়ী পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।”

জানা গেছে, রাতুল টেলিকমের কাছে এপ্রিল-জুন প্রান্তিকে বিটিআরসির রাজস্ব আয় ভাগাভাগির অংশ হিসেবে ৭৫ কোটি ২ লাখ টাকা পাওনা রয়েছে। গত ২৬ সেপ্টেম্বর বকেয়া টাকা না দেওয়ার জন্যে তাদের সংযোগ বিচ্ছিন্ন করে দেওয়া হয় সংস্থার পক্ষ থেকে। জুলাই থেকে ২৬ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত এ সময়ে তাদের আরও প্রায় ৫০ কোটি টাকা বাকি পড়েছে।

Symphony 2018

IGW, techshohor

অন্যদিকে টেলেক্স ৬২ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বাকি রাখায় গত ২৮ আগস্ট এটির সংযোগ বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর থেকে কোম্পানিটির কোনো কল নেই।

বিটিআরসি সূত্রে জানা গেছে, এ দুটি প্রতিষ্ঠানের বাইরে আরও নয়টি আইজিডব্লিউ বর্তমানে রয়েছে যারা সরকারি রাজস্বের টাকা পরিশোধ না করায় কল আনতে পারছে না। এর মধ্যে সরকারের একাধিক মন্ত্রী এবং মহাজোটের বিভিন্ন পর্যায়ের শীর্ষ নেতাদের কোম্পানিও রয়েছে।

আইজিডব্লিউর নীতিমালা অনুসারে প্রতি মিনিট আন্তর্জাতিক টেলিফোন কল দেশে আনার সঙ্গে তিন সেন্ট করে দেশে আসে। আর এই তিন সেন্টের ৫১ দশমিক ৭৫ শতাংশ রাজস্ব ভাগাভাগির চুক্তি অনুযায়ী বিটিআরসি তথা সরকারকে দিতে হয়।

-টেক শহর

*

*

Related posts/