দেশে আসুস আল্ট্রাবুক সিরিজের জেনবুক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ‘সবার জন্য জেনবুক’ ক্যাম্পেইনের মাধ্যমে দেশে আল্ট্রাবুক সিরিজের জেনবুক এনেছে গ্লোবাল ব্র্যান্ড (প্রা.) লিমিটেড।

ইতোমধ্যে দেশে পরিবেশক এই প্রতিষ্ঠানের সবগুলো শাখাতে পৌঁছে গেছে নোটবুকটি। আজ থেকে বিক্রিও শুরু হচ্ছে।

সোমবার রাজধানীর বাংলামোটরে বিআইজেএফ সম্মেলন কক্ষে জেনবুকটির উন্মোচনে সংবাদ সম্মেলন করে প্রতিষ্ঠানটি।

সংবাদ সম্মেলনে জেনবুকের এক্স ৪১০ মডেলটির বিস্তারিত জানান আসুসের পণ্য ব্যবস্থাপক আশিকুজ্জামান।

DSC_4020

তিনি বলেন, বিশ্বব্যাপী হালকা গড়নে শক্তিশালী নোটবুক হিসেবে আল্ট্রাবুকের চাহিদা বেড়েই চলেছে। আল্ট্রাবুক সিরিজের ল্যাপটপ সাধারণ ল্যাপটপ থেকে দেখতে আকর্ষনীয় এবং হালকা।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, দেশে জেনবুকের অনেকগুলো মডেল পাওয়া যাবে। তবে শুরুটা হচ্ছে ইউ এক্স ৪১০ মডেল দিয়ে। এর বিশেষত্ব হচ্ছে ডিসপ্লের দুপাশে ৬ মিলিমিটার ব্যাজেল রয়েছে। ফলে এর স্ক্রিন বডি অনুপাত ৮০ শতাংশ।

মাত্র ১.৪ কেজি ওজনের এই জেনবুকে আরও থাকছে ১৪ ইঞ্চির ফুল এইচডি ডিসপ্লে। এতে ব্যাকলিট কি-বোর্ড থাকায় কম আলোতেও নোটবুকটিতে টাইপ করা যাবে।

ইউএক্স ৪১০ মডেলের জেনবুকটি ৮ ঘণ্টা পর্যন্ত ব্যাটারি ব্যাকআপ দিতে সক্ষম। ফুল মেটাল বডির আল্ট্রাবুকটি ইন্টেল এর সপ্তম প্রজন্মের কোর আই থ্রি বা কোর আই ফাইভ দুটি প্রসেসর দিয়েই মিলবে।

কোয়ার্টজ গ্রে আর গোল্ড দুটি আকর্ষণীয় রঙ থেকে ক্রেতারা তাদের পছন্দসই নোটবুকটি পছন্দ করে নিতে পারবেন।

জেনবুকের মোট ১২ টি মডেল থেকে ক্রেতারা ইউএক্স সিরিজের ডিভাইস বেছে নিতে পারবেন। এই সিরিজের মূল্য শুরু হবে ৪৭ হাজার টাকা থেকে।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন আসুসের কান্ট্রি ম্যানেজার আল ফুয়াদ, আসুসের পরিবেশক গ্লোবাল ব্র্যান্ডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রফিকুল আনোয়ার, পরিচালক জসিম উদ্দিন খোন্দকারসহ আরও অনেকে।

ইমরান হোসেন মিলন

ফুজিৎসু লাইফবুক ইউ৫৫৪ : স্ক্রিন ছাড়া সবই চমৎকার

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আলট্রাবুকের কাছাকাছি হলেও পুরোপুরি আলট্রাবুক নয়- এমন একটি নোটবুক ফুজিৎসু লাইফবুক ইউ৫৫৪। যে কোনো অফিসিয়াল বা ব্যবসায়িক কাজে ব্যবহারের পুরোপুরি উপযোগী এটি, কিন্তু কিছু ঘাটতি থাকায় সব ধরনের ইউজারকে হয়তো আকর্ষণ করবে না। এর প্রধান আকর্ষণ কোর আই৫ প্রসেসর ও ২৫৬ জিবি এসএসডি।

ডিজাইন
মজবুত ও স্টাইলিশ গড়নের জন্য ফুজিৎসুর নোটবুকগুলোর সুনাম রয়েছে। এটিও তৈরি করা হয়েছে অ্যালুমিনিয়াম ও প্লাস্টিক দিয়ে। তাই ফিনিশিং খুবই মসৃণ।

এ ছাড়া বডিতে লাল রঙের ডিজাইন এর আউটলুক অনেক আকর্ষণীয় করেছে। এর ওজন মোট দেড় কেজির মতো।

ল্যাপটপ-টেকশহর

ডিসপ্লে
এর ডিসপ্লের আকার ১৩.৩ ইঞ্চি। এলইডি ব্যাকলিট ডিসপ্লের ওপর ম্যাট প্যানেল রয়েছে যা উজ্জ্বল আলোতে দেখতে সাহায্য করে। স্ক্রিন রেজুল্যুশন ১৩৬৬*৭৬৮ পিক্সেল। কালার ব্যালেন্স কিছুটা ত্রুটিপূর্ণ, যে কারণে স্ক্রিন বেশি ডার্ক দেখায়।

কানেক্টিভিটি
এর ইন্টারফেসে আছে দুটি ইউএসবি ৩.০ পোর্ট, একটি এইচডিএমআই পোর্ট, একটি ইউএসবি ২.০, কার্ড রিডার। নিরাপত্তার জন্য কেনসিংটন লক রয়েছে। স্ক্রিনের ওপর ওয়েবক্যাম আছে।

চিকলেট স্টাইলের কিবোর্ডে টাইপ করা যাবে আরামে, তবে এটি ব্যাকলিট নয়। টাচপ্যাডটি দেখতে যেমন চমৎকার কাজেও নিখুঁত। লেফট ও রাইট বাটন আলাদা করা নেই, কিন্তু এতে কাজ করতে কোনো সমস্যা হবে না।

কনফিগারেশন
ইন্টেল কোর আই৫ প্রসেসর রয়েছে এতে, যার ক্লকস্পিড ১.৬ গিগাহার্জ। টার্বো বুস্টের মাধ্যমে ক্লকরেট ২.৬ গিগাহার্জ পর্যন্ত হতে পারে। এটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ৪ জিবির র‍্যাম। গ্রাফিক্স কার্ড বিল্ট-ইন ইন্টেল এইচডি ৪৪০০। হার্ডডিস্ক ৫০০ জিবি। পাশাপাশি ২৫৬ জিবি এসএসডি রয়েছে।

পারফরম্যান্স
শক্তিশালী প্রসেসরের পাশাপাশি এসএসডি স্টোরেজের কারণে এটি যথেষ্ট দ্রুতগতির পারফরম্যান্স দেবে। বিল্ট-ইন গ্রাফিক্স কার্ডের কারণে অবশ্য গেইম পারফরম্যান্স ভালো পাওয়া যাবে না। তবে অ্যাডোবি ইলাস্ট্রেটর, ফটোশপের মতো ভারী সফটওয়্যার দিয়ে এডিটিং এর কাজ করা যাবে।

এ ছাড়া টাইপ, ব্রাউজিং ইত্যাদি সাধারণ কাজে পূর্ণ গতি পাওয়া যাবে। কোনো স্টাটারিং ছাড়া হাই কোয়ালিটি মুভি দেখা যাবে, তবে দুর্বল ডিসপ্লে এক্ষেত্রে বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারে।

ব্যাটারি
এর ব্যাটারি ব্যাকআপ টাইম ১৩ ঘণ্টা, যা আশেপাশের প্রতিদ্বন্দ্বী মডেলগুলো থেকে অনেক বেশি। এটি নোটবুকটির বড় একটি প্লাস পয়েন্ট।

ইউএইচ৫৫৪ এর বর্তমান দাম ৭৭ হাজার ৩০০ টাকা।

এক নজরে ভালো
– চমৎকার ডিজাইন ও গড়ন
– ২৫৬ জিবি এসএসডির ফলে গতিশীল পারফরম্যান্স
– দীর্ঘ ব্যাটারি ব্যাকআপ

এক নজরে খারাপ
– দামের তুলনায় স্ক্রিন যথেষ্ট ভালো নয়
– বিল্ট-ইন গ্রাফিক্স কার্ড

 

আরও পড়ুন

ল্যাপটপের দাম বিষয়ক জিজ্ঞাসার জবাব

ওয়াইফাইয়ের দাবিতে ঢাকা কলেজের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

পানির নিচে ওয়াইফাই!

নেটগিয়ার ইউনিভার্সাল ওয়াইফাই এক্সটেন্ডার

গিগাবাইট ইউ২৪৪২এফ : চমৎকার পারফরম্যান্সের বিপরীতে দুর্বল ডিসপ্লে

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যারা আল্ট্রাবুক কেনার পরিকল্পনা করেন, তারা সাধারণত এইচপি, ডেল বা সনির উচ্চ মূল্যের আল্ট্রাবুক পছন্দের তালিকায় রাখেন। কিন্তু তুলনামূলক কমদামে সেরা আল্ট্রাবুকের পারফরম্যান্স দেবে, এমন কিছু ল্যাপটপ রয়েছে গিগাবাইটেরও। গিগাবাইটের ইউ২৪৪২এফ আল্ট্রাবুকটি অন্যান্য আল্ট্রাবুকের মতোই সব দিক দিয়ে আকর্ষণীয়।

ডিজাইন
মাত্র ১৯ মিলিমিটার পুরু ল্যাপটপটির বডি অ্যালুমিনিয়ামে তৈরি। ব্রাশড সিলভার ফিনিশিংয়ের কারণে এর আউটলুক যথেষ্ট স্টাইলিশ। বিল্ড কোয়ালিটি বেশিরভাগ আল্ট্রাবুকের মতোই প্রিমিয়াম। ওজন মাত্র ১.৬ কেজি।

Gigabyte-U2442F-techShohor

ডিসপ্লে
এর ১৪ ইঞ্চি এলইডি ডিসপ্লের রেজ্যুলেশন ১৬০০*৯০০ পিক্সেল। স্ক্রিনের শার্পনেস খুবই চমৎকার, কিন্তু এর উপর একটি ম্যাট ফিনিশিং থাকায় কালারের মান বেশ কমে গেছে।

অনেক সময় সাদাকে ধূসর ও গাঢ় রঙগুলোকে হালকা দেখাতে পারে। ভিউয়িং অ্যাঙ্গেলও অন্যান্য আল্ট্রাবুকের মতো নিখুঁত নয়।

কানেক্টিভিটি
আল্ট্রাবুকের সবরকম কানেক্টিভিটি ফিচার এতে আছে। দুটি ইউএসবি ৩.০ পোর্ট, দুটি ইউএসবি ২.০ পোর্ট, ভিজিএ ও এইচডিএমআই পোর্ট, ওয়াইফাই, ব্লুটুথ, মেমরি কার্ড স্লট রয়েছে। অপটিক্যাল ড্রাইভ নেই।

এ ছাড়া এর কিবোর্ড ও টাচপ্যাড খুবই স্বাচ্ছন্দ্যে ব্যবহার করা যাবে। চিকলেট স্টাইলে ব্যাকলিট কিবোর্ডের প্রতিটি কি পৃথক, মাঝে স্পেস রয়েছে। মাল্টি-গেশ্চার সাপোর্টেড টাচপ্যাড খুবই নিখুঁত, এবং ম্যাকের মতো অল-ইন-ওয়ান বাটন রয়েছে।

কনফিগারেশন
এতে ইন্টেল কোর আই৭ ৩৫৩৭ইউ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে, যার ক্লক স্পিড ২ গিগাহার্জ। রয়েছে ৮ জিবি র‍্যাম, যা ১৬ জিবি পর্যন্ত বাড়ানো যাবে। এনভিডিয়া জিফোর্স ৬৫০এম মডেলের ২ জিবি গ্রাফিক্স কার্ড রয়েছে। ৭৫০ জিবি হার্ডডিস্কের পাশাপাশি ১২৮ জিবি এসএসডি রয়েছে। ডিসপ্লের ওপর ১.৩ মেগাপিক্সেল ওয়েবক্যাম আছে।

Gigabyte-U2442F--TechShohor

পারফরম্যান্স
নোটবুকটিতে উইন্ডোজ ৮ ব্যবহার করা হয়েছে। কোর আই৭ প্রসেসর ও ৮ জিবি র‍্যামের কারণে স্বাভাবিকভাবেই হাইএন্ড পারফরম্যান্স পাওয়া যাবে। আরেক উল্লেখযোগ্য হার্ডওয়্যার এর শক্তিশালী গ্রাফিক্স কার্ড।

ক্রাইসিস ২, সেইন্টস রো ৪, স্প্লিন্টার সেল ব্ল্যাকলিস্টের মতো হাই গ্রাফিক্সের গেইম খেলা যাবে মসৃণভাবে। যদিও সেটিংসে কিছু অদল-বদল আনতে হতে পারে। এছাড়া গ্রাফিক্স বা ভিডিও সম্পর্কিত এডিটিং স্বাচ্ছন্দ্যে করা যাবে।

দেশের বাজারে আল্ট্রাবুকটির দাম ১ লাখ ১৬ হাজার টাকা। সঙ্গে রয়েছে দুই বছরের বিক্রয়োত্তর সেবা।

এক নজরে ভালো
– চমৎকার পারফরম্যান্স
– শক্তিশালী গ্রাফিক্স কার্ড
– আকর্ষণীয় এক্সটেরিওর ও ইন্টেরিওর
এক নজরে খারাপ
– ডিসপ্লে মানসম্মত নয়

বাজারে আসুসের চতুর্থ প্রজন্মের নতুন আল্ট্রাবুক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আসুসের কে৫৫১এলবি মডেলের নতুন নোটবুক বাংলাদেশের বাজারে এনেছে গ্লোবাল ব্র্যান্ড (প্রা:) লিমিটেড। ১৫.৬ ইঞ্চি পর্দার এই নোটবুকটি ১.৮ গিগাহার্জ গতির চতুর্থ প্রজন্মের ইন্টেল কোরআই-৭ প্রসেসরে চালিত।

হালকা-পাতলা গড়ণের এই আল্ট্রাবুকটিতে রয়েছে সনিক মাস্টার অডিও ফিচার, এসপ্লেন্ডিড প্রযুক্তির ডিসপ্লে এবং স্লিম ডিভিডি রাইটার।

ASUS Core i7 K551LB Notebook with built-in 2GB Graphics_TechShohor

এছাড়া অত্যাধুনিক ফিচার সম্বলিত এই নোটবুকটিতে রয়েছে ৮ জিবি র‍্যাম, ১ টেরাবাইট হার্ডডিস্ক, ২ জিবি ভিডিও মেমরির এনভিডিয়া চিপসেটের বিল্ট-ইন গ্রাফিক্স, ওয়্যারলেস ল্যান, ব্লুটুথ ৪.০, ওয়েবক্যাম, গিগাবিট ল্যান, এইচডিএমআই পোর্ট, ইউএসবি ৩.০ পোর্ট, মেমোরী কার্ড রিডার প্রভৃতি।

দুই বছরের আন্তর্জাতিক বিক্রয়োত্তর সেবাসহ নোটবুকটির দাম ৬৮ হাজার ৫০০ টাকা। যোগাযোগ : ০১৯১৫৪৭৬৩৩৩

– সংবাদ বিজ্ঞপ্তি অবলম্বনে তুহিন মাহমুদ

গিগাবাইট ২৪৪০ডি : টাচস্ক্রিন না হলেও শক্তিশালী আলট্রাবুক

শাহরিয়ার হৃদয়, টেক শহর কনটেন্ট কাউনন্সিলর : বিশ্বের নামিদামি ব্র্যান্ডগুলো সম্প্রতি উইন্ডোজ ৮ ভিত্তিক বেশ কিছু আলট্রাবুক বাজারে এনেছে। সাধারণ ল্যাপটপের চেয়ে এগুলো অনেক বেশি ফিচার সমৃদ্ধ। তাইওয়ানের কোম্পানি গিগাবাইটের এমন একটি আলট্রাবুক ইউ২৪৪০ডি।

ডিজাইন
আউটলুকের দিক দিয়ে এটি এইচপি বা স্যামসাংয়ের আলট্রাবুকের চেয়ে কোনো দিক দিয়ে কম নয়। মসৃণ ধাতব ফিনিশিংয়ের পাশাপাশি রয়েছে দৃঢ় ও মজবুত গড়ন।

রঙটি ঠিক রূপালী নয়, বরং শ্যাম্পেন গোল্ড। রঙ ও ফিনিশিং মিলিয়ে বেশ জমকালো ল্যাপটপই বলা যায় একে।

gigabyte_ultrabook_techshohor

ডিসপ্লে
আলট্রাবুক বলা হলেও ল্যাপটপটির ডিসপ্লে টাচস্ক্রিন নয়। স্ক্রিন রেজুল্যুশনও তুলনামূলক কম, ১৬০০*৯০০ পিক্সেল। কনট্রাস্ট ও কালারে কিছুটা সমস্যা রয়েছে। ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল চলনসই।

কানেক্টিভিটি
এতে আছে দুটি ইউএসবি ৩.০ পোর্ট, দুটি ইউএসবি ২.০ পোর্ট, এইচডিএমআই পোর্ট, ইথারনেট পোর্ট, মাইক্রোফোন/অডিও জ্যাক ও এসডি কার্ড রিডার।

নেটওয়ার্ক কানেক্টিভিটির জন্য আছে ওয়্যারলেস ল্যান ও ব্লুটুথ। এ ছাড়া ১.৩ মেগাপিক্সেল ওয়েবক্যাম রয়েছে।

কনফিগারেশন
তৃতীয় প্রজন্মের ইন্টেল কোর আই থ্রি ২.৬ গিগাহার্জ প্রসেসর ব্যবহার করা হয়েছে এতে। র‍্যাম ৪ বা  ৮ জিবিতে নেওয়া যাবে। এনভিডিয়া জিফোর্স জিটি৭৩০এম ২ জিবি গ্রাফিক্স কার্ড ব্যবহার করা হয়েছে। হার্ডডিস্ক ৭৫০ জিবি।

এ ছাড়া এতে রয়েছে চিকলেট স্টাইলের কিবোর্ড, যা স্বচ্ছন্দে কোনো সমস্যা ছাড়া ব্যবহার করা যাবে। সঙ্গে মাউসপ্যাডটিও বেশ রেসপন্সিভ ও উইন্ডোজ এইটের সব গেশ্চার সাপোর্ট করে।

পারফরম্যান্স
পারফরম্যান্সের দিক দিয়ে এটি টপ ক্লাস আলট্রাবুক। শক্তিশালী প্রসেসরের পাশাপাশি এর বড় ফিচার শক্তিশালী গ্রাফিক্স প্রসেসর। পেশাদারি যে কোনো ফটো বা ভিডিও এডিটিং তাই করা যাবে। হাই গ্রাফিক্সের অনেক গেইমও খেলা যাবে।

ব্যাটারি
এর লিথিয়াম আয়ন ব্যাটারি সাধারণ ব্যবহারে তিন ঘণ্টার মতো ব্যাকআপ দেবে।

বাংলাদেশের বাজারে ল্যাপটপটির দাম ৬১ হাজার টাকা।

এক নজরে ভালো
– আকর্ষণীয় ডিজাইন
– শক্তিশালী গ্রাফিক্স ও পারফরম্যান্স

এক নজরে খারাপ
– ডিসপ্লে দুর্বল
– এসএসডি নেই, হার্ডডিস্ক নির্ভর

একই সঙ্গে নোটবুক ও ট্যাবলেট রূপে আসুসের ডুয়াল স্ক্রিন আল্ট্রাবুক

টেক শহর ডেস্ক :  বাজারে এসেছে আসুসের টাইচি৩১ মডেলের ডুয়াল স্ক্রিনের আল্ট্রাবুক। নোটবুক এবং ট্যাবলেট পিসির সমন্বয়ে এই আল্ট্রাবুকটিতে রয়েছে ১৩.৩-ইঞ্চির ডুয়াল ডিসপ্লে, যার সামনের ডিসপ্লেটি নন-টাচ আইপিএস প্রযুক্তির এবং অপর পাশের ডিসপ্লেটি মাল্টি-টাচ স্ক্রিনের। এটিকে নোটবুক, ট্যাবলেট, মিরর এবং ডুয়াল স্ক্রিন এই ৪টি মোডে ব্যবহার করা যায়।

ASUS Taichi 31 Ultrabook with dual screen notebook and tablet combination_Image

নোটবুকের ডিসপ্লেটিকে ডকিং কিবোর্ডের সাথে ভাঁজ করে ট্যাবলেট পিসি হিসেবে ব্যবহার করা যায়। মিরর মোডে দু’পাশের ডিসপ্লেতে একই চিত্র প্রদর্শিত এবং একই এ্যাপ্লিকেশন চালিত হয়, তাই প্রজেক্টরের মতো প্রেজেন্টেশন বা মুভি সকলে মিলে বিভিন্ন অবস্থানে বসে একই সাথে উপভোগ করা যায়। ডিসপ্লেটির ভিউয়িং অ্যাঙ্গেল ১৭৮-ডিগ্রী হওয়ায় কোনো অসুবিধা হয় না। ডুয়াল স্ক্রিন মোডে দু’পাশে দুই জন ব্যবহারকারী একটিকে নোটবুক এবং অপরটিকে ট্যাবলেট পিসি হিসেবে একই সাথে আলাদা আলাদা অ্যাপ্লিকেশন ব্যবহার করতে পারে।

আল্ট্রাবুকটিতে যা যা রয়েছে :
ওজন : ১.৫৬ কিলোগ্রাম
প্রসেসর : ১.৮ গিগাহার্জ গতির ইন্টেল কোরআই-৫ প্রসেসর
র‍্যাম : ৪ গিগাবাইট
মেমরী : ১২৮ গিগাবাইট এসএসডি
গ্রাফিক্স কার্ড : বিল্ট-ইন
কমিউনিকেশন : ৮০২.১১বি/জি/এন ওয়্যারলেস ল্যান, ব্লুটুথ, ওয়েবক্যাম, ইউএসবি ৩.০ পোর্ট, মেমোরী কার্ড রিডার, ভিজিএ পোর্ট, মাইক্রো এইচডিএমআই পোর্ট প্রভৃতি।
অপারেটিং সিস্টেম : উইন্ডোজ ৮

নোটবুকটির দাম ১ লাখ ৩৫ হাজার টাকা। পাওয়া যাবে গ্লোবাল ব্র্যান্ডের সকল শোরুম, পরিবেশক ও দেশের সকল কমম্পিউটার মার্কেটে। বিস্তারিত জানা যাবে ০১৭১৩২৫৭৯৪২ নম্বর থেকে।