চট্টগ্রামে ভিওআইপির অবৈধ সরঞ্জামসহ গ্রেপ্তার ২

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চট্টগ্রামের পাঁচলাইশ ও বায়েজিদ থানার দুটি আবাসিক স্থাপনায় অভিযান চালিয়ে অবৈধ ভিওআইপি কাজে ব্যবহৃত সরঞ্জাম ও ১২  হাজার ১৭৭টি সিমসহ দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব।

গত রোববার বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ কমিশন (বিটিআরসি) ও র‌্যাবের পরিচালিত যৌথ ওই অভিযানে ১২ হাজার ১৭৭টি সিম ও এক কোটি টাকা সমমূল্যের অবৈধ ভিওআইপি সরঞ্জাম উদ্ধার করা হয়েছে।

voip_TechShohor

অভিযানে দুটি স্থাপনা থেকে টেলিটকের ৮ হাজার ৩৯৯টি, এয়ারটেলের ৩ হাজার ৬৯০টি, গ্রামীণফোনের ৩৩টি, রবির ২০টিএবং বাংলালিংকের ৩৫টি সিম উদ্ধার করা হয়েছে।

এছাড়াও অবৈধ ভিওআইপির কাজে ব্যবহৃত ১৯টি সিমবক্স গেটওয়ে, চারটি ল্যাপটপ, ১৬টি থ্রিজি মডেম, ১৬টি ইথারনেট সুইচ, সাতটি ডেক্সটপ, ৩২২টি জিএসএম আউটডোর অ্যান্টেনাসহ অন্যান্য আনুষঙ্গিক মালামাল জব্দ করা হয়েছে।

আনিকা জীনাত

টেলিটক বিদেশী বিনিয়োগ খুঁজছে না

আর এস হুসেইন, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সরকারি মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটক বিদেশী বিনিয়োগ খুঁজছে না বলে জানিয়েছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

বরং সরকারের একটি চক্র যারা টেলিটককে বিদেশী কোম্পানির হাতে ছেড়ে দিতে চায় তারা প্রধানমন্ত্রীর নামে এমন কথা বলেছেন বলে জানিয়েছেন তারানা।

গত মঙ্গলবার একনেকের সভায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সরকারি মালিকানাধীন টেলিটকের সঙ্গে একীভূত করার জন্য বিদেশি একটি কোম্পানি অনুসন্ধানের নির্দেশ দিয়েছেন বলে ওই দিন সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল।

এ বিষয়ে তারানা গণমাধ্যমকে বলেন, সভার শুরুতে এমন কথা বলা হয়েছিল। সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো অনেক সময় ঠিকমতো পরিচালনা করতে পারে না, একটি বিনিয়োগকারী আসলে তখন সেটা ঠিকঠাক চালাতে পারে। ওটা ছিল খুবই সাধারণ একটা বক্তব্য। কিন্তু পরে প্রধানমন্ত্রী আমাদের যুক্তি মেনে নিয়ে তাঁর অবস্থান পরিবর্তন করেন।

তারানা বলেন,  ‘প্রধানমন্ত্রী যদি মনে করেন টেলিটকের জন্য বিদেশি বিনিয়োগ আনতে হবে তাহলে সেই নির্দেশনা অবশ্যই মেনে নেব। কিন্তু তিনি তো আমাদেরকে ৬৭৫ কোটি টাকা দিয়েছেন নেটওয়ার্ক উন্নয়নে। আমাদের ওপর আস্থা রেখেই তিনি এই টাকা দিয়েছেন।’

tarana_teletalk
ফাইল ছবি

টেলিটক অন্য অপারেটরদের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় তেমন একটা না পারেলেও টেলিটকের সার্ভিস উন্নত হবে বলে দাবি করেন তারানা।

এদিকে সরকার ও অন্য একটি ঋণ পরিশোধের প্রায় তিন হাজার দুইশত কোটি টাকার দায় থেকে মুক্ত পেতে যাচ্ছে টেলিটক।

একনেক সভায় এ বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনা দিয়েছেন বলে জানান তারানা।

‘রাষ্ট্রীয় এ কোম্পানিটি ব্যবসা নয় সেবা দেবে বলে গুরুত্বারোপ করে প্রধানমন্ত্রী নির্দেশনা দিয়েছেন। সরকারের কাছে টেলিটকের যে বকেয়া আছে সেগুলো সরকারের ‘বিনিয়োগ’ হিসেবে বিবেচনা করার জন্য এ বিষয়ে চিঠি দিতে বলেছেন।’

‘টেলিটকের যে বকেয়া আছে সেগুলো সরকারের বিনিয়োগ হিসেবে বিবেচনা করার জন্য অর্থমন্ত্রণালয়ে আমরা দ্রুতই চিঠি পাঠাবো যেন সেভাবে বিবেচনা করা হয়।’

টেলিটকের এক উর্ধতন কর্মকর্তা জানান, বিটিআরসি কাছে থ্রিজির তরঙ্গ বাবদ এক হাজার ৬০০ কোটি টাকা এবং থ্রিজি প্রকল্পে ঋণ হিসেবে আরও এক হাজার ৬৫৬ কোটি টাকা সরকারের পাওনা রয়েছে। সব মিলে এ দেনার পরিমাণ দাড়ায় তিন হাজার ২৫৬ কোটি টাকা।

নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে একনেক অনুমোদিত ৬৭৫ কোটি টাকা খুব দ্রুত ছাড় হবে আশা প্রকাশ করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে একনেক অনুমোদিত এই টাকার একটি প্রকল্পের অর্থ ছাড় অতি দ্রুত করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রাথমিক পর্যায়ে সামান্য সুদে টেলিটককে এ টাকা নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণে দেওয়া হবে যা পরবর্তীতে সরকার বিনিয়োগ হিসেবে ধরে নেবে।

টেলিটকের সম্প্রতি ৬ লাখ গ্রাহক বৃদ্ধি পেয়েছে উল্লেখ করে তারানা হালিম বলেন, প্রধানমন্ত্রী সুস্পষ্টভাবে বলেছেন টেলিটক জনগণকে সেবা দেবে, টেলিটককে ব্যবসা করার জন্য সরকার সেইভাবে রাখেনি,  প্রত্যন্ত এলাকায় যেখানে নেটওয়ার্ক নেই সে সব অঞ্চলে সেবা দেবে টেলিটক।

টেলিটককে বিদেশী বিনিয়োগকারী খুঁজতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রতিযোগিতায় পিছিয়ে পড়াসহ গুনগত সেবা দিতে না পারায় রাষ্ট্রায়ত্ত মোবাইল ফোন অপারেটর টেলিটকটকে বিদেশী বিনিয়োগকারী খুঁজতে পরামর্শ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) বৈঠকে টেলিটকের একটি প্রকল্প নিয়ে আলাপকালে প্রধানমন্ত্রী এমন মতামত জানান বলে জানিয়েছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আ হ ম মোস্তফা কামাল।

‘বৈঠকে প্রধানমন্ত্রী সরকার মালিকানাধীন টেলিটকের সঙ্গে একীভূত হয়ে ব্যবসা করার জন্য বিদেশি একটি কোম্পানি খোঁজার নির্দেশ দিয়েছেন।’- বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের বলেন মোস্তফা কামাল।

আবদুল লতিফ সিদ্দিকী বরখাস্ত হওয়ার পর থেকে প্রধানমন্ত্রী একইসঙ্গে টেলিযোগাযোগ বিভাগেরও মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন।

সম্প্রতি দেশে রবি এবং এয়ারটেলের একীভূতকরণের কারণেই টেলিটকের একীভূতকরণের প্রসঙ্গটি আসে বলে মনে করছেন কেউ কেউ।

এর আগে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমও মালয়েশিয়া সফর করে টেলিকম মালয়েশিয়াকে টেলিটকের বিনিয়োগের প্রস্তাব দেন। তিনি একই প্রস্তাব দেন ভারতের টাটা কমিউনিকেশন্সকে। কিন্তু কেউই বিনিয়োগে এগিয়ে আসেনি।

teletalk new logo

বৈঠকে টেলিটকের ৬৭৫ কোটি টাকার একটি প্রকল্প অনুমোদিত হয়। এই প্রকল্পের মাধ্যমে তারা সারা দেশে আরও দেড় হাজার থ্রিজি সাইট এবং এক হাজার টুজি সাইট তৈরি করবে।

মূলত গ্রোথ সেন্টার এবং শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে লক্ষ্য করেই এসব নতুন সাইট স্থাপন করা হবে বলে জানিয়েছেন প্রকল্প সংশ্লিষট এক কর্মকর্তা।

বর্তমানে টেলিটকের থ্রিজি সাইট আছে ১ হাজার ৭০০টি। আরও দেড় হাজার স্থাপনের কাজ চলছে, যা আগামী বছর জুনে শেষ হবে।

সব প্রকল্পের কাজ শেষ হলে অপারেটরটির প্রায় পাঁচ হাজার থ্রিজি সাইট হবে। তখন তারা অন্য অপারেটরের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় থাকতে পারবে বলেও বলছেন টেলিটকের কর্মকর্তারা।

অন্য বেসরকারি অপারেটরদের এক বছরেরও বেশী সময় আগে থ্রিজি সেবা শুরু করলেও এখন সবার চেয়ে পিছিয়ে পড়েছে টেলিটক।

বিটিআরসির হিসাব অনুসারে ফেব্রুয়ারির শেষে টেলিটকের গ্রাহক ছিল সাড়ে ৩৭ লাখ।

আর এস হুসেইন

দেশে টেলিটকের আরও তিন গ্রাহক সেবাকেন্দ্র

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে সরকারি মোবাইল অপারেটর টেলিটকের আরও তিনটি গ্রাহক সেবাকেন্দ্র উদ্বোধন করা হয়েছে।

বৃহস্পতিবার ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম এসব সেবাকেন্দ্র উদ্বোধন করেন।

ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে তারানা হালিম জেলাশহর নওগাঁ, চাঁপাইনবাবগঞ্জ এবং জয়পুরহাটে তিনটি গ্রাহক সেবাকেন্দ্র উদ্বোধন ঘোষণা করেন।

Teletalk-Tarana Halim-Teletalk

এর আগে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, মানুষের দোরগোড়ায় টেলিটকের সেবা পৌঁছে দিতে প্রতি মাসে দেশে অন্তত তিনটি করে টেলিটকের কাস্টমার কেয়ার সেন্টার চালু করা হবে।

সেই ধারাবাহিকতায় এবার উত্তরের এই তিন জেলায় কাস্টমার কেয়ার সেন্টার উদ্বোধন করা হলো।

এসব সেন্টার থেকে টেলিটক গ্রাহকরা অপারেটরটির সেবা পাবেন এবং অপারেটর সম্পর্কে বিভিন্ন তথ্য জানতে পারবেন।

ডাক ও টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে তারানা হালিম বলেন, টেলিটক গ্রাহকদের উন্নত সেবা দিতেই দেশব্যাপী কাস্টমার কেয়ার সেন্টার স্থাপন করা হচ্ছে। এর মাধ্যমে গ্রাহকরা খুব সহজেই সেবা পাবেন বলেও জানান তিনি।

ইমরান হোসেন মিলন

স্বাধীনতা দিবসে রবি ও টেলিটকের অফার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর  : স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে গ্রাহকদের কাছে টানতে নানা অফার ঘোষণা করেছে রবি আজিয়াটা লিমিটেড ও দেশীয় টেলিকম অপারেটর টেলিটক। এই অফারের আওতায় এসএমএস, ইন্টারনেট ডাটা এবং টকটাইম সুবিধা দিচ্ছে তারা।

অফারে সরকারি একমাত্র অপারেটর টেলিটক ২৬ টাকায় ৪৬ মিনিট টক টাইম, ২৬ এসএমএস এবং ২৬০ মেগাবাইট ডাটার সুবিধা দিচ্ছে।

অফারটি সাবস্ক্রাইব করতে ‘P26’ লিখে এসএমএস ‘১১১’ নম্বর এসএমএস করতে হবে। এছাড়া ডায়াল করতে হবে *111*61#। এই সুবিধা উপভোগ করা যাবে ২৪ মার্চ হতে ২৮ মার্চ পর্যন্ত।

robi-26-offer-taletalk-techshohor

২৬ টাকায় ২ হাজার ৬০০ এসএমএস সুবিধা দিচ্ছে টেলিকম অপারেটর রবি। ৭ দিন মেয়াদে সাশ্রয়ী দামে এই এসএমএস অফারটি পেতে ডায়াল করতে হবে *১২৩*২৬০০# নম্বরে। এসএমএস ব্যালান্স চেক করা যাবে *২২২*১২# নম্বর ডায়াল করে। এই অফারের আওতায় যেকোনো লোকাল অপারেটরে এসএমএস পাঠানো যাবে।

এছাড়াও স্বাধীনতা দিবস উপলক্ষ্যে ২৬ টাকায় ৫০০ এমবি ইন্টারনেট সুবিধা দিচ্ছে অপারেটরটি। এই অফার পেতে *১২৩*০২৬# নম্বরে ডায়াল করতে হবে। ২৭ মার্চ রাত পর্যন্ত অফারটি চালুর সুবিধা পাওয়া যাবে।

এছাড়া রবি স্বাধীনতার মাসে ৭১ টাকায় ১ জিবি ইন্টারনেট এবং ফ্রি ফেইসবুক ডাটার সুবিধা দিচ্ছে। এই অফার উপভোগ করতে ডায়াল করতে হবে *১২৩*০৭১# নম্বরে।

তুসিন আহমেদ

সেবায় না থাকলেও ভিওআইপিতে আছে সিটিসেল

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বেশ কয়েক মাস ধরে গ্রাহক সেবায় নেই মোবাইল ফোন অপারেটর সিটিসেল। তবে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের সাম্প্রতিক এক অভিযানে দেশের সবচেয়ে পুরনো অপারেটরটির অন্তত ২৭ সিম (রিম) পাওয়ায় বিস্মিত কর্মকর্তারা।

বিটিআরসির একটি দল গত ২২ মার্চ রাজধানীর মতিঝিল এলাকায় অভিযান চালিয়ে মোট ৫ হাজার ৪৪৯টি সিম উদ্ধার করে, যা বিদেশ থেকে আসা কলের অবৈধ কার্যক্রমে ব্যবহার হচ্ছিল।

এগুলোর মধ্যে চার হাজার ১৮১ সিম রাষ্ট্রায়ত্ত অপারেটর টেলিটকের। ওখানে রবির সংযোগ ছিল ৫২০, গ্রামীণফোনের ৪৪১, এয়ারটেলের ১৮৪ ও বাংলালিংকের ১০৬।

Citycell_Logo_techshohor

তবে অন্য অপারেটরগুলোর সিম ভিওআইপিতে ব্যবহার স্বাভাবিক হলেও অপারেশনে না থাকা সিটিসেলের সংযোগ পাওয়ায় বিস্মিত হয়েছেন বিটিআরসির কর্মকর্তারাও।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, দীর্ঘ দিন পরে অবৈধ ভিওআইপির কোনো অভিযানে সিটিসেলের সিম ধরা পড়ল। তাদের মতে, গ্রাহকবিহীন কার্যত বন্ধ এ অপারেটরের সংযোগ ব্যবহার করে অবৈধ সেবা দিলে তা কারও নজরে আসবে না- এমন সুযোগ নিতে চেয়েছে একটি চক্র।

বিটিআরসির বকেয়া টাকা পরিশোধ না করায় গত বছরের জুলাইতে নোটিশ দেওয়ার পর অক্টোবরে সিটিসেলের স্পেকট্রাম স্থগিত করে দেওয়া হয়। নানা চড়াই উৎরাই পেরিয়ে আদালতের আদেশে অপারেটরটি স্পেকট্রাম ফেরত পেলেও গ্রাহক সেবা আর আগের মতো চালু করতে পারেনি।

তবে সীমিত এলাকায় তাদের সেবা রয়েছে বলে জানিয়েছেন সংশ্লিষ্টরা। এটাকেই সুযোগ হিসেবে নিয়েছে অপরাধীরা।

বন্ধ হওয়ার আগে বিটিআরসির হিসাব অনুসারে সিটিসেলের দেড় লাখ কার্যকর সংযোগ ছিল।

৪ জি আনতে তৈরি হচ্ছে ৩ মোবাইল অপারেটর

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দ্রুত গতির ইন্টারনেট ব্যবহারের চতুর্থ প্রজন্মের প্রযুক্তি চালু করতে প্রস্তুতি শুরু করেছে বড় তিন মোবাইল ফোন অপারেটর।

টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশনের বিটিআরসির কাছ থেকে লাইসেন্স পাওয়া মাত্রই ৪ জি সেবা দিতে নিজেদের এগিয়ে রাখছে অপারেটরগুলো। তবে রাষ্টায়ত্ত কোম্পানি টেলিটক এক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়েছে।

কারিগরি দিকগুলো গুছিয়ে নেওয়ার অংশ হিসেবে কিছু দিন আগে গ্রামীণফোন, রবি ও বাংলালিংক মহড়াও দিয়েছে। দেশের অধিকাংশ জায়গায় ইতিমধ্যে তাদের নেটওয়ার্ক তৈরি হয়ে গেছে।

4g-techshohor

এ পরীক্ষায় অপারেটরগুলো ডেটা আপলোড ও ডাউনলোড উভয় ক্ষেত্রেই বেশ উচ্চ গতি পেয়েছে, যা থ্রি জি নেটওয়ার্কের চেয়ে বহু গুণ বেশি।

অপারেটরগুলোর কর্মকর্তারা বলছেন, অনুমোদন পাওয়ার পর খুব অল্প সময়ের মধ্যেই তারা গ্রাহকদেরকে ৪ জি সংযোগ দিতে পারবেন।

প্রস্তুতির অংশ হিসেবে রবি সব সিম কার্ড ফোর জি উপযোগী করার কাজ শুরু করেছে। নতুন সেবার লাইসেন্স পাওয়া মাত্র তারা চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্কে ঢুকতে চায়। এ জন্য অবশ্য গ্রাহকের কাছ থেকে প্রতি সিমে ১০০ টাকা করে নিচ্ছে।

সিম ফোর জি উপযোগী করতে বিটিআরসির কাছে অনুমতি চেয়েছে বাংলালিংকও।

অন্যদিকে গ্রাহক বিচারে শীর্ষ অপারেটর গ্রামীণফোন গত বছর ঘোষণা করেছে, চতুর্থ প্রজন্মের নেটওয়ার্ক চালু করতে তারাও প্রস্তুত। ইতিমধ্যে তাদের ১১ হাজার সাইটকে ৩ জি নেটওয়ার্কের জন্য তৈরি করেছে, যেগুলো ৪ জি নেটওয়ার্ক হিসেবেও ব্যবহার করা যাবে।

গত মাসে এক বৈঠকের পর প্রধানমন্ত্রীর তথ্য প্রযুক্তি উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় যত দ্রুত সম্ভব দেশে ৪ জি চালু করার নির্দেশনা দেন। তারপর নীতিমালা তৈরির কাজও শুরু করেছে বিটিআরসি।

মূলত উপদেষ্টার ঘোষণা মোবাইল অপারেটরদের প্রস্তুতিতে গতি এনেছে। যদিও তারা গত বছর থেকেই এ জন্য প্রস্তুতি শুরু করেছিল।

বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ সাংবাদিকদের বলেন, তাদের একটি কমিটি এ বিষয়ে কাজ শুরু করেছে। এ নীতিমালার বিষয়ে একটি বৈঠকও হয়েছে।

এ নীতিমালায় যেসব অপারেটরের ৩ জি লাইসেন্স রয়েছে সেগুলো নতুন লাইসেন্স পাওয়ার উপযুক্ত বিবেচিত হবে বলে জানান তিনি।

বড় তিন অপারেটরের বাইরে রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি টেলিটকেরও ৩ জির লাইসেন্স আছে। তবে ৪ জির বিষয়ে টেলিটকের প্রস্তুতির বিষয়ে কিছুই জানা যায়নি।

পাঁচ অপারেটরকে শোকজ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বন্ধ হয়ে যাওয়া সিমে থাকা অব্যবহৃত ব্যালেন্স ফেরত না দেয়ায় রবি, এয়ারটেল, বাংলালিংক, টেলিটক ও সিটিসেলকে কারণ দর্শানো নোটিশ দিয়েছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ সংস্থা (বিটিআরসি)।

মূলত ২০০৮ সাল থেকে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময়ে বন্ধ হওয়া সিমে গ্রাহকের অব্যবহৃত যে ব্যালেন্স আছে সেই টাকাই ফেরত চেয়েছিল বিটিআরসি। কিন্তু জিপি ছাড়া আর কেউ তা ফেরত দেয়নি।

telecom-oprator-techshohor

এখন এই বিষয়ে বাকি সব অপারেটরগুলোকে শোকজ করল বিটিআরসি।

চলতি বছরের ফেব্রুয়ারিতে এই অব্যবহৃত ব্যালেন্স কেনো ফেরত দেয়া হয়নি সেটি জানাতে সাত দিন সময় দিয়ে অপারেটরগুলোকে চিঠি দেয় বিটিআরসি।

এর আগে গত ৩১ জানুয়ারি সব অপাটেরদেরকে চিঠি দিয়ে উল্লেখিত সাড়ে পাঁচ বছর সময়ে অবৈধ কল টার্মিনেশনে জড়িত থাকায় বন্ধ হওয়া সিমের ব্যালেন্স বিটিআরসিতে জমা দিতে নির্দেশনা দেয়।

জামান আশরাফ

ভাষা দিবসে ২১ টাকায় টেলিটকের এক জিবি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টেলিটক গ্রাহকদের জন্য আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে ইন্টারনেট অফার দিয়েছে অপারেটরটি। এই অফারে ২১ টাকায় এক জিবি ইন্টারনেট ডাটা প্যাক কিনতে পারবেন গ্রাহকরা।

আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা দিবস উপলক্ষ্যে অফারটি ইতোমধ্যে শুরু হয়েছে। যেখানে টেলিটকের প্রিপেইড গ্রাহকরা তিন দিন মেয়াদী অফারটি উপভোগ করতে পারবেন।

Teletalk-21tk-1gb-Techshohor

এই অফারের শর্ত হিসেবে বলা হয়েছে, এটি ২৪ ফেব্রুয়ারি রাত ১২টা পর্যন্ত নেওয়া যাবে। তবে এই সময়ের মধ্যে গ্রাহকরা যতবার খুশি ততবার এটি নিতে পারবেন।

ভ্যাট ও অন্যান্য চার্জসহ ২১ টাকা খরচ হবে।

অফারটি পেতে M21 লিখে 111 এ এসএমএস করতে হবে অথবা চার্জ ফ্রি হিসেবে *111*60# ডায়াল করতে হবে।তারপর ডাটা ব্যবহার করা যাবে দিন-রাত ২৪ ঘণ্টা।

ইমরান হোসেন মিলন

টেলিটকে বিনিয়োগে টাটাকে প্রস্তাব তারানার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : টেলিটকে বিনিয়োগের জন্যে এবার ভারতীয় টেলিটকম জায়ান্ট টাটাকে প্রস্তাব দিয়েছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম। গতকাল কলকাতার টাটার সঙ্গে এক বৈঠকে এ প্রস্তাব দেন তারানা।

এর আগে গত বছর মালয়েশিয়া সরকারকে টেলিটেকে বিনিয়োগের প্রস্তাব দিলেও তাৎক্ষনিকভাবে তারা ইতিবাচক মনোভাব দেখালেও এখন পর্যন্ত কোনো সাড়া দেয়নি।

জানা গেছে, টাটাও ইতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেছে। তবে একই সঙ্গে তারা বেশ কয়েকটি চ্যালেঞ্জের কথাও তুলেছেন তারানা হালিমের সামনে।

tarana-teletalk-techshohor
একই সঙ্গে টাটা চাইলে টেলিটকের বাইরে অন্য টেলিটকম কোম্পানিতেও বিনিয়োগ করতে পারে বলে তারানার লিখিত প্রস্তাবে উল্লেখ করা হয়েছে।

বৈঠকে বাংলাদেশের পক্ষে প্রতিমন্ত্রী ছাড়াও টেলিটকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক গিয়াসউদ্দিন আহমেদ এবং বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবেল লিমিটেড বা বিসিসিএল এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক মনোয়ার হোসেন অংশ নেন। অন্যদিকে টাটা টেলিকমের জেনারেল ম্যানেজার চেতন পাঞ্চল ছাড়াও তাদের শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তারা টাটার প্রতিনিধিত্ব করেন।

বৈঠক বিষয়ে তারানা হালিম বলেন, বাংলাদেশ এখন বিনিয়োগের উপযুক্ত ক্ষেত্র। সেটাই বিনিয়োগকারীদের জানানো হয়েছে।
পশ্চিমবঙ্গ সরকারের আমন্ত্রণে চার দিনের সফরে তারানা হালিম কলকাতার এক অনুষ্ঠানে অংশ নিচ্ছিলেন। বাংলাদেশের শিল্পমন্ত্রী আমির হোসেন আমুও এতে অংশ নেন।

বর্তমানে টেলিটকের ৩০ লাখ কার্যকরী গ্র্রাহক রয়েছে। ২০০৫ সালে যাত্রা করলেও অপারেটরটি কখনো লাভ করার মতো অবস্থায় আসেনি।

সাম্প্রতিক সময়ে রাষ্ট্রায়াত্ত্ব অপারেটরটি নিজেরাই নিজেদের ফান্ড থেকে নেটওয়ার্ক বৃদ্ধির জন্যে বিনিয়োগ করতে শুরু করেছে।

বায়োমেট্টিকের ধাক্কা রবিতেই বেশি

অনন্য ইসলাম, টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বড় মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর মধ্যে বায়োমেট্টিক নিবন্ধনের সবচেয়ে বড় ধাক্কা খেয়েছে রবি। এ পদ্ধতি চালুর পর থেকে অর্ধ কোটির বেশি সংযোগ কমেছে সম্প্রতি এয়ারটেলের সঙ্গে একীভূত হওয়া অপারেটরটি।

চালু সিমের সংযোগ কমার দিক থেকে এরপরের অবস্থানে রয়েছে বাংলালিংক। গ্রাহক সংখ্যার বিচারে শীর্ষ অপারেটর গ্রামীণফোনের সংযোগও বেশ কমেছে। কমবেশি সবগুলো অপারেটরের সংযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ার নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে এ খাতে। আট মাসে ১১ দশমিক ৯৪ শতাংশ সচল সিম সংযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে।

ডিসেম্বরে নিবন্ধন প্রক্রিয়ার শুরুতে দেশে মোট সংযোগ ছিল ১৩ কোটি ৩৭ লাখ যা নিবন্ধন শেষে নেমে এসেছে  ১১ কোটি ৭৭ লাখ ৫৮ হাজারে।

mobile operator_telecom_companies_techshohor

সরকার মোবাইল ফোন সিমকে আরও নিয়ন্ত্রণের মধে আনতে ডিসেম্বর থেকে আঙ্গুলের ছাপের মাধ্যমে জাতীয় পরিচয়পত্রের সঙ্গে নিবন্ধনের তথ্য যাচাইয়ের পদ্ধতি বাধ্যতামূলক করে।

বিটিআরসির হিসাব বিশ্লেষণে দেখা যায়, নিবন্ধনের এ প্রক্রিয়া শুরুর সময় রবি’র কার্যকর সংযোগ ছিল দুই কোটি ৮৩ লাখ ১৭ হাজার। আট মাসে তারা ৫০ লাখ ৫৪ হাজার সংযোগ হারিয়েছে। শতাংশের হিসাবে ১৭ দশমিক ৮৫ ভাগ ।

অবশ্য গ্রাহক হারানোর বিচারে শতাংশের হিসাব ধরলে সবার আগে চলে আসবে সিটিসেলের নাম। তবে দেশের সবচেয়ে বড় এ অপারেটরট এখন হিসাবের মধ্যে নেই বললেই চলে।

সংযোগ কমার তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা বাংলালিংকের এ সময়ে ৩৮ লাখ ৮৮ হাজার সংযোগ কমেছে, যা মোটের ১১ দশমিক ৮৩ শতাংশ। নিবন্ধন প্রক্রিয়া শেষে তাদের কার্যকর সংযোগ আছে এখন দুই কোটি ৮৯ লাখ।

রবি’র সঙ্গে সম্প্রতি যুক্ত হওয়া এয়ারটেল ওই আট মাসে ২৭ লাখ ৬৭ হাজার সংযোগ হারিয়েছে, যা তাদের মোট সংযোগের ২৫ দশমিক ৮৪ শতাংশ। এক কোটি সাত লাখ থেকে এক ধাক্কায় অপারেটরটি নেমে এসেছে ৭৯ লাখ ৪৩ হাজারে।

রবি-এয়ারটেল যেহেতু এখন এক সঙ্গে সেবা দেবে সেই হিসেব করলে দুই অপারেটর মিলে এ সময়ে সংযোগ হারিয়েছে ৭৭ লাখ ৭১ হাজার।

মোট সংখ্যার দিক দিয়ে বিবেচনা করলে গ্রামীণফোনের ওপর ধাক্কাটা একটু কমই লেগেছে। তারা এই সময়ে ২১ লাখ ৭২ হাজার গ্রাহক হারিয়েছে। এটা তাদের মোট গ্রাহকের ৩ দশমিক ৮৩ শতাংশ।

নিবন্ধন প্রক্রিয়ার শুরুতে এ অপারেটরের সংযোগ ছিল পাঁচ কোটি ৬৬ লাখ ৬৭ হাজার। সেটা এখন নেমে আসে পাঁচ কোটি ৪৫ লাখে।

রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি টেলিটক হারিয়েছে ১২ লাখ ১৮ হাজার সংযোগ। এতে তাদের মোট গ্রাহক কমেছে ২৯ দশমিক ৪০ শতাংশ। অপারেটরটির হাতে এখন ২৯ লাখ ২৫ হাজার সংযোগ আছে।

সিটিসেল নিবন্ধন প্রক্রিয়ার শুরুতে ১০ লাখ সাত হাজার সংযোগ দেখালেও পরে তা এক লাখ ৪২ হাজারে নেমে এসেছে।