দেশজুড়ে ইন্টারনেট উৎসব

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশের সরকারি বিভিন্ন সেবা, ইন্টারনেটভিত্তিক ব্যবসায়ের প্রচার-প্রসার ও ইন্টারনেট গ্রাহক বাড়াতে দ্বিতীয়বারের মতো শুরু হচ্ছে ‘জাতীয় ইন্টারনেট সপ্তাহ’।

ঢাকা ছাড়াও দেশের সব উপজেলায় ইন্টারনেটের এই উৎসব শুরু হবে মঙ্গলবার।

মঙ্গল ও বুধবার রাজধানীর ঢাকা কলেজ প্রাঙ্গণে বসছে ‘ঢাকার এক্সপো’। এতে দেশের শীর্ষস্থানীয় ই-কমার্স কোম্পানি, মোবাইল অ্যাপস ডেভেলপমেন্ট প্রতিষ্ঠান, ওয়েব পোর্টাল, ডিভাইস কোম্পানিসহ ইন্টারনেটভিত্তিক পণ্য ও সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে।

Logo-of-National-Internet-Week-Techshohor

সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের অধীনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তর এবং বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব সফটওয়্যার অ্যান্ড ইনফরমেশন সার্ভিসেস (বেসিস) এবারের ইন্টারনেট সপ্তাহের আয়োজক।

মঙ্সগলবার ১০টায় ঢাকা কলেজে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় ইন্টারনেট সপ্তাহের উদ্বোধন করবেন তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি থাকবেন তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের ভারপ্রাপ্ত সচিব সুবীর কিশোর চৌধুরী, বেসিস সভাপতি মোস্তাফা জব্বার এবং ঢাকা কলেজের অধ্যক্ষ প্রফেসর মো. মোয়াজ্জেম হোসেন মোল্লাহ্। সভাপতিত্ব করবেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বনমালী ভৌমিক।

আনিকা জীনাত

সংস্কার কাজে বিচ্ছিন্ন ৩৫০০ টেলিফোন ও ইন্টারনেট সংযোগ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সংস্কার কাজের জন্য রাজধানী ঢাকায় বেশ কয়েকটি এলাকার সাড়ে তিন হাজার ইন্টারনেট ও টেলিফোন লাইন বিকল হয়েছে।

রাস্তা খোঁড়াখুঁড়িতে এসব এলাকায় ভূগর্ভস্থ ক্যাবল ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ায় সংযোগ হারিয়েছেন গ্রাহকরা।

বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানিয়েছে।

বিটিসিএলের গণমাধ্যম ও জনসংযোগ পরিচালক মীর মোহাম্মদ মোরশেদ স্বাক্ষরিত ওই বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ঢাকা দক্ষিণ ও উত্তর সিটি কর্পোরেশন এবং ওয়াসার উন্নয়নমূলক (সুয়ারেজ লাইন স্থাপন) কাজে রাস্তা খোঁড়ায় ভূগর্ভস্থ ক্যাবলের ব্যাপকভাবে ক্ষতি হয়েছে।

cutting-internet-cord-singapore-internet-ban-TechShohor

কয়েকটি স্থানে বিচ্ছিন্ন সংযোগ মেরামত করা হলেও উন্নয়নকাজ শেষ না হওয়ায় সব স্থানে টেলিফোন সংযোগ ও ইন্টারনেট সেবা পুরোপুরি চালু করতে দেরি হচ্ছে বলেও উল্লেখ করা হয়েছে।

রাজধানীল খিলগাঁও, বনশ্রী, গোড়ান, মগবাজার, কাকরাইল, মৌচাক, মালিবাগ, শান্তিনগর, সার্কিট হাউজ রোড, ফকিরাপুল, নয়াপল্টন, ডিআইটি এক্সটেনশন রোড, নয়াটোলা, রামপুরা এলাকায় টেলিফোন ও ইন্টারনেট সেবা বিছিন্ন হয়ে পড়েছে।

গত কয়েকদিন ধরে ওসব এলাকার বাসিন্দারা টেলিফোন ও ইন্টারনেট সেবা থেকে বঞ্চিত হওয়ায় দুঃখ প্রকাশ করেছে বিটিসিএল।

ইমরান হোসেন মিলন

ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তাদের জন্য বিটিসিএলের কল সেন্টার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ডিজিটাল সেন্টার উদ্যোক্তাদের ইন্টারনেট সংযোগ বিষয়ক সেবা দিতে কল সেন্টার চালু করেছে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশনন্স কোম্পানি বিটিসিএল।

মঙ্গলবার বিটিসিএল জানায়, ফাইবার অপটিক ক্যাবলে ইতোমধ্যে ১ হাজার ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টারে ২ এমবিপিএস গতির ইন্টারনেট সংযোগ দেয়া হয়েছে।

call-center

উদ্যোক্তাদের দ্রুত ও ভোগান্তিমুক্ত সেবা দেয়ার জন্য এই কল সেন্টার চালু করা হয়েছে বলে জানায় কোম্পানিটি।

১৬৪০২ নাম্বারে কল করে এখন হতে ইন্টারনেট সংযোগ বিষয়ে সব সেবা পাবেন তারা।

আল-আমীন দেওয়ান

ভারতে ফেইসবুকের ওয়াই-ফাই সেবা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : প্রান্তিক জনগোষ্ঠীকে অনলাইনের আওতায় আনতে এবার ভারতে এক্সপ্রেস ওয়াই-ফাই ইন্টারনেট চালু করেছে শীর্ষ সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেইসবুক। এর আগে ফ্রি বেসিকের মাধ্যমে ‘বিনামূল্যের ইন্টারনেট’ সেবা চালু করলেও সমালোচনার মুখে পড়ে সেবাটি। এটি ইন্টারনেট ডট অর্গের দ্বিতীয় প্রচেষ্ঠা।

বৃহস্পতিবার দেশটির উত্তরখন্ড, গুজরাট, রাজস্থান ও মেঘালয়ে বাণিজ্যিকভাবে এই ওয়াই-ফাই সেবা চালু করা হয়। যার মাধ্যমে লাখ লাখ গ্রাহক কম খরচে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে পারবেন।

facebook-india-express-wifi-TechShohor

দেশটির চারটি রাজ্যে নতুন এই সেবার জন্য প্রায় ৭০০ হটস্পট চালু করা হয়েছে। ভারতের পাশাপাশি বর্তমানে কেনিয়া, নাইজেরিয়া, ইন্দোনেশিয়া ও তানজানিয়াতে এক্সপ্রেস ওয়াই-ফাই প্রোগ্রাম চালু আছে।

ফেইসবুকের এশিয়ার প্যাসিফিক অঞ্চলের কানেক্টিভিটি সল্যুউশনের আঞ্চলিক প্রধান মুনিশ শেঠ জানান, নতুন এই সেবা দিতে স্থানীয় উদ্যোক্তা ও ইন্টারনেট সেবাদাতা প্রতিষ্ঠানের সাথে যৌথভাবে কাজ করছে ফেইসবুক।

একইদিনে ভারতের সবচেয়ে বড় টেলিকম অপারেটর এয়ারটেলের সাথেও চুক্তি করেছে ফেইসবুক। এই চুক্তির মাধ্যমে উভয় প্রতিষ্ঠান যৌথভাবে অতিরিক্ত ২০ হাজার ওয়াই-ফাই হটস্পট তৈরি করবে।

দিনে ১০ থেকে ২০ রুপিতে এবং মাসে ২০০ থেকে ৩০০ রুপিতে স্থানীয় উদ্যোক্তারা নতুন এই সেবার ডেটা প্যাকেজ বিক্রি করবে। অনলাইন ও অফলাইন স্টোরের মাধ্যমে গ্রাহকরা এসব প্যাকেজ কিনতে পারবেন।

ম্যাশেবল অবলম্বনে রুদ্র মাহমুদ

ইন্টারনেটের দাম নিয়ে ‘অপপ্রচার’ ঠেকানোর বিজ্ঞাপন অপারেটরগুলোর

অনন্য ইসলাম, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ইন্টারনেটের মূল্যসংক্রান্ত একটি সংবাদপত্রের প্রতিবেদনকে অপপ্রচার উল্লেখ করে সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দিচ্ছে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো।

শুক্রবারের সকল জাতীয় দৈনিকে বিজ্ঞাপনটি ছাপা হবে। মূলত বুধবার টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারনা হালিম একটি বৈঠকে অপারেটরগুলোকে এ সংক্রান্ত বিজ্ঞাপন ছাপানোর নির্দেশনা দেন।

বিজ্ঞাপনে খুচরা পর্যায়ে ইন্টারনেটের মূল্য কমানোর বিষয়ে নানা তথ্য থাকছে। যেখানে বলা হচ্ছে, ‘ইন্টারনেটের মূল্যের দিক হতে বাংলাদেশ এখন দ্বিতীয় সর্বনিম্ন  দেশ।

internet ad

অপারেটরগুলোর সংগঠন অ্যামটবের নামে যাওয়া বিজ্ঞাপনটিতে বলা হচ্ছে, থ্রিজি চালুর আগে দেশে এক এমবিপিএস গতির এক জিবি ডেটার মূল্য ছিল এক হাজার টাকা যা এখন মাত্র দুইশ টাকায় নেমে এসেছে।

২০০৯ থেকে ২০১৫ সালের মধ্যে প্রতি মেগাবাইট ডেটা ব্যবহারের খরচ ৯৩ শতাংশ কমেছে বলেও এতে বলা হয়েছে। তখন প্রতি মেগাবাইট ডেটার গড় মূল্য ছিল তিন টাকা ৮৯ পয়সা যা এখন মাত্র ২৮ পয়সা-বলছে অ্যামটব।

তারা বলছেন, ইন্টারনেটের মূল্য নির্ধারণের ক্ষেত্রে ব্যান্ডউইথের খরচের ভূমিকা অতি সামান্য।এর মূল্য-খরচ নির্ভর করে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর নেটওয়ার্কের উপর যার সঙ্গে লাইসেন্স ফি, তরঙ্গ চার্জ, নেটওয়ার্ক স্থাপনের ব্যয়, অপটিক্যাল ফাইবারের খরচ, রক্ষণাবেক্ষণ ব্যয়, চ্যানেল কমিশন ও প্রণোদনা ব্যয় রয়েছে।

এর বাইরে প্রতি এক’শ টাকা ইন্টারনেট ব্যবহারে ২১ দশমিক ৭৫ শতাংশ চলে যায় ভ্যাট, সম্পূরক শুল্ক এবং সারচার্জ হিসেবে। বিজ্ঞাপনে অপারেটরগুলো তাদের লক্ষাধিক কোটি টাকা বিনিয়োগের হিসাবও তুলে ধরেন।

ইন্টারনেটের দাম কমানোর উদ্যোগ নিলেন তারানা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  নাগরিকদের সস্তায় ইন্টারনেট দিতে এবার নিজে উদ্যোগ নিয়েছেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

বুধবার সচিবালয়ে টেলিযোগাযোগ বিভাগে মোবাইল অপারেটর, বিএসসিসিএল, আইআইজি, আইটিসি, এনটিটিএন, আইএসপিসহ ইন্টারনেট আমদানি, বিতরণ ও সেবা প্রদানকারী সকলের প্রতিনিধিত্বে এক বৈঠকে উদ্যোগ নেন।

বৈঠক শেষে সাংবাদিকদের তিনি নিজের এই সিদ্ধান্তের কথা জানান।

tarana-halim-new-TechShohor
ফাইল ছবি

আগামী ৬ মাসের মধ্যে ইন্টারনেটের এই দাম কমিয়ে গ্রাহকের একেবারে নাগালের মধ্যে আনার প্রত্যয়ের কথা জানিয়ে প্রতিমন্ত্রী বলেন, প্রয়োজনে ভ্যাট, ট্যাক্স ইত্যাদি কমিয়ে হলেও দাম কমানো হবে।

তারানা হালিম জানান, বর্তমানে দাম কমের দিক হতে বাংলাদেশ তৃতীয় অবস্থানে। এখানে প্রথমে থাকবে বাংলাদেশ।

এর আগে গত ১০ এপ্রিল  বিকালে ইয়াং বাংলার ফেইসবুক লাইভে মধ্যস্বত্বভোগীদের পারস্পরিক দোষ চাপানো ছেড়ে গ্রাহকের কাছে কম দামে ইন্টারনেট পৌঁছাতে বলেন টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘মধ্যস্বত্ব নিয়ে একটা ব্লেইম গেইম হয়। যারা স্বত্বভোগীরা আছেন তাদের নিয়ে যখনই আমরা মিটিং করি তারা বলেন আমি তো কমেই দিয়েছি কিন্তু আমার তো অন্যদের খরচ দিতে ব্যয় বাড়ছে। কেউ বলেন এনটিটিএনদের দোষ, এনটিটিএনরা বলেন আইআইজিদের দোষ আবার বলেন এমএনওদের দোষ।’

এরকম একটা ব্লেইম গেইম চলার কথা উল্লেখ করে তারানা জানান, ‘আমরা এটা বুঝতে চাই না। আমাদের বক্তব্য হচ্ছে সরকার যখন এতটা দাম কমিয়েছে, এখন এন্ড ইউজার লেভেলে আমরা তার প্রতিফলন দেখতে চাই। বিষয়টি আমরা খুব সুস্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিয়েছি।’

‘আমি সবাইকে বারবার বলেছি, অপারেটরদেরও বলেছি-এটি রাজনৈতিক সরকার, আমাদের জনগণের সেবা করতে হবে, ইন্টারনেটের দাম কমান।’

তিনি জানান, ‘বিটিআরসি আইটিউর সঙ্গে বিভিন্ন বিষয় পরীক্ষা করছে কীভাবে মধ্যস্বত্বগুলো কমিয়ে আনা যায়। কমিয়ে আনলে কিন্তু খরচটাও কমে আসবে এবং এন্ড ইউজার লেভেলে গিয়ে আপনাদের খরচটি কম পড়বে। এটি আমরা দেখছি।’

‘এটি হয়ত একেবারে ঝট করে হবে না কিন্তু মাঝে যে বিষয়গুলো যুক্ত আছে সেগুলোও ভাবতে হবে। কারণ এই খরচগুলো যুক্ত হয়। তারপরও কিছুটা যেন কমে সে বিষয়ে আমাদের অবস্থান খুব শক্ত।’

আল-আমীন দেওয়ান

ব্যক্তিস্বাধীনতা নিশ্চিত করেই সাইবার আইন আসছে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ব্যক্তিস্বাধীনতা নিশ্চিত করেই অল্প কয়েক দিনের মধ্যে সাইবার আইন তৈরির কাজ শেষ হচ্ছে বলে জানিয়েছেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু।

সোমবার রাজধানীর বাংলাদেশ প্রেস ইন্সটিটিউটের সেমিনার হলে ‘বাংলাদেশ কনসালটেশন অন এপিআরআইজিএফ ২০১৭’ শীর্ষক এক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তৃতায় এ কথা বলেন ইনু্।

চলতি বছরের ২৬-২৯ জুলাই ব্যাংককে অনুষ্ঠিত হতে যাওয়া ‘এশিয়া-প্যাসিফিক রিজিওনাল ইন্টারনেট গভর্ন্যান্স ফোরাম (এপিআরআইজিএফ)’ তে অংশগ্রহণের প্রস্তুতি হিসেবে বাংলাদেশ ইন্টারনেট গভর্ন্যান্স ফোরাম (বিআইজিএফ) এই সভার আয়োজন করে।

অংশীজনের অংশগ্রহণের মধ্য দিয়ে দেশে সাইবার আইন, সাইবার পুলিশ ও সাইবার আইন বিষেশজ্ঞ তৈরিতে প্রশিক্ষণ কর্মসূচি হাতের নেয়ার গুরুত্ব তুলে ধরে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘ব্যক্তিগত স্বাধীনতা নিশ্চিত করেই অল্প দিনের মধ্যেই সাইবার আইন তৈরির কাজ শেষ হবে। আর আগামী ২ মাসের মধ্যে আসবে সম্প্রচার আইন।’

BIJF.techshohor

সভায় দেশে ইন্টারনেটের দক্ষ ব্যবস্থাপনায় তথ্য মন্ত্রণালয়, টেলিযোগাযোগ বিভাগ, তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগসহ সংশ্লিষ্টদের নিয়ে জাতীয় কমিটি গঠনের পরামর্শ দেন তিনি। ইনু বাংলাদেশ ইন্টারনেট গভর্ণেন্স ফোরাম (বিআইজিএফ) চেয়ারপার্সনও।

বাক-স্বাধীনতার মতো ইন্টারনেটকে মৌলিক অধিকার হিসেবে সংবিধানে অন্তর্ভূক্তির দাবি জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, টেকসই উন্নয়নের জন্য নিরাপদ ও বিনামূল্যে ইন্টারনেট জরুরি। কারণ, এটি জনগণের সক্ষমতা বৃদ্ধিমূলক প্রযুক্তি। একইসঙ্গে সবুজ, টেকসই, ডিজিটাল এ ত্রিমাত্রিক উন্নয়নের জন্য ইন্টারনেটকে আরও জনমুখী করতে হবে।

সভায় বিআইজিএফ মহাসচিব আব্দুল হক অনু ভিডিও প্রেজেন্টেশনের মাধ্যমে ডটবাংলার স্বীকৃতিতে সংগঠনটির দীর্ঘ মেয়াদী আন্দোলনের কথা তুলে ধরেন।

তিনি ডটবিডি ও ডটবাংলা সহজলভ্য ও সহজপ্রাপ্য করার দাবি জানিয়ে বলেন, ইন্টারনেটের উপযোগিতা বাড়াতে না পারলে বাংলাদেশ পিছিয়ে পড়বে। এ কারণে সবাইকে সমন্বিতভাবে এগিয়ে আসার আহ্বান জানান সংগঠনটির মহাসচিব।

বাংলাদেশ এনজিওস নেটওয়ার্ক ফর রেডিও অ্যান্ড কমিউনিকেশন (বিএনএনআরসি)-এর প্রধান নির্বাহী এএইচএম বজলুর রহমানের সঞ্চালনায় সভায় আরও বক্তব্য রাখেন, বাংলাদেশ কম্পিউটার সোসাইটির সভাপতি অধ্যাপক ড: এম মাহফুজুল ইসলাম, জাতিসংঘের ইন্টারনেট গর্ভনেন্স ফোরামে (আইজিএফ) মাল্টি স্টেকহোল্ডার অ্যাডভাইজারি গ্রুপের সদস্য ও বাংলাদেশ নেটওয়ার্ক অপারেটরস গ্রুপের (বিডিনগ) ট্রাস্টি চেয়ারম্যান সুমন আহমেদ সাবির, মেট্রোনেট লিমিটেডের সৈয়দ আলমাস কবির, ইন্টারনেট সোসাইটির সদস্য মোঃ জাহাঙ্গীর হোসেন, আইএসপিএবি’র সাধারণ সম্পাদক এমদাদুল হক, বিআইজিএফের নির্বাহী সদস্য মোঃ সাজ্জাদ হোসেন, সুশীল প্রতিনিধি খান মোহাম্মদ কায়সার, বাংলা উইকিপিডিয়া’র প্রশাসক নূরুন্নবী চৌধুরী, বিটিআরসির প্রতিনিধি ইশতিয়াক আরিফ।

আল-আমীন দেওয়ান

জিপির ৪২% গ্রাহক ইন্টারনেটে যুক্ত

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল অপারেটর গ্রামীফোনের মোট গ্রাহকের ৪২ দশমিক ২ শতাংশ ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। সেই হিসাবে দেশসেরা অপারেটরটির মোট ইন্টারনেট গ্রাহক এখন দুই কোটি ৫২ লাখ।

অপারেটরটির এই গ্রাহক তালিকায় শুধু গত জানুয়ারি থেকে মার্চ প্রান্তিকে যুক্ত হয়েছে আরও সাত লাখ ইন্টারনেট গ্রাহক।

gp-ecaono-techshohor

গ্রামীণফোন প্রকাশিত প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক বিবরণীতে অপারেটরটি জানায়, গত বছরের একই সময়ের তুলনায় এই সময়ে ইন্টারনেট ডেটা থেকে আয় যেমন বেড়েছে তেমনি ইন্টারনেট কেন্দ্রিক প্রতিটি সেবা থেকে আয় আগের চেয়ে বেড়েছে।

প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক বিবরণী থেকে দেখা যায়, গ্রামীণফোন গত বছরের তুলনায় এ বছর ডাটা থেকে রাজস্ব ৬৪ দশমিক ৯ শতাংশ বাড়াতে সক্ষম হয়েছে।

প্রথম প্রান্তিকে অপারেটরটি মোট রাজস্ব করেছে তিন হাজার ৬০ কোটি টাকা। যেখান থেকে তাদের মুনাফা হয়েছে ৬৬০ কোটি টাকা।

ইমরান হোসেন মিলন

পানির মতো ইন্টারনেটেও ফিল্টার করতে হবে : পলক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : তথ্যপ্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, পানির অপর নাম জীবন হলেও সব পানি আমরা খাই না। বিশুদ্ধ পানি খাই। এজন্য দরকার ফিল্টারিং। তেমনি ইন্টারনেটও ফিল্টার করে ব্যবহার করতে হবে। তা না হলে জীবন হুমকীর মুখে পড়বে।

বুধবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট মিলনায়তনে ‘সাইবার সিকিউরিটি অ্যাওয়ারনেস ফর উইমেন এমপাওয়ারমেন্ট’ শীর্ষক এক কর্মশালার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রতিমন্ত্রী এসব কথা বলেন।

এই কর্মসূচীর আওতায় দেশব্যাপী আট বিভাগের ৪০টি স্কুল ও কলেজের প্রায় ১০ হাজার ছাত্রীকে সাইবার সিকিউরিটি নিয়ে সচেতন করা হবে। সরকারের তথ্যপ্রযুক্তি বিভাগের আওতাধীন কন্ট্রোলার অফ সার্টিফায়িং অথোরিটিজ (সিসিএ) দেশব্যাপী এই কর্মশালার আয়োজন করেছে।

Internet-Filter-Techshohor

জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, নির্দিষ্ট পরিসংখ্যান না থাকলেও, পুলিশ ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর বিভিন্ন সংস্থার সঙ্গে যৌথ আলোচনায় দেখা গেছে, দেশে সাইবার অপরাধের শিকার মানুষের বড় অংশটি অল্পবয়সী নারী বা কিশোরীরা। এসব অল্প বয়সী মেয়ের আক্রন্ত হবার ঝুঁকিও থাকে বেশি।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, অল্প বয়সী মেয়েরা যখন কেউ সাইবার অপরাধের শিকার হয়, অনেক সময় তারা বুঝতে পারেনা কি করবে, কাকে জানাবে। অনেকে এমনকি আদৌ কাউকে জানায়ও না। নীরবে হয়রানির শিকার হতে থাকে। এসব হয়রানি ঠেকাতে এবং সাইবার অপরাধের শিকার হলে করনীয় সম্পর্কে সচেতন করতেই স্কুল ছাত্রীদের প্রশিক্ষণ দেওয়ার উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

কর্মশালা থেকে পাওয়া তথ্য ও উপাত্ত বিশ্লেষণ করে আগামীতে সাইবার অপরাধ মোকাবেলায় নিজেরাই আরো বেশি কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করতে পারবে বলে বলেন তিনি।

উদ্বোধন পর্ব শেষে কর্মশালায় বিভিন্ন স্কুল কলেজের ছয় শতাধিক ছাত্রী অংশ নেয়।

সিসিএ-এর নিয়ন্ত্রক আবুল মানসুর মোহাম্মদ সারফ উদ্দিনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রো-উপাচার্য প্রফেসর মো. আখতারুজ্জামান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এস এম ওয়াহিদুজ্জামান এবং ফোর ডি কমিউনিকেশনস লিমিটেডের ব্যাবস্থাপনা পরিচালক আবদুল্লাহ আল ইমরান। অনুষ্ঠানে শুভেচ্ছা বক্তব্য রাখেন সিসিএ-এর উপ-নিয়ন্ত্রক আবদুল্লাহ মাহমুদ ফারুক, অধ্যাপক কাজী শরিফুল ইসলাম, বিআইজেএফএর সাবেক সভাপতি মোহাম্মদ কাওছার উদ্দীন।

কর্মশালায় অংশগ্রহণকারীরা সাইবার অপরাধ ও সংশ্লিষ্ট আইনের ব্যখ্যা, সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে নিরাপদে বিচরণের কৌশল সমূহ, অপরাধ সংঘটিত হলে তা থেকে পরিত্রানের উপায়, সহায়তা পাওয়ার জন্য সংশিষ্ট দপ্তর সমুহের নাম্বার, অভিযোগ দাখিল করার সুনির্দিষ্ট পদ্ধতি এবং পরিত্রাণের উপায় সম্পর্কে সম্মুখ ধারণা লাভ করেন।

কর্মশালা আয়োজনে সহযোগী ছিল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইটি সোসাইটি (ডিইউআইটিএস)।

ইমরান হোসেন মিলন

ইন্টারনেটে ভ্যাট চায় না সরকারও

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ইন্টারনেটে ভ্যাট চায় না সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের সর্বোচ্চ ফোরাম ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্স।

আর এই ভ্যাট কমাতে বা অবলোপন করা বিষয়ে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডকে যথাযথ ব্যবস্থা নিতে নির্দেশনা দিয়েছে টাস্কফোর্স নির্বাহী কমিটি। যেখানে বাস্তবায়নকারী হিসেবে অর্থ মন্ত্রণালয়কেও উল্লেখ করা হয়েছে।

গত ২৭ মার্চ ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্সের নির্বাহী কমিটির সভায় সদস্যরা ইন্টারনেটের বিলের উপর যে ১৫ শতাংশ ভ্যাট আরোপ করা হয় তা কমানো বা অবলোপন করার আলোচনা করেন। বিষয়টি উত্থাপন করেন তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার।

এ সময় সভায় উপস্থিত জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সদস্য (বোর্ড প্রশাসন) এস এম আশফাক হুসেন জানান, ‘এ বিষয়টি ভ্যাট আইন দ্বারা নির্ধারিত। তবে নতুন ভ্যাট আইনটি ২০১৭ সালের জুলাই হতে কার্যকর হবে।’

এরপর নির্বাহী কমিটি রাজস্ব বোর্ডকে এই ভ্যাট কমানো বা অবলোপনের নির্দেশনা দেন। টাস্কফোর্সের ৭ম ওই সভায় সভাপতিত্ব করেন প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. কামাল আবদুল নাসের চৌধুরী।

ইন্টারনেটের উপর ভ্যাট তুলে দেয়ার দাবি সাধারণ মানুষসহ দেশের তথ্যপ্রযুক্তি ও টেলিকম খাতের সকল ব্যবসায়ী-উদ্যোক্তাদের।

internet service providers-techshohor

দেশের সফটওয়্যার খাতের শীর্ষ সংগঠন বেসিস-এর সভাপতি মোস্তাফা জব্বার টেকশহরডটকমকে জানান, ডিজিটাল বাংলাদেশ কর্মসূচি বাস্তবায়নে ইন্টারনেট হচ্ছে মহাসড়ক। এই মহাসড়কে টোল থাকা উচিত নয়। জনগণের ইন্টারনেট ব্যবহারে কোনোভাবেই ভ্যাট থাকবে না। এই ভ্যাট তুলে দেয়ার দাবি দীর্ঘদিনের এবং সকলের।

এই নির্দেশনার জন্য টাস্কফোর্সকে ধন্যবাদ জানিয়ে তিনি বলেন, এখন বাস্তবায়নকারীরা এর গুরুত্ব বুঝবেন আশা করছি।

অ্যাসোসিয়েশন অব মোবাইল টেলিকমিউনিকেশনস অপারেটরস অব বাংলাদেশ (অ্যামটব) এর মহাসচিব এবং প্রধান নির্বাহী টিআইএম নূরুল কবীর টেকশহরডটকমকে জানান, ইন্টারনেট ব্যবহারের ৯৫ শতাংশ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে হয়ে থাকে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে বিভিন্ন ধাপে ভ্যাট দেয়া হচ্ছে। যার চাপ প্রান্তিক মানুষের উপর পড়ছে। মোবাইল ইন্টারনেটের উপর ভ্যাট ও ট্যাক্স রহিত করা উচিত।

ইন্টারনেট সার্ভিস প্রোভাইডার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (আইএসপিএবি) এর সভাপতি এম এ হাকিম টেকশহরডটকমকে বলেন, ইন্টারনেট হতে সকল ভ্যাট-ট্যাক্স উঠিয়ে দেয়া হোক। এই দাবি দীর্ঘদিনের। যদি একান্তই ভ্যাট একেবারে তুলে না নেয়া যায় তাহলে অন্যান্য ইউটিলিটি সাভিসে যেমন নেয়া হয় ইন্টারনেটের ক্ষেত্রেও তেমন নেয়া হোক।

বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কল সেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বাক্য) এর সাধারণ সম্পাদক তৌহিদ হোসেন টেকশহরডটকমকে জানান,  আউটসোর্সিং সেবার ক্ষেত্রে অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয় ইন্টারনেট। এখন এই ইন্টারনেট কিনতে হচ্ছে ১৫ শতাংশ ভ্যাট দিয়ে আর ক্লায়েন্টের কাছে সেবা হিসেবে নিতে পারছি সাড়ে ৪ শতাংশ। মওকুফ করলে খুবই ভাল কিন্তু যদি তা না হয় তাহলে এটা অন্তত সাড়ে ৪ শতাংশ করা হোক।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) এর পরিচালক শাহিদ-উল-মুনীর টেকশহরডটকমকে জানান, ইন্টারনেটের ভ্যাট মুক্তের দাবির বিকল্প নেই। দেশের তথ্যপ্রযুক্তি ইকোসিস্টেমে এই ইন্টারনেটের ভ্যাট অনেককিছুর খরচ বাড়িয়ে দেয়। এটি থাকা উচিত নয়।

ই-কমার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ই-ক্যাব) এর সভাপতি রাজীব আহমেদ টেকশহরডটকমকে জানান, ই-কমার্স খাতের অন্যতম ভিত্তি হল এই ইন্টারনেট। সেখানে ভ্যাট একটা প্রতিবন্ধকতা হিসেবেই আছে। এটি তুলে নিলে ই-কমার্সের সম্প্রসারণ দ্রুতগতির হবে।

ইন্টারনেটের ভ্যাট-ট্যাক্স অব্যাহতি চায় অপারেটরা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গ্রাহক প্রান্তে ইন্টারনেট ব্যবহারের উপর থেকে সব ধরনের ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহারের দাবি জানিয়েছে মোবাইল অপারেটররা।

মোবাইল ফোন অপারেটরদের সংগঠন অ্যামটব বলছে, এই ভ্যাট-ট্যাক্স ডিজিটাল বাংলাদেশ বাস্তবায়নের অন্তরায় হিসেবে কাজ করছে। তাই এটি প্রত্যাহার করা উচিত।

সংগঠনটির মহাসচিব টিআইএম নূরুল কবির বলেন, মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়তে সরকারকে সর্বোচ্চ সহযোগিতা করছে। ইন্টারনেটের উপর আরোপিত ভ্যাট-ট্যাক্স এক্ষেত্রে প্রধান অন্তরায়। এই অন্তরায় রেখে ২০২১ সালের মধ্যে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ ভিশন বাস্তবায়ন সম্ভব নয়।

NBR-AMTOb-Pre-budget-Techshohor

অ্যামটব বলছে, বর্তমানে দেশের মাত্র ১৮ শতাংশ লোক ইন্টারনেট ব্যবহার করেন। যদিও কার্যকরী সংযোগ রয়েছে ৬ কোটি ৭২ লাখ। আর মোবাইল ফোন ব্যবহার করে ৫৪ শতাংশ মানুষ। যা কার্যকর সংযোগের হিসাবে ১৩ কোটি। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারের উপর ১৫ শতাংশ ভ্যাট, ৫ শতাংশ ট্যাক্স এবং এক শতাংশ সারচার্জ রয়েছে।

মঙ্গলবার জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের(এনবিআর) সঙ্গে ২০১৭-১৮ অর্থবছরের প্রাক-বাজেট আলোচনার অ্যামটবের পক্ষ থেকে এই দাবি করা হয়েছে। প্রাক-বাজেট আলোচনায় মোবাইল অপারেটরদের প্রধান নির্বাহী এবং অন্যান্য অপারেটরের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। এছাড়াও এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমানসহ অন্যান্য কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আলোচনায় অ্যামটবের পক্ষ থেকে ইন্টারনেটের উপর ভ্যাট-ট্যাক্স প্রত্যাহারের পাশাপাশি আরও কয়েকটি দাবি উত্থাপন করা হয়। এসব দাবির মধ্যে রয়েছে, অন্য কোনো খাতে আর ভ্যাট-ট্যাক্স যুক্ত না করা। সিম ও রিম কার্ডের উপর থাকা ১০০ টাকা ট্যাক্স প্রত্যাহার করার কথা বলেন বক্তারা।

এছাড়াও জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের সঙ্গে সরকারের বেশকিছু অমিমাংসিত বিষয় রয়েছে। যার প্রতিটির সঙ্গে হাজার কোটি টাকা জড়িত, সেগুলো সমাধানের দাবি জানায় অ্যামটব। নূরুল কবির বলেন, এসব সমাধান করা না গেলে বিদেশি এবং দেশি বিনিয়োগকারীরা নতুন বিষয়ে বা খাতে বিনিয়োগ করতে বাড়তি ঝুঁকি অনুভব করছে।

তিনি বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশের চেয়ে অনেক কম মূল্যে ভয়েজ ও ইন্টারনেট ডাটা ব্যবহার করতে পারেন ব্যবহারকারীরা। তাই কলরেট ও ডেটা চার্জ কমাতে অপারেটরদের আরও কিছু তরঙ্গ বরাদ্দ দেওয়ার আবেদন করেন তিনি। যেগুলো সামনের বাজেটে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য এনবিআরের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন।

অ্যামটবের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে এনবিআর চেয়ারম্যান মো. নজিবুর রহমান বলেন, এনবিআর রাজস্ব আহরণে কাজ করে। ব্যবসা, বিনিয়োগবান্ধব ও ভোক্তাদের কথা মাথায় রেখে তারা বিভিন্ন উদ্যোগ নেয়। এরই অংশ হিসেবে বিভিন্ন সেক্টরের সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে আলাপ আলোচনা চলছে। অ্যামটবের দাবিগুলো বিবেচনায় এনে তা বাজেট প্রস্তাবে যোগ করা হবে।

ইমরান হোসেন মিলন