ফোরজি পরীক্ষায় ৯০ এমবিপিএসের বেশি গতি পেয়েছে রবি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইল অপারেটর রবি ও এরিকসন রাজধানীতে এলটিই (লং টার্ম ইভোল্যুয়েশন) প্রযুক্তি বা ফোরজি’র পরীক্ষা চালিয়েছে।

পরীক্ষায় এই প্রযুক্তিতে প্রতি সেকেন্ডে ৯০ মেগাবাইটের বেশি গতিতে ইন্টারনেট ব্যবহার করতে সক্ষম হয়েছে বলে জানিয়েছে। এলটিই সেবা প্রদানের প্রস্তুতির পদক্ষেপ হিসেবে পরীক্ষাটি চালিয়েছে অপারেটরটি।

একই সাথে এটি এরিকসন বাংলাদেশের জন্যও একটি মাইলফলক অর্জন এবং বাংলাদেশের টেলিযোগাযোগ বাজার যে এলটিই প্রযুক্তির যুগে প্রবেশ করতে যাচ্ছে তারই প্রতিফলন বলে বিজ্ঞপ্তিতে জানিয়েছে রবি।

Robi-4g-erricson-techshohor

পরীক্ষাটি ১৮০০ ও ২১০০ মেগাহার্জ ব্র্যান্ডের সমন্বয়ে সর্বাধুনিক মোবাইল ফোন হ্যান্ডসেটে পরিচালনা হয়েছে। এসময় ব্যবহার করা হয়েছে রেডিও আরআরইউএস ১২’র সহযোগে সর্বাধুনিক এরিকসন এলটিই ১৬বি সল্যুশন এবং বেসব্যান্ড ৫২১৬।  শিগগিরই দেশের অন্যান্য শহরে এ পরীক্ষামূলক কার্যক্রম চালাবে এরিকসন ও রবি।

হাইডেফিনেশন (এইচডি) টিভি ও ভিডিও কনফারেন্সিংর মতো ব্রডব্যান্ড অ্যাপ্লিকেশন সেবাগুলো গ্রহণের ক্ষেত্রে ৪জি সেবা কী ভূমিকা রাখতে পারে সে দিকটি মাথায় রেখেই এই প্রস্তুতিমূলক পরীক্ষাটি চালানো হয়েছে।

রবি আজিয়াটা লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক এবং প্রধান নির্বাহী মাহতাব উদ্দিন আহমেদ বলেন, ফোরজি বা এলটিই প্রযুক্তি গ্রহণের জন্য উপযোগী স্মার্টফোন ব্যবহারের হার কম থাকার মতো কিছু সীমাবদ্ধতা সত্ত্বেও ইন্টারনেটের উচ্চগতির জন্য গ্রাহকদের ক্রমবর্ধমান চাহিদাকে আমরা সাধুবাদ জানাই। যা এই প্রযুক্তির মাধ্যমেই পূরণ করা সম্ভব।

তিনি বলেন, ফোরজি প্রযুক্তি গ্রহণের জন্য সরকার লাইসেন্স প্রদানের ক্ষেত্রে যে কর্মকাঠামোর প্রস্তাব করেছে তা এই ব্যবসা প্রসারের জন্য অনুকূল নয়। কিন্তু গ্রাহক চাহিদার কথা বিবেচনা করে আমরা এ প্রযুক্তি চালু করতে আগ্রহী।

রবি নেটওয়ার্কে ফোরজি সেবার পরীক্ষামূলক কার্যক্রম সে আন্তরিকতারই প্রতিফলন। তাই ফোরজি প্রযুক্তির ব্যবসা প্রসারের লক্ষ্যে সরকার অনুগ্রহ করে লাইসেন্সের কর্মকাঠামো পরিবর্তন করবে বলে তাদের প্রত্যাশা।

হেড অব এরিকসন বাংলাদেশের রাজেন্দ্র পানগ্রেকর বলেন, এ পরীক্ষা এলটিই যুগে রবি ও এরিকসনের দীর্ঘমেয়াদী অংশীদ্বারীত্বের প্রতিফলন। আমরা আমাদের অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও অভিজ্ঞতা নিয়ে এলটিই সেবা প্রদানে রবি’র অগ্রযাত্রার সহযোগী, যার ফলে তারা আরো মানসম্মত ও অত্যাধুনিক গ্রাহকসেবা প্রদান করতে পারবে।

এলটিই প্রযুক্তিতে বাজারের সেরা এরিকসন। যুক্তরাষ্ট্র, জাপান, দক্ষিণ কোরিয়া, অস্ট্রেলিয়া ও কানাডাসহ এলটিই প্রযুক্তি’র উচ্চ ব্যবহারকারী সবগুলো দেশে এরিকসন তাদের সেবা প্রদান করছে। বিশ্বজুড়ে এলটিই প্রযুক্তি ব্যবহারকারী শীর্ষ ১০টি এলটিই অপারেটরেরই এরিকসন ব্যবহার করছে।

ইমরান হোসেন মিলন

স্পুফিং নিয়ে হুয়াওয়ে-এরিকসনের সঙ্গে বসছে বিটিআরসি

জামান আশরাফ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : স্পুফিং নিয়ন্ত্রণে বিশ্বের অন্যতম তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য নির্মাতা দুই কোম্পানি হুয়াওয়ে ও এরিকসনের সঙ্গে বৈঠকে বসছে টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

এতে স্পুফিং বিষয়ে কোম্পানি দুটির কাছ থেকে করণীয় সম্পর্কে ধারণা নিতে চায় বিটিআরসি। একই সঙ্গে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিতে তাদের সহযোগিতাও চাইবে কমিশন।

বুধবার এই বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে। বিটিআরসির সংশ্লিষ্ট বিভাগের এক কর্মকর্তা এসব বিষয় নিশ্চিত করেছেন।

তিনি বলেন, ‘বিষয়টি নিয়ে আমরা নানা চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা করছি। অনেক পদক্ষেপ নেওয়া হলেও কিছুতেই কিছুই করা যাচ্ছে না। আর সে কারণেই হুয়াওয়ে এবং এরিকসনকে ডাকার সিদ্ধান্ত।’

‘কোম্পানি দুটি বিশ্বের সর্বাধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে কাজ করে। আর সমস্যা মোকাবেলায় তাদের গবেষণা ও উদ্ভাবন রয়েছে।’- সে কারণেই তাদেরকে ডাকা হয়েছে বলেও জানান ওই কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, ‘প্রয়োজনে তাদের কাছ থেকে প্রযুক্তিগত সহায়তাও নেওয়া হবে।’

উন্নত বিশ্ব কীভাবে এই সমস্যার সমাধান করেছে সেটি এই বৈঠক থেকে বুঝতে চায় বিটিআরসি-বলেন ওই কর্মকর্তা।

spoofing.techshohor

কারও নাম্বার কপি করে করা কলকেই প্রযুক্তির ভাষায় স্পুফিং বলা হয়। এটি হলে প্রতারণার বিষয়টি সহজ হয়ে যায়। এই স্পুফিং ঠেকাতে মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোকে নিজস্ব সফটওয়্যার ডেভেলপ করতে বলা হলেও তেমন অগ্রগতি দেখা যাচ্ছে না।

এসব উদ্যোগের সঙ্গে গ্রাহকদের সচেতন করতে বিভিন্ন কার্যক্রম বাস্তবায়ন করতে যাচ্ছে বিটিআরসি।

চলতি মাসের শুরুতে টেলিযোগাযোগ বিভাগের এক বৈঠকেও প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয় এ বিষয়ে বিশেষ গুরুত্বারোপ করেন।

এক আলোচনায় বিটিআরসির চেয়ারম্যান ড. শাহজাহান মাহমুদ বিষয়টি নিয়ে বলেন, আইভিপি-৬ ব্যবহার শুরু হলে এটি সনাক্ত করা সম্ভব হবে। তখন এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেয়া যাবে।

বর্তমানে বাংলাদেশ আইভিপি-৪ ব্যবহার করছে।

দেশে বেশির ভাগ ক্ষেত্রেই এখন ইন্টারনেট প্রটোকলের আইপিভি ফোর ভার্সন ব্যবহার করা হয়। এর সীমাবদ্ধতার কারণে দেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীর একটি বড় অংশ কোনো আসল আইপি ব্যবহার করেন না। তাদেরকে একটি আসল আইপি থেকে অনেকগুলো প্রাইভেট আইপি তৈরি করে দেওয়া হয়। এতে দেশের ভেতরে রিয়েল আইপি পর্যন্ত ট্র্যাক করা যায় কিন্তু প্রাইভেট পর্যন্ত যাওয়া যায় না।

৫ বছরে ফোরজির গ্রাহক কোটি ছাড়াবে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আগামী বছরের মধ্যে অপারেটরগুলো ফোরজি প্রযুক্তির মোবাইল সেবা দেওয়া শুরু করতে পারলে ২০২১ সালের মধ্যে দেশে উন্নত এ প্রযুক্তির গ্রাহক সংখ্যা এক কোটি ২০ লাখ পেরিয়ে যাবে।

ঢাকায় গত রোবাবর প্রথমবারের মতো আয়োজিত এলটিই সামিটের একটি অধিবেশনে মূল প্রবন্ধ উপস্থাপনকালে এরিকসনের দক্ষিণ এশিয়া ও ওসেনিয়া বিষয়ক সিনিয়র কনসালটেন্ট জো গ্রান্ড এমন তথ্য তুলে ধরেন।

মোবাইল ফোন অপারেটরগুলো সংগঠন জিএসএমএ ইন্টেলিজেন্সেরে সূত্র ব্যবহার করে এ উপাত্ত তুলে ধরা হয়।

4G-techshohor

ওই পরিসংখ্যান বিশ্লেষণ করে ওই কর্মকর্তা বলেন, ২০২১ সালে বাংলাদেশে থ্রিজি সংযোগ হবে ৯ কোটি ৪০ লাখ। থ্রিজি ও ফোরজি’র বাইরে থেকে যাবে আরও ৬ কোটি ৬০ লাখ সংযোগ।

ওই সময় দেশের জনসংখ্যা ও মোবাইল বা ইন্টারনেট সংযোগের সংখ্যাও সমান হয়ে যেতে পারে বলে পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে এ প্রবন্ধে।

জো আরও জানান, বর্তমানে দেশে আড়াই কোটি থ্রিজি সংযোগ রয়েছে। টুজি সংযোগের সংখ্যা প্রায় ১০ কোটি।

তার মতে, এমন পরিস্থিতিতে ফোর জি সেবা দেওয়ার অনুমোদন পেলেই রাতারাতি অন্তত শহরের গ্রাহক সংখ্যার হিসাব বদলে যাবে।

প্রবন্ধের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৩ সালে থ্রিজি সেবা চালুর আগে বাংলাদেশের একজন গ্রাহক মাসে গড়ে ৪৬ এমবি ডেটা ব্যবহার করতেন। এখন সেটা চলে এসেছে ৪৪৬ এমবিতে।

ফোরজি প্রযুক্তির সেবা চালু হলে চোখের পলকেই তা এক জিবি পেরিয়ে যাবে।

এরিকসনের নতুন প্রধান একহোম

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এক সময়ের মোবাইল ফোন প্রস্তুতকারক ও বর্তমানে টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক যন্ত্রাংশ নিমার্তা প্রতিষ্ঠান এরিকসনের প্রধান নিবার্হী নিযুক্ত হয়েছেন বোরিয়ে একহোম।

চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ে আগের সিইও হ্যান্স ভেস্টবার্গকে অব্যাহতি দেওয়ার পর থেকেই নতুন প্রধান নিবার্হী খুঁজছিল সুইডেনভিত্তিক কোম্পানিটি।

বোরিয়ে একহোম এরিকসনের প্রধান নিবার্হী হওয়ার খবরে এটির শেয়ারদর ৩ শতাংশ বেড়েছে।

ছবি:গুগল

একহোম ২০০৫ থেকে ২০১৫ সাল পর্যন্ত ইনভেস্টর এবি নামের একটি প্রতিষ্ঠানের সিইও ছিলেন। নোভেরা ক্যাপিটাল ও ম্যাকিংনসে অ্যান্ড কোম্পানিরও গুরুত্বপূর্ণ পদে দায়িত্ব পালন করেন।

প্রধান নিবার্হী হওয়ার পরে একহোম জানান, তিনি এরিকসনকে এগিয়ে নিতে কাজ করবেন। বিশেষ করে ফাইভজি নেটওয়ার্ক ও উন্নত প্রযুক্তির দিকে বেশি গুরুত্ব দেবেন।

চলতি বছর জুলাইতে হ্যান্স ভেস্টবার্গকের নেতৃত্ব, দায়িত্বশীলতা ও বেতন নিয়ে সুইডেনের সংবাদ মাধ্যমগুলোতে প্রশ্ন ওঠার মাস খানেক পরেই তাকে অব্যাহতি দেওয়া হয়।

এ ছাড়া এপ্রিলে একদিনে কোম্পানির শেয়ার ১৫ শতাংশ কমে। সবমিলে চলতি বছরে প্রায় ২১ শতাংশ শেয়ারদর কমেছিল এরিকসনের।

ইয়াহু নিউজ অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

এরিকসন প্রধান নির্বাহীকে অব্যাহতি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সুইডেনের মোবাইল টেলিকম গিয়ার নির্মাতা এরিকসন প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা হ্যান্স ভেস্টবার্গকে অব্যাহতি দিয়েছে। সোমবার আনুষ্ঠানিক ঘোষনার মাধ্যমে কোম্পানির চেয়ারম্যান লেইফ জোহানসহ এই কথা জানান।

নেতৃত্ব, দায়িত্বশীলতার ও বেতন নিয়ে সুইডেনের সংবাদ মাধ্যমগুলোতে প্রশ্ন উঠার মাস খানেক পরেই কোম্পানি এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে। গত এপ্রিলে একদিনে কোম্পানির শেয়ার ১৫ শতাংশ কমে যায়। সবমিলিয়ে এই বছরে প্রায় ২১ শতাংশ শেয়ার কমেছে এরিকসনের।

Ericsson sacks CEO Hans Vestberg-2-TechShohor

জোহানসন জানান, আমরা ইতিমধ্যেই নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা খুঁজছি। কোম্পানির ভিতরের ও বাইরের আবেদনকারীদের মধ্য থেকে যাচাই-বাছাইয়ের মাধ্যমে নতুন প্রধান নির্বাহী পেতে কয়েক মাস সময় লাগতে পারে।

তিনি আরও বলেন, যদি সম্ভব হয় তাহলে যার তথ্যপ্রযুক্তিতে ভালো অভিজ্ঞতা ও নেতৃত্ব দেওয়ার গুনাবলী রয়েছে এমনই কাউকেই নির্বাচিত করা হবে।

নর্দান ট্রাস্ট ক্যাপিটাল মার্কেটস এর হেড অব টিএমটি রিসার্চ নেইল কাম্পলিং বলেন, যদিও নতুন প্রধান নির্বাহী নিয়োগের বিষয়ে কোম্পানির দ্রুত সমাধান বা ব্যাকআপ পরিকল্পনা নেই, তার পরেও হ্যান্সের অব্যাহতি কোম্পানিকে বাজারে সামনের দিকে এগিয়ে নেওয়ার প্রথম ধাপ।

বিশ্লেষকরা বলছেন, খরচ কমানো ও অধিগ্রহণের মাধ্যমে নকিয়া ও হুয়াওয়ের সাথে টেক্কা দিতে সমর্থ হতে পারে এরিকসন।

টিওই অবলম্বনে রুদ্র মাহমুদ

স্বল্পমূল্যের স্মার্টফোন নিয়ে তারানাকে এরিকসনের মিথ্যা আশ্বাস

আল-আমীন দেওয়ান, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশে মোবাইল ও চিপ তৈরির কারখানা খোলার বিষয়ে ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিমকে মিথ্যা আশ্বাস দিয়েছে এরিকসন।

গত ৭ ফেব্রুয়ারি নিজের ভেরিফাইড ফেইসবুকে এক স্ট্যাটাসে তারানা লিখেন, ‘ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগ সর্বদা গ্রাহক সেবা ও সন্তুষ্টির জন্য কাজ করছে। এজন্য আমরা এখন দেশের সকল জনগণের হাতে হাতে কমমূল্যে আধুনিক প্রযুক্তির মান সম্পন্ন স্মার্টফোন ও উচ্চ গতিসম্পন্ন ইন্টারনেট পৌঁছে দেওয়ার জন্য কাজ করে চলেছি।’

‘সে লক্ষ্যে আমি “Ericsson/এরিক্সন” কোম্পানির সাথে কথা বলেছি। তারা আমাদের দেশে একটি মোবাইল ও চিপ তৈরি করার কারখানা খুলতে আগ্রহী যেখান থেকে আমাদের দেশের চাহিদা অনুযায়ী মোবাইল ফোন উৎপাদন করতে পারবে এবং দেশের ছেলেমেয়েদের কর্মসংস্থানও সৃষ্টি হবে।’

এরপর থেকে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি খাতের নীতি নির্ধারক ও সংশ্লিষ্টরা বিস্মিত হন। কারণ এরিকসন বেশ কয়েক বছর আগেই মোবাইল ও চিপ তৈরির ব্যবসা ছেড়ে দিয়েছে। বাংলাদেশে এ ধরণের কারখানা তারা কীভাবে খুলতে পারে? সংশ্লিষ্ট খাতটির দেশীয় উদ্যোক্তারাও বিষয়টি নিয়ে বিভ্রান্তিতে পড়েছেন।

এলএম এরিকসন বাংলাদেশ লিমিটেডের চিপ টেকনোলজি অফিসার আব্দুস সালাম টেকশহরডটকমকে জানান, এরিকসন আইসিটি খাত ও টেলিযোগাযোগ নেটওয়ার্ক এবং এ সম্পর্কিত নিত্যনতুন অত্যাধুনিক পণ্য আবিস্কার ও উন্নয়নে বিশ্বখ্যাত কোম্পানি।

তবে সুইডিশ টেলিযোগাযোগ প্রযুক্তি, পণ্য ও সেবাদাতা কোম্পানিটি বর্তমানে মোবাইল ডিভাইস ও চিপ উৎপাদন করে না বলে নিশ্চিত করেছেন এরিকসন বাংলাদেশের এই সিটিও।

তাহলে এরিকসন কীভাবে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রীর মতো সরকারের দায়িত্বশীল পর্যায়ে বাংলাদেশে মোবাইল ও চিপ তৈরির কারখানা খোলার আশ্বাস দিল। বিষয়টি নিয়ে রীতিমতো বিস্ময় প্রকাশ করেছে দেশের তথ্যপ্রযুক্তি সেক্টরের নীতিনির্ধারক ও সংশ্লিষ্টরা।

tarana halami-techshohor

ডিজিটাল বাংলাদেশ টাস্কফোর্সের সদস্য তথ্যপ্রযুক্তিবিদ মোস্তাফা জব্বার টেকশহরডটকমকে বলেন, বিশ্বের যেকোনো কোম্পানি বা প্রতিষ্ঠানকে আমাদের দেশে পণ্য উৎপাদন করতে, কারখানা খুলতে উৎসাহিত করছে সরকার। এজন্য নানা প্রণোদনা তো রয়েছেই। সরকার এর জন্য ইকোনোমিক জোন, হাইটেক পার্কসহ নানা পদক্ষেপ বাস্তবায়ন করছে।

কিন্তু এরিকসনের এই মিথ্যা অশ্বাসে রীতিমতো বিস্ময় প্রকাশ করে তিনি বলেন, এরিকসনের তো মোবাইল ও চিপ তৈরির ব্যবসা’ই নেই । তাহলে কীভাবে টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রীর মতো সরকারের দায়িত্বশীল পর্যায়ে এই আশ্বাস দেয়া হলো।

বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতির সাবেক এই সভাপতি বলেন, এরিকসন বাংলাদেশকে নিয়ে হাসি-ঠাট্টা করেছে। এটা প্রতারণা । আমাদের  দেশীয় মার্কেটকে মিথ্যা তথ্য দিয়ে বিভ্রান্তির মধ্যে ফেলা হয়েছে। এরিকসনের কাছে এর জবাব চাওয়া উচিত।

বিষয়টি জানতে এরিকসন বাংলাদেশের হেড অব কমিউনিকেশনস মেহনাজ কবিরকে মেইল করা হলে তিনি মেইলের উত্তর দেননি। তবে ফেব্রুয়ারির শেষ সপ্তাহে তিনি বিষয়টি নিয়ে ফোনে কথা বললেও এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু বলতে রাজি হননি।

বুধবার এ বিষয়ে এরিকসন বাংলাদেশের ভাইস প্রেসিডেন্ট আল বাতুনি এম সাঈদ আহমেদ ফোনে কথা বললেও তিনিও আনুষ্ঠানিকভাবে কিছু জানাতে রাজি হননি। বিষয়টি তার জানা নেই বলে জানান।

প্রধানমন্ত্রীর ডিজিটাল টাস্কফোর্সের সদস্য, বেসিস সভাপতি ও এফবিসিসিআই পরিচালক শামীম আহসান বিষয়টি নিয়ে টেকশহরডটকমকে জানান, বিদেশি বিনিয়োগকে আমরা সবসময়ই স্বাগত জানাই। তবে তা হতে হবে বাস্তব সম্মত।

আরও পড়ুন:

এরিকসনের প্রযুক্তিতে জিপির ফোরজি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গ্রামীণফোনের ফোরজি বা এলটিই নেটওয়ার্ক ডিজাইন ও বাস্তবায়ন করবে সুইডিশ টেলিযোগাযোগ প্রযুক্তি, পণ্য ও সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান এরিকসন।

এছাড়া অপারেটরটির টুজি ও থ্রিজি নেটওয়ার্ক ট্রান্সফর্মেশনেও কাজ করবে কোম্পানিটি।

স্পেনের বার্সালোনায় বৃহস্পতিবার মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে গ্রামীণফোনের মূল কোম্পানি টেলিনরের সঙ্গে এ বিষয়ে চুক্তি করে এরিকসন।

চুক্তি অনুযায়ী বাংলাদেশসহ মায়ানমার ও থাইল্যান্ডে টেলিনর গ্রুপের মোবাইল ফোন অপারেটরগুলোর ফোরজি বাস্তবায়ন এবং টুজি ও থ্রিজি ট্রান্সফর্মেশনে হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার প্রযুক্তিসহ নেটওয়ার্ক উন্নয়নে বিভিন্ন সেবা দেবে এরিকসন।

চুক্তিতে বলা হয়েছে, তিন দেশের টেলিনর গ্রুপের অপারেটরগুলোর নেটওয়ার্ক উন্নয়নে মাল্টি-স্ট্যান্ডার্ড রেডিও বেইস স্টেশন অরবিএস৬০০০ স্থাপন করবে কোম্পানিটি। এটি একই ক্যাবিনেট থেকে থ্রিজি এবং ফোরজি বা এলটিই সাপোর্ট দেবে।

এছাড়া রেডিও ডট সিস্টেম এবং আরবিএস৬৪০২ এর মতো ইনডোর স্মল সেলও বাসানো হবে যেটি ইনডোরে কার্যকর মবিলিটি ও সিকিউরিটি সেবা প্রদান করবে।

এরিকসন

এরিকসন বলছে, স্মল সেল বেইস স্টেশন আরবিএস৬৪০২ স্থাপনা ১০ মিনিটেরও কম সময়ের মধ্যে সেল্ফ অরগানাইজিং নেটওয়ার্ক ফিচারের মাধ্যমে গ্রাহকদের ৩০০ এমবিপিএসের বেশি গতি দিতে পারে।

অন্যদিকে রেডিও ডটে মোবাইল ডাটা পাঁচগুন বেশি কার্যকর হবে, কলড্রপ শূণ্যে নেমে আসবে এবং ইন্সটলেশন টাইম প্রতি ডটে চার মিনিটেরও কমে নেমে আসবে।

চুক্তিতে আরও বলা হয়েছে, নির্দিষ্ট কিছু এলাকায় শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ও নিখুঁত মোবিলিটি প্রদানে মাইক্রো রেডিও বেইস স্টেশন আরবিএস৬৫০১ বসানো হবে।

এরিকসন জানায়, এসব সেবার ফলে তিন দেশের তিন অপারেটরের গ্রাহকরা শক্তিশালী নেটওয়ার্ক ও উন্নত ব্রডব্যান্ডের সুবিধা পাবেন। মিলবে দ্রুত ওয়েব ব্রাউজিং ও ডাউনলোড সুবিধা।

চুক্তি সম্পর্কে এরিকসনের দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া ও ওশেনিয়া অঞ্চলের প্রধান স্যাম সাবা বলেন, এই চুক্তি এরিকসনের প্রযুক্তি, সেবা এবং নেতৃত্বকে প্রমাণ করে। এরিকসনের নেটওয়ার্ক সল্যুশন গ্রামীণফোন, মায়ানমার টেলিনর এবং ডিট্যাক এর গ্রাহকদের দারুণ অভিজ্ঞতা দেবে।

আল-আমীন দেওয়ান

রবির নেটওয়ার্ক উন্নয়নে কাজ করবে এরিকসন

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : রবির থ্রিজি নেটওয়ার্ক উন্নয়নে কাজ করবে টেলিযোগাযোগ প্রযুক্তি নির্মাতা কোম্পানি এরিকসন।

বৃহস্পতিবার এ নিয়ে চুক্তি করেছে উভয় কোম্পানি। চুক্তিতে রবির ম্যানেজিং ডিরেক্টর ও সিইও সুপুন বীরাসিংহে এবং এরিকসন বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজ নিজ নিজ পক্ষে স্বাক্ষর করেছেন।

চুক্তি অনুযায়ী, নেটওয়ার্ক বিস্তৃত করে উন্নত ডাটা সেবা ও মোবাইল অ্যাপ কাভারেজ নিশ্চিত করতে রবিকে নেটওয়ার্ক হার্ডওয়্যার, সফটওয়্যার এবং ইন্টিগ্রেশন সংক্রান্ত সকল সেবা দেবে এরিকসন।

এছাড়া চট্টগ্রাম এবং কুমিল্লা অঞ্চলে নেটওয়ার্ক আপগ্রেড করতে উল্লেখযোগ্য সংখ্যক থ্রিজি/ডব্লিউসিডিএমএ সাইট বাসাতে এরিকসনের সলিউশন নেবে রবি।

robi-ericsson

রবির প্রধান প্রযুক্তি কর্মকর্তা এ কে এম মোর্শেদ জানান, একটি ডিজিটাল সোসাইটি গড়ে তুলতে গিয়ে রবি লক্ষ্য করেছে ডাটা সেবার চাহিদা ক্রমাগত বৃদ্ধি পাচ্ছে। যার পরিপ্রেক্ষিতে রবির নেটওয়ার্ক আধুনিকীকরণ ও সম্প্রসারণের জন্য এরিকসনের সাথে এই চুক্তি।

রাজ বলেন, ররির সাথে এই চুক্তি বিশ্বের অন্যতম ক্রমবর্ধমান বাজার বাংলাদেশে এরিকসনের প্রযুক্তি এবং সেবার নেতৃত্বকে শক্তিশালী করবে। একটি নেটওয়ার্ক সোসাইটি গড়ে তুলতে এরিকসন জনসাধারণ, ব্যবসা এবং সোসাইটিকে উন্নত প্রযুক্তির অভিজ্ঞতা দিয়ে যাবে।

উল্লেখ্য, পূর্ব এশিয়া ও ওশেনিয়া অঞ্চলে এরিকসনের সর্বশেষ মোবিলিটি রিপোর্ট অনুসারে মোবাইল সাবস্ক্রিপশন বৃদ্ধির দিক থেকে বাংলাদেশ বিশ্বের দশটি দেশের মধ্যে অন্যতম। সম্প্রতি ৪০ লাখ নতুন মোবাইল গ্রাহক বৃদ্ধি করে বাংলাদেশ এই সূচকে পঞ্চম স্থানে অবস্থান করছে।

এরিকসনের ওই রিপোর্টে বলা হয়, ২০১৫ সালের মধ্যে দেশের ২০ শতাংশ মানুষ স্মার্টফোন ব্যবহার করবে এবং ২০১৮ সালের মধ্যে তা দ্বিগুণ হয়ে যাবে।

আল-আমীন দেওয়ান

এরিকসন কনজ্যুমার ল্যাবের দুই দশক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এরিকসন কনজ্যুমার ল্যাব প্রতিষ্ঠার ২০ বছর পেরিয়েছে। বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় প্রযুক্তিপণ্য প্রস্তুতকারক কোম্পানি এরিকসনের এ গবেষণা শাখা দুই দশক ধরে প্রযুক্তির উন্নয়নে কাজ করছে।

বিশ্বব্যাপী মোবাইল সেবায় সাধারণ মানুষের সমস্যা, সুবিধা, চাহিদাসহ নানা অভিজ্ঞতার উপর গবেষণা ও প্রযুক্তি উন্নয়নে ল্যাবটির কাজ গুরুত্বপূর্ণ হিসেবে বিবেচিত হয়।

ইতিমধ্যে পৃথিবীর ৪০টি দেশে এবং ১৫টি মেগাসিটিতে সাধারণ মানুষকে সম্পৃক্ত করে পরিবর্তিত প্রযুক্তি ধারার উপর কার্যক্রম চালিয়েছে এই ল্যাব।

তথ্যপ্রযুক্তি পণ্য এবং এর সেবা নিয়ে সাধারণ মানুষের ভাবনার পাশাপাশি প্রযুক্তি আচরণ ও মূল্যবোধকে সম্পৃক্ত করে ১৯৯৫ সাল থেকে গবেষণা ও জরিপ পরিচালনা করে আসছে এরিকসন কনজ্যুমার ল্যাব।

আরও পড়ুন: ডিজিটাল বাংলাদেশ তৈরির অংশীদার হবে এরিকসন

ericsson 1

দুই দশক পূর্তি উপলক্ষে রাজধানীর গুলশানে এরিকসনের প্রধান কার্যালয়ে সোমবার সংবাদ সম্মেলনে কনজ্যুমার ল্যাবের এক জরিপ প্রতিবেদন উপস্থাপন করা হয়।

মোবাইল গ্রাহকের প্রযুক্তি ব্যবহারের নানা গতিপ্রকৃতি নিয়ে করা এ জরিপ বিশ্লেষণ করেন এরিকসন কনজ্যুমার ল্যাবের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের প্রধান আফরিজাল আব্দুল রহিম।

এসময় উপস্থিত ছিলেন এরিকসন বাংলাদেশের চিফ টেকনলোজি অফিসার আব্দুস সালাম ও হেড অব কমিউনিকেশনস মেহনাজ কবির ।

প্রতিবেদনে মোবাইলে সেবা নিতে মানুষের নিত্য নতুন চাহিদার ও আগ্রহের বিষয়টি উঠে আসে।

আফরিজাল বলেন, মানুষ প্রতিদিনের প্রয়োজনগুলো হাতের মুঠোয় চাইছে। যাপিত জীবনের সম্ভবপর কাজগুলো করতে মোবাইলকে সবচেয়ে উপযোগী ও স্বাচ্ছন্দ্যময় ডিভাইস ভাবছে।

এরিকসন কনজ্যুমার ল্যাবের দক্ষিণ এশিয়া অঞ্চলের এই প্রধান বলেন, বাংলাদেশে মোবাইলে ভিডিও কনটেন্ট দেখার প্রবণতা বাড়ছে। এ বৃদ্ধি ধীর গতির হলেও স্মার্টফোন ব্যবহারের পাশাপাশি তা উল্লেখযোগ্য। অন্যদিকে যুক্তরাষ্ট্রে মোট মোবাইল ব্যবহারকারীর তিন ভাগের এক ভাগই ভিডিও কনটেন্ট দেখে।

consumer lab

প্রতিবেদনের উল্লেখে বাংলাদেশের প্রেক্ষাপট বিষয়ে আব্দুস সালাম জানান, বাংলাদেশে মোবাইলে অর্থ লেনদেনে ইচ্ছুক ৯৭ শতাংশ মানুষ। এরমধ্যে বেশির ভাগই এজেন্ট বা কারও সাহায্য নিয়ে লেনদেন প্রক্রিয়াটি সম্পন্ন করে থাকে। নিজের অ্যাকাউন্ট আছে এবং কারো সাহায্য ছাড়া নিজেই লেনদেন করে এমন সংখ্যা মাত্র ৪ শতাংশ।

এরিকসন কনজ্যুমার ল্যাবের গবেষণায় সাধারণ মানুষের সম্পৃক্ততার গুরুত্ব তুলে ধরে মেহনাজ কবির বলেন, মোবাইল কোম্পানি ও বিভিন্ন প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান সারসরি এরিকসনের সেবা নিয়ে থাকলেও সেবার মূল্যায়নে সর্বশেষে সাধারণ গ্রাহকই মূল কথা। তাই মোবাইল প্রযুক্তি ব্যবহারে সাধারণ মানুষের সমস্যা, সেবার চাহিদা, পরিধি ও ভাবনাগুলোর বিষয়ে সবসময় তাদের কাছাকাছি থাকার চেষ্টা করে এরিকসন।

জরিপের তথ্যানুযায়ী বিশ্বে ২০২০ সাল নাগাদ মানুষ স্মার্টফোনকে ওয়ালেট হিসেবে ব্যবহারে অভ্যস্ত হয়ে উঠবে। ব্যবহারের এই হার হবে ৮০ শতাংশ। বর্তমানে মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীর ৪৮ শতাংশ বিকিকিনি ও বিভিন্ন সেবার আর্থিক লেনদেনে মোবাইলকে কাজে লাগান।

আল-আমীন দেওয়ান

আরও পড়ুন:

থ্রিজির শিক্ষামূলক ব্যবহার নিয়ে বিশেষ আয়োজন ডিইউআইটিএসের

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : তথ্যপ্রযুক্তি সম্পর্কিত জ্ঞানের প্রসার ও প্রযুক্তিনির্ভর ক্যাম্পাস গঠন করতে সম্প্রতি বছরব্যাপী নানা কর্মসূচী পালনের ঘোষণা দিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় আইটি সোসাইটি (ডিইউআইটিএস)। এরই অংশ হিসেবে ২৩ মে ‘রবি-ডিইউআইটিএস ক্যাম্পাস ৩.৫জি ডে’ নামের এক বিশেষ অনুষ্ঠান আয়োজন করতে যাচ্ছে সংগঠনটি।

এতে থ্রিজি টেকনোলজির অপার সম্ভাবনা ও শিক্ষামূলক ব্যবহার সম্পর্কে অংশগ্রহণকারী শিক্ষার্থীদের ধারণা দেয়া হবে।

এ নিয়ে বৃহস্পতিবার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক কেন্দ্রে (টিএসসি) সংবাদ এক সম্মেলনের আয়োজন করে সংগঠনটি।

duits-robi

 

ডিইউআইটিএস সাধারণ সম্পাদক বলেন, সর্বাধুনিক ইন্টারনেট প্রযুক্তির শিক্ষামূলক ব্যবহার সম্পর্কে জানাতে এই অনুষ্ঠান আয়োজন করা হচ্ছে।

অনুষ্ঠানের প্রধান পৃষ্টপোষক রবির আঞ্চলিক ব্যবস্থাপক বিপ্লব ব্যানার্জী বলেন, রবি বিশ্বাস করে, মানুষ তার অন্তর্নিহিত শক্তি বা ক্ষমতা দিয়ে সকলের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টায় যে কোনো বাধা জয় করতে পারে। ইন্টারনেট মানুষকে শক্তিমান করে। আর আজকের দিনে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটগুলো ও ইন্টারনেটের নানান ওয়েবসাইট যোগাযোগ ও ঐক্যবদ্ধ হওয়ার সবচেয়ে সহজ প্লাটফর্ম।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তথ্যপ্রযুক্তি ইন্সটিটিউটের পরিচালক ও ডিইউআইটিএসের উপদেষ্টা ড. মোহাইমেন আস সাকিব বলেন, শিক্ষার্থীদের সর্বাধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির বহুমাত্রিক ব্যবহার সম্পর্কে অবহিত করতে কাজ করে ডিইউআইটিএস। এই ধারাবাহিকতায় এবারের আয়োজনটিও শিক্ষার্থীদের জ্ঞানের তৃষ্ণা মেটাবে বলে বিশ্বাস রাখি।

এরিকসন বাংলাদেশের যোগাযোগ বিভাগের প্রধান মেহনাজ কবির বলেন, এরিকসন নেটওয়ার্ক সোসাইটি তৈরির লক্ষ্য নিয়ে মবিলিটির মাধ্যমে কাজ করছে যা নতুন ধারার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির পরিবর্তনের চালিকা শক্তি। এই পরিবর্তনের মাধ্যমে মোবাইল প্রযুক্তির বিভিন্ন উদ্ভাবন এবং সাধারণ মানুষ তা গ্রহণ করায় বাজারে নির্দিষ্ট চাহিদা তৈরি হয়েছে। এরিকসনের প্রযুক্তি বিস্তারের মাধ্যমে নতুন প্রাযুক্তিক সুবিধাগুলো গ্রাহকদের হাতে এসে পৌঁছেছে। তাই ব্যবসায়িক সফলতা বৃদ্ধি, সামাজিক উন্নয়ন এবং সর্বোপরি সাধারণ মানুষের সুবিধার্থে এরিকসন শীর্ষস্থানীয় অপারেটরদের সাথে কাজ করে যাবে ।

সংবাদ সম্মেলনে অারো উপস্থিত ছিলেন, ইউআইটিএসের সাধারণ সম্পাদক মাফরুহ-উর রহমান ফারুকি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কে এম ইমরান, সাংগঠনিক সম্পাদক আরিফ ইবনে আলী, প্রচার সম্পাদক মুখলিসুর রহমান মাহিন প্রমুখ।

আয়োজকরা জানান, দিনব্যাপী অনুষ্ঠানে থ্রিজি টেকনোলজি নিয়ে সেমিনার, কর্মশালা, কুইজ প্রতিযোগিতা এবং কনসার্ট ফর আইসিটি আয়োজন করা হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য টিএসসি মিলনায়তনে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত থেকে বিজয়ীদের মাঝে পুরস্কার বিতরণ করবেন।

অনুষ্ঠান সকাল ১১টায় শুরু হয়ে চলবে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত।

ইমরান হোসেন মিলন

দেশে ইন্টারনেটের গতি বাড়াতে নতুন প্রযুক্তিতে টেলিকম আপারেটররা

ফখরুদ্দিন মেহেদী, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : বাংলাদেশে ইন্টারনেটের ধীর গতি এখনও একটি বড় সমস্যা। দেশে থ্রিজি নেটওয়ার্কের সেবা থাকলেও গতির দিকে সেই সেবা মেলেনা ঠিকমতো। অন্যদিকে বিভিন্ন দেশে চালু হয়েছে ফোরজি। বিশ্বপ্রযুক্তি এখন এগুচ্ছে ফাইভজির দিকে।

নেটওয়ার্কের এই নতুন নতুন প্রযুক্তির সাথে গতির সেবাও যেন ঠিক থাকে সেজন্য বাংলাদেশের অপারেটরদের নতুন প্রযুক্তি দিচ্ছে টেলিযোগাযোগ প্রযুক্তি নির্মাতা কোম্পানি এরিকসন।

দেশের বড় স্থাপনা বা ভবনে মোবাইল ইন্টারনেটের ধীরগতি ও নেটওয়ার্ক সমস্যা সমাধানে ‘রেডিও ডট’ নামে এই নতুন  ডিভাইস তৈরি করেছে এরিকসন। এতে বাংলাদেশের টেলিকম অপারেটররা ডিভাইসটি ব্যবহার করে খুব সহজেই বড় স্থাপনা বা ভবনে ইন্টারনেট ধীরগতি ও নেটওয়ার্ক সমস্যার সামাধান করতে পারবে।

এরিকসন রেডিও ডট নামের এই ডিভাইসটি উন্মুক্ত করেছে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত হয়ে যাওয়া মোবাইল ওয়ার্ল্ড কংগ্রেসে।

আগামী জুলাইয়ের মধ্যেই এই প্রযুক্তি বাংলাদেশের অপারেটরদের হাতে চলে আসছে বলে জানান এরিকসন বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজ । তবে কোন অপারেটরের হাত ধরে প্রযুক্তিটি বাংলাদেশ আসছে সে বিষয়ে তিনি কিছু বলতে চাননি।

এরিকসন

নেটওয়ার্ক সেবা দানের ক্ষেত্রে এই প্রযুক্তি অপারেটরদের নেটওয়ার্ক সেবা বৃদ্ধির সাথে অ্যাপ কাভারেজ উন্নত করবে। যা সহজে ইনস্টল করা যাবে এবং দ্রুত সেবার পরিধি বাড়ানো যাবে।

ডিভাইসটি দেখতে অনেকটা বাল্বের মতো। সিস্টেমটি থাকলে বিল্ডিংয়ে এন্টেনা সিস্টেম, মোটামোটা ক্যাবল টানার মতো বিরক্তি থেকে রেহাই পাবে অপারেটররা। শুধুমাত্র ল্যান লাইনে এটি বসিয়ে দিলেই পূর্বের পদ্ধতির থেকে উন্নত পারফর্ম করবে।

এরিকসন বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক রাজ জানান, অপারেটরদের জন্য ডাটা নেটওয়ার্ক সেবা দানের সবচেয়ে চ্যালেঞ্জিং বিষয় হচ্ছে কম সময়ে সহজে প্রযুক্তি ইনস্টল করা এবং তা ব্যবহারকারীদের কাছে পৌঁছানো। এটা ব্যবহার করলে তার অনেক দূর্ভোগ থেকে মুক্তি পেয়ে বেশি মানুষের হাতে সেবা পৌঁছে দিতে পারবেন।

তিনি বলেন, রেডিও ডট অপারেটরদের ৫ জি নেটওয়ার্কের দিকে অগ্রসর করে দেবে। কেননা এতে এরিকসনের রাউটার৬০০০ সিরিজের সাথে আইপি ব্ল্যাকহোল যুক্ত করে দেওয়া হয়েছে। যা নেটওয়ার্কের মানকে ৫০ শতাংশ পর্যন্ত বৃদ্ধি করবে।