গোপালপুর উপজেলার তথ্য এখন অ্যাপে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ‘আমার গোপালপুর’ নামে একটি মোবাইল অ্যাপস উদ্বোধন করেছে টাঙ্গাইল জেলা প্রশাসক। অ্যাপসটিতে থাকছে উপজেলার সকল কর্মকর্তা-কর্মচারী, জনপ্রতিনিধিদের ছবিসহ প্রোফাইল, দর্শনীয় স্থান, উপজেলায় কমর্রত সকল সাংবাদিকদের মোবাইল নম্বরসহ নামের তালিকা।

এই অ্যাপসটি ব্যবহার করে ব্যবহারকারীরা উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবর মতামত ও অভিযোগ পাঠাতে পারবেন।

ইনোভেশন ইন পাবলিক সার্ভিস প্রকল্পের আওতায় টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুর উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাসূমুর রহমান অ্যাপটির পরিকল্পনা ও বাস্তবায়ন করেন।

app gopalpur
এটি নির্মাণে সহায়তা করেছে কোডেক্স সফটওয়্যার সলিউশন লিমিটেড।

গুগল প্লে স্টোরে ‘আমার গোপালপুর’ বা Gopalpur লিখে সার্চ দিলেই পাওয়া যাবে।

এছাড়াও অ্যাপটি এই লিঙ্কে পাওয়া যাবে। একবার ডাউনলোড করার পর ইন্টারেনেট সংযোগ ছাড়াই ব্যবহার করা যাবে অ্যাপটি।

ইমরান হোসেন মিলন

দেশে হাজার ডেভেলপার তৈরির মিশনে গুগল

ইমরান হোসেন মিলন, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : দেশে প্রশিক্ষণ দিয়ে এক হাজার অ্যান্ড্রয়েড নির্ভর ফোনের অ্যাপস ডেভেলপার তৈরি করবে গুগল ডেভেলপার গ্রুপ (জিডিজি) ঢাকা। আর এই ডেভেলপার তৈরিতে সরাসরি সহায়তা দেবে গুগল। প্রশিক্ষণ শেষে উত্তীর্ণদের ইন্টার্নশিপের ব্যবস্থাও করবে গুগল কর্তৃপক্ষ।

ছয় সপ্তাহের এই প্রশিক্ষণ শুরু হবে ১০ আগস্ট থেকে। চলবে ৯ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। সপ্তাহে এক বা দুইদিন অংশগ্রহণকারীদের সরাসরি প্রশিক্ষণ দেয়া হবে।

জিডিজি ঢাকার ব্যবস্থাপক ও প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠান প্রেনিউরল্যাবের নির্বাহী প্রধান আরিফ নিজামী বলেন, এই প্রশিক্ষণে সাধারণভাবে অংশ নিতে গেলে ২০০ ডলার খরচ করতে হয়। কিন্তু গুগলের প্রতিষ্ঠান উডাসিটি বিনামূল্যে এই প্রশিক্ষণ গ্রহণের সুযোগ দিচ্ছে।

GDG DHAKA

তিনি জানান, অনলাইনের মাধ্যমে একটি ফরম পূরণ করে আবেদন করার পর যাচাইবাছাই করে এক হাজার অংশগ্রহণকারী নির্বাচন করা হবে। পরে তাদের প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে।

সারাদেশে ৩০টি গ্রুপে ভাগ করে প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। এখানে অংশগ্রহণকারীদের অনলাইনে অ্যাসাইনমেন্ট দেওয়া হবে। এরপর সফল প্রশিক্ষণার্থী নির্বাচন করে দেশি-বিদেশী বড়বড় প্রযুক্তি প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপের সুযোগ করে দেবে গুগল।

জিডিজির প্রোগ্রাম কো-অর্ডিনেটর তৌহিদুল ইসলাম স্বপন বলেন, প্রযুক্তি ডেভেলপার তৈরির এই প্রশিক্ষণ দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়কেন্দ্রিক হবে।

প্রশিক্ষণ সম্পর্কে আরিফ নিজামী বলেন, গুগলের এই ধরনের পদক্ষেপ দেশে দক্ষ প্রযুক্তিবিদ তৈরিতে সহায়তা করবে। একই সঙ্গে কাজের ক্ষেত্র বাড়বে।

প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের সনদ দেয়া হবে। এছাড়াও প্রশিক্ষণ চলাকালীন খাওয়াসহ আরও নানা সুবিধা দেবে জিডিজি।

নিবন্ধন করা যাবে এই ঠিকানায়

 

ধীরগতির নেটওয়ার্কে দ্রুতগতির সেবা দেবে ‘লাইট অ্যাপ’

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সপ্তাহ দুয়েকের মধ্যে উন্নয়শীল দেশগুলোর অ্যান্ড্রয়েড চালিত স্মার্টফোন ব্যবহারকারীদের জন্য ফেইসবুকের ‘লাইট অ্যাপ’ চালু করা হবে। তবে ইতিমধ্যে ভারত ও ফিলিপাইনে অ্যাপটি চালু করা হয়েছে।

২জি নেটওয়ার্কে দ্রুত ফেইসবুক ব্যবহারের অভিজ্ঞতা দিতে তৈরি করা হয়েছে অ্যাপটি। ভারত ও ফিলিপাইনের পর শিগগিরই অ্যাপটি অন্যান্য দেশগুলোর জন্য চালু করা হবে।

ফেইসবুকের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, লাইট অ্যাপ ২জি নেটওয়ার্কে দ্রুত গতির সেবা দেবে। কারণ নেটওয়ার্কিং সাইটটির সার্ভার অপটিমাইজিং কনটেন্টের ভার নিয়ে নেবে।

lite app for android

স্বল্প গতির নেটওয়ার্ক অবকাঠামোর দেশগুলোতে দ্রুত গতির ফেইসবুক ব্যবহার অভিজ্ঞতা দেয়ার জন্য এই অ্যাপটি নিয়ে চলতি বছরের জানুয়ারি মাস থেকে পরীক্ষানিরীক্ষা শুরু হয়।

অ্যাপটির ওজন মাত্র ৪৩০ কেবি। ফলে এটি দ্রুততর সময়ে ডাউনলোড করা যাবে। এতে নোটিফিকেশন ও ম্যাসেজিং সেবা পাওয়া যাবে। তবে অ্যাপটি ভিডিও সাপোর্ট করবে না।

অ্যাপটির ইন্টারফেইস খুবই সাধামাটা। বার্তা আদান-প্রদানে যারা ফেইসবুক ব্যবহার করেন এটি তাদের দ্রুত গতির সেবা দেবে।

দ্যা নেক্সট ওয়েব অবলম্বনে আহমেদ মনসুর

অ্যান্ড্রয়েডে মাইক্রোসফট অফিস ব্যবহারের অ্যাপস

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : একটা সময় গুরুত্বপূর্ণ যে কোনো কাজের জন্য দরকার পড়তো কম্পিউটার। কিন্তু বর্তমানে তার আর দরকার হয় না, এসব কাজ এখন অনায়াসে করা যায় স্মার্টফোনেই।

সময়ে সময়ে আপডেট করার কারণে মাইক্রোসফটের কিছু বহুল ব্যবহৃত সফটওয়্যার দিয়েই এখন অনেক জটিল কাজও করা যায়। এর মধ্যে আছে মাইক্রোসফট অফিস, ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্ট।

এ ছাড়াও অ্যান্ড্রয়েড ফোনে অফিসের কাজের জন্য আছে আরও কিছু অ্যাপস। এ প্রতিবেদনে সেসব অ্যাপস ও তাদের কাজ তুলে দেয়া হলো।

microsoftoffice

অফিস স্যুইট
এই অ্যাপ্লিকেশনটির সাহায্যে মাইক্রোসট অফিস ডকুমেন্ট খোলা, প্রেজেন্টেশন তৈরি, এক্সেলের মাধ্যমে হিসাব-নিকাশসহ বিভিন্ন কাজ করা যায়। অ্যাপটিতে আছে ক্লাউড সুবিধা। বিনামূল্যে অ্যাপটি ব্যবহার করা গেলেও পিডিএফ তৈরির জন্য প্রিমিয়ার গ্রাহক হতে হবে। ২০৫ টি দেশের ১৬ কোটি ব্যবহারকারী অ্যাপ্লিকেশনটি ব্যবহার করেন। যে কোন ফাইল ওয়াইফাই, ব্লুটুথ এর মাধ্যমে আবার সরাসরি শেয়ার করা যাবে।

অ্যাপ্লিকেশনটি এই ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

মাইক্রোসফট অফিস মোবাইল
এটি মাইক্রোসফট অফিসের মোবাইল সংস্করণ। এতে ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্টসহ প্রায় সব ফিচারই আছে । এর সাহায্যে মেইলের প্রিভিউ দেখা ও এডিট করা যাবে। মাইক্রোসফট একাউন্টের সাহায্যে ওয়ান ড্রাইভের সঙ্গে সিনক্রোনাইজ করা যাবে। চাইলে শেয়ার পয়েন্ট সাইটে ডক ফাইল শেয়ার করা যাবে।

অ্যাপ্লিকেশনটি বিনামূল্যে এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

 গুগল ডক

মাইক্রোসফট ওয়ার্ডের পরেই জনপ্রিয়তার শীর্ষে আছে প্রযুক্তি জায়ান্ট গুগলের ওয়ার্ড প্রসেসর ‘গুগল ডক’। ওয়ার্ড, এক্সেল, পাওয়ার পয়েন্টসহ এমএস ওয়ার্ডের প্রায় সব ফিচারই রয়েছে এতে। তবে সফটওয়্যারটি অনলাইন নির্ভর। গুগল ড্রাইভের মাধ্যমে যে কোনো ব্যবহারকারী এই সফটওয়্যারটি ব্যবহার করতে পারেন। সর্বোচ্চ ১৫ গিগাবাইট পর্যন্ত ডকুমেন্ট তৈরি, আপলোড ও শেয়ার করার সুযোগ রয়েছে এতে।

2

সাদামাটা ডিজাইন ও সহজ ব্যবহার উপযোগী গুগল ডক সহজেই অন্য ডিভাইসে সিনক্রোনাইজও করা যায়। এর সাহায্যে ডকুমেন্ট যতখুশি ততবার সম্পাদনা করা যাবে। গুগল ডক লেখার শুরু থেকে প্রতিটি সম্পাদনা ও পরিবর্তন সংরক্ষণ করে রাখে।

বিনামুল্যে এই ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

ডব্লিউপিএস মোবাইল অফিস:
২৬ মেগাবাইটের এই অ্যাপ্লিকেশনটির সাহায্যে খুব সহজে অফিসের যাবতীয় কাজ করা যাবে। সকল অফিস ডকুমেন্ট সম্পাদন ও চাইলে সরাসরি মেইলে তা পাঠানো যাবে।

1

এছাড়া এতেও আছে অন্যান্য অফিস সফটওয়্যারের মত সকল ফিচার।

এ ঠিকানা থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করা যাবে।

ফায়ার সার্ভিসের নম্বর মিলবে অ্যাপে

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যান্ত্রিক কারণে কিংবা দুর্ঘটনাবশত অনেক সময় বাসা-বাড়ি, হাসপাতাল কিংবা কল-কারখানায় আগুন লাগতে পারে। সে সময় প্রয়োজন দ্রুত ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়া। তবে অনেক সময় কাছের স্টেশনের নম্বর পাওয়া যায় না।

এমন পরিস্থিতিতেও সহায়ক হয়ে উঠতে পারে হাতের স্মার্টফোনটি। হতে পারে বিপদের বন্ধু। তবে এজন্য একটি অ্যাপ ইন্সটল থাকতে হবে। তাহলে নম্বর লিখে রাখার ঝামেলা বা নোটবুক খোঁজার বিড়ম্বনায় পড়তে হবে না।

‘বিডি ফায়ার সার্ভিস ফোনবুক’ নামের অ্যাপ্লিকেশনটি অনেক কাজে দেবে। এতে খুব সহজে দেশের সব ফায়ার সার্ভিসের নম্বর খুঁজে পাওয়া যাবে। শুধু হাতের স্মার্টফোনটি অ্যান্ড্রয়েড হতে হবে।

আরো পড়ুনঃ  সব ব্যাংক ও এটিএমের ঠিকানা নিয়ে অ্যাপ

Untitled

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. দেশের সব ফায়ার সার্ভিস স্টেশনের নম্বরসহ অধিদফতরের কর্মকর্তা, ওয়্যার হাউজ ইন্সপেক্টর, ট্রেনিং কমপ্লেক্স কর্মকর্তাদের ব্যবহৃত সরকারি নম্বর রয়েছে এতে।

২. এতে রয়েছে সার্চ সুবিধা। যার ফলে সহজেই বিভাগ, জেলা, স্টেশনের নাম সার্চ করে প্রয়োজনীয় নম্বরটি পাওয়া যাবে।

৩. আগুন লাগলে করণীয় বিষয় এবং প্রাথমিক চিকিৎসার বিভিন্ন দিকও তুলে ধরা হয়েছে এতে।

অ্যাপ্লিকেশনটি এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

আরো পড়ুনঃ

সব ব্যাংক ও এটিএমের ঠিকানা নিয়ে অ্যাপ

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ব্যাংকিং লেনদেনে এখন এটিএমের ব্যবহার অনেক বেশি। বিশেষ করে শহরাঞ্চলে বড় লেনেদেন ছাড়া সকলেই এটিএম বুথের সহায়তা নিয়ে থাকে। ভ্রমণকালে বিশেষ প্রয়োজনে অপরিচিত জায়গায় নিজের ব্যাংকের বুথ থেকে টাকা তোলার প্রয়োজন হতে পারে।

এমন পরিস্থিতিতে এটিএম বুথ কোথায় আছে তা জানা না থাকলে বেশ মুশকিলে পড়তে হয়। আশেপাশের লোকজনও ঠিকানা জানাতে পারে না। নির্দিষ্ট বুথটি খুঁজে পেতে বেশ সময় নষ্ট হয়। তবে প্রযুক্তি এ রকম ক্ষেত্রে সহায়তা করতে পারে। বিশেষ করে স্মার্টফোনের সাহায্যে খুব সহজে খুঁজে পাওয়া সম্ভব প্রয়োজনীয় এটিএম বুথটি কোথায়।

দেশের কোডেটিক নামে মোবাইল অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপ প্রতিষ্ঠান তৈরি করেছে তেমনি একটি অ্যাপ্লিকেশন। ‘ব্যাংক অ্যান্ড এটিএম ফাইন্ডার (বাংলাদেশ)’ নামে অ্যাপটির সাহায্যে সারা দেশে সব ব্যাংকের এটিএম বুথ এবং শাখাগুলোর তথ্য পাওয়া যাবে। এটির ডিজাইনও বেশ ভালো।

আরও পড়ুন: ম্যালওয়ার দিয়ে এটিএম মেশিনে হ্যাকারদের হানা

রুপক-টেকশহর

অ্যাপটি ডেভলপ করেছেন নাজমুল হাসান রূপক এবং সাহানা শারমিন ইতি। অ্যাপের ইন্টারফেস ডিজাইন এবং ডাটাবেজ তৈরি নিয়ে কাজ করেন ইতি।

অ্যান্ড্রয়েড, আইওএস, উইন্ডোজ এবং ফায়ারফক্স ওএসের উপযোগী করে অ্যাপটি তৈরি করার কাজ চলছে বলে জানান রূপক। তবে বর্তমানে শুধু অ্যান্ড্রয়েডের জন্য এটি পাওয়া যাচ্ছে। শিগগির অন্য মোবাইল প্লাটফর্মের জন্য উম্মুক্ত করা হবে অ্যাপটি বলে উল্লেখ করেন তিনি।

এ অ্যাপ ডেভেলপার টেকশহরডটকমকে বলেন, প্রথমে ম্যাপ এবং জিপিএস নির্ভর অ্যাপটি তৈরির চিন্তা করা হয়েছিল। কিন্তু প্রয়োজনের সময় ইন্টারনেট কানেকশন নাও থাকতে পারে-এমন চিন্তা থেকে সবার সুবিধার্থে অফলাইন ডিরেক্টরি হিসেবে এটি তৈরি করা হয়েছে। এতে সব ব্যাংকের শাখা এবং এটিএম বুথের ঠিকানা, ফোন নম্বর যুক্ত করে এটিকে আরও কার্যকরি করা হয়।

রূপক জানান, দুই থেকে তিন মাস ধরে সব ব্যাংকের শাখা এবং এটিএম বুথের ডাটাবেজ তৈরি করে অ্যাপটিতে যুক্ত করা হয়েছে । তিনি আশা করছেন অ্যাপটি সবার খুব কাজে আসবে । ব্যবহারকারীদের কাছ থেকে ফিডব্যাক নিয়ে অ্যাপটিকে আরও উন্নত করা হবে বলেও তিনি জানান।

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. এতে রয়েছে সবব্যাংকের এটিএম বুথসহ যে কোন শাখার ঠিকানা।

ব্যাংক ফান্ডার-টেকশহর

২. ক্যাটাগরি আকারে সুন্দর করে সাজানো রয়েছে ঠিকানাগুলো। ফলে সহজে খুঁজে পাওয়া যাবে এটিএম বুথ এবং ঠিকানা।

৪. এতে রয়েছে ছয়টি মেন্যু। এতে রয়েছে ডেভেলপারদের সঙ্গে যোগাযোগের তথ্য এবং নতুন সংস্করণ আপডেটের জন্য চেক করার ব্যবস্থা।

৫. ইন্টারনেট ছাড়াই কাজ করবে এটি।

৬. ঠিকানা দেখার পাশিাপাশি ইন্টারনেট সংযোগ থাকলে নিকটস্থ শাখা ও বুথের লোকেশন ম্যাপের সাহায্যে সহজেই খুঁজে বের করা যাবে।

৩.৯ মেগাবাইটের অ্যাপ্লিকেশনটি এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

আরও  পড়ুন:

অর্থ লেনদেন সেবা নিয়েও বিপাকে অ্যাপল

গোপন পরিচয়ে চ্যাট করার অ্যাপ আনলো ফেইসবুক

অ্যাপ নির্মাতাদের জন্য ১০ লাখ টাকা পুরষ্কার

প্রয়োজনীয় মেইল নজরে রাখতে জিমেইলে নতুন অ্যাপ

টেকশহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : গুগল জিমেইলে যোগ করতে যাচ্ছে ইনবক্স নামের নতুন এক মোবাইল অ্যাপ। নানা রকম মেইলে ঠাসা ইনবক্স থেকে গুরুত্বপূর্ণ মেইলকে আলাদা করতে এ উদ্যোগ নিয়েছে প্রযুক্তি জায়ান্টটি।

এজন্য গুগলের তরফ থেকে ইতিমধ্যে ইমেইল ব্যবহারকারী নির্বাচিত একটি গ্রুপকে ইনবক্স -এ আসার আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

বিশেষজ্ঞদের মতে, এটা জনপ্রিয় হলে তা গুগলের নিজস্ব মেইল সার্ভিস জিমেইলকে পর্যায়ক্রমে হঠিয়ে তার জায়গাটা দখল করে নেবে।

গুগল প্লাসের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, ইমেইল সার্ভিসে জিমেইলের পর এবার ইনবক্স নিয়ে আসাটা আমাদের জন্য আনন্দের।

তিনি আরও জানিয়েছেন, এটি সকল গুরুত্বপূর্ণ তথ্য, ছবি এবং বার্তাকে হাইলাইট করবে। এছাড়া এটি ব্যবহারকারীকে রিমাইন্ডার যুক্ত করার এবং ক্যাটাগরি অনুসারে ম্যাসেজ সিলেক্ট করার সুযোগ দেবে।

আরও পড়ুন: ওয়েবসাইটে জিমেইল আইডি হ্যাক যাচাই

জিমে্ল-টেকশহর

এ ব্যাপারে গুগলের অ্যান্ড্রয়েড ক্রোম এবং অ্যাপস এর সিনিয়র ভাইস প্রেসিডেন্ট সুন্দর পিছাই বলেন, আমরা আগের তুলনায় এখন অনেক বেশি ইমেইল পাই। আর এতো সব মেইলের ভিড়ে অধিকাংশ সময় আমাদের গুরুত্বপূর্ণ মেইলগুলো আড়ালে থেকে যায়। তাই সকল গুরুত্বপূর্ণ মেইলকে নজরে আনতেই যোগ করা হচ্ছে এই অ্যাপ।

তবে এ ব্যাপারে প্রযুক্তি বিষয়ক সাইটগুলোতে দেখা গেছে মিশ্র প্রতিক্রিয়া। দ্যা ভার্জ নামের একটি সাইট একে ভবিষ্যতের ইমেইল রূপ হিসেবে চিহ্নিত করেছে। তাদের মতে, গুগলের এই সেবাটি হবে ইমেইলের পুরোপুরি বিকল্প রূপ। এতে একজন ব্যবহারকারী তার মনের মতো মেইল লিস্ট পাবেন।

ম্যাশেবল জানিয়েছে, এটা মেইলবক্স বা বক্স এর মতো মেইল সেবাই দেবে। তবে এর মাধ্যমে জিমেইলর যুগ শেষ হয়ে যেতে পারে।

বিবিসি অবলম্বনে ফখরুদ্দিন মেহেদী।

আরও পড়ুন:

৯২ শতাংশ জিমেইল অ্যাপ হ্যাক করা সম্ভব!

জিমেইল এখন ৭১ ভাষায়

জিমেইল একাউন্ট খুলতে ভাষার বাধা কাটছে

মোবাইলে কেনাকাটায় কাইমু ডটকমের অ্যাপ উম্মুক্ত

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : মোবাইলে কেনাকাটার সুবিধা দিতে নতুন অ্যাপ উম্মুক্ত করেছে ই-কমার্স সাইট কাইমু ডটকম। ফলে ওয়েবসাইট প্রবেশ না করেই অ্যাপটির সাহায্যে কেনাকাটা করতে পারবে  ব্যবহারকারীরা।

কাইমু ডটকমে  ইলেকট্রনিক্স গ্যাজেট, পোশাক, ব্যাগ, হোম যন্ত্রপাতি, কম্পিউটার, স্মার্টফোন, গিফট আইটেমসহ নিত্য প্রয়োজনীয় বিভিন্ন পণ্য অনলাইনে বিক্রি করা হয়। এখানে যে কেউ পণ্য বিক্রিও করতে পারে।

কাইমু-টেকশহর

অ্যাপটির সাহায্যে ক্রেতারা তাদের পছন্দের পণ্য প্রিয় তালিকায় যুক্ত করাসহ সরাসরি পণ্য অর্ডার করতে পারবেন। এছাড়া কাইমুতে অ্যাকাউন্ট ওপেন করা এবং পণ্য বিক্রির জন্য যাবতীয় কর্যক্রম করা যাবে এই অ্যাপে।

অ্যাপটির গতিময়তার কারণে ব্যবহারে সময় নষ্ট হবে না। সেইসাথে ব্যক্তিগত তথ্যের সুরক্ষার জন্য অ্যাপ্লিকেশনটিতে যথেষ্ট নিরপত্তার ব্যবস্থা আছে বলে জানায় কাইমু কর্তৃপক্ষ।

১৩ মেগাবাইটের  অ্যান্ড্রয়েড অ্যাপ্লিকেশনটি গুগলের প্লে স্টোরের এ ঠিকানা থেকে বিনামূল্যে ডাউনলোড করা যাবে ।

তুসিন আহমেদ

চোখ রঙিন করতে নাইস আই

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর :  রাতে তোলার ছবিতে রেড আই ইফেক্ট পড়তে পারে। যা রিমুভ করতে অনেকে ফটোশপের মত শক্তিশালী সফটওয়্যার ব্যবহার করে থাকে। তবে চাইলে স্মার্টফোনের সাহায্যেও তা করা সম্ভব।

এজন্য একটি অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্য নিতে হবে। নাইস আই নামের এ অ্যাপের সাহায্যে রেড আই সহজেই রিমুভ করা যায় এবং তাতে পছন্দমত ইফেন্ট যুক্ত করা, চোখের রং পরিবর্তন সবাই করা যায়।

এক নজরে অ্যাপটির ফিচারগুলো
১. অ্যাপটি ব্যবহার করে ছবিতে প্রয়োজন মতো চোখের সাইজ তৈরি করে যাবে।

২. ক্যাট আই, অ্যানিম্যাল আইসহ অন্যান্য জনপ্রিয় ইফেন্ট রয়েছে এতে।

নাইসআই-টেকশহর

৩. অ্যাপটি ব্যবহার করে ছবিতে থাকা রেড আই ইফেক্ট সরিয়ে ফেলা যাবে।

৪. খুব সহজে ছবি এডিটও করা যাবে।

৫. ছবি সরাসরি গ্যালারিতে যুক্ত করা যায়।

৬. এতে রয়েছে সরাসরি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে যেমন ফেইসবুক, টুইটারে শেয়ারের সুবিধা।

জনপ্রিয় অ্যাপটি বিনামূল্যে গুগল প্লেস্টোরের এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করা যাবে।

আরও পড়ুন

অনলাইনে ছবি সম্পাদনার ৩০ ওয়েবসাইট

ইমেজ এডিট করার ১০ ওয়েব টুল

ফটোশপ সিএস ৬ : কালার ব্যালেন্স

জাতীয় পর্যায়ে অ্যাপস গবেষণা ও উন্নয়ন সেন্টার করবে ইএটিএল

কম গতির ইন্টারনেটে ফ্রি কথা বলার অ্যাপ ফ্রিং

কল রেকর্ড করার অ্যাপ “কল রেকর্ডার”

সোশ্যাল নেটওয়ার্কের নেতিবাচক রূপ গুডটুগো অ্যাপ!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : যৌণসঙ্গী খুঁজে পাওয়ার জন্য অনেক ডেটিং ওয়েবসাইট বা অ্যাপ রয়েছে। এক্ষেত্রে আরও একধাপ এগিয়ে অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএসের নতুন অ্যাপ গুডটুগো। অল্প কয়েকটি ক্লিকের মাধ্যমে খুব অল্প সময়ে এটি যৌণসঙ্গী খুঁজে দেওয়ার কাজটি করে। বেশ কিছুদিনের মধ্যে এটি জনপ্রিয় হলেও সমালোচনাও হচ্ছে বেশ।

স্যান্ডন টেকনোলজিস নামে একটি প্রতিষ্ঠানের তৈরি এ অ্যাপের লক্ষ্য যৌণ হয়রানি, যৌণ সম্পর্কিত ভুল বোঝাবুঝি প্রতিরোধ করে দু’জন প্রাপ্তবয়স্ক মানুষের মধ্যে সম্পর্ক তৈরিতে সহায়তা করা। এর জন্য বেশ কিছু ধাপ পার করতে অবশ্য। এ ধাপগুলো নিশ্চিত করবে আপনার সঙ্গী কতোটা উপযুক্ত এবং প্রাপ্তবয়স্ক কিনা।

অ্যাপটি ওপেন করার পর ফোন নম্বর ও নাম দিয়ে সাইনআপ করতে হবে। এটি এরপর সঙ্গী খুঁজে বের করবে, যাকে আপনি সম্পর্ক তৈরির জন্য নিমন্ত্রণ জানাতে পারবেন। উত্তরে আপনার পার্টনার তিনটি অপশন পাবেন- নো থ্যাংকস, আমি রাজি, কিন্তু… আগে কথা বলা দরকার এবং আই অ্যাম গুডটুগো!

তৃতীয় অপশনটি সিলেক্ট করলে আরও একসেট প্রশ্ন আসবে। এ প্রশ্নগুলোর মাধ্যমে সঙ্গী আপনাকে ‘র‍্যাংক’ করতে পারবে। আপনার ব্যক্তিত্ব কেমন লেগেছে তা অপশন থেকে সিলেক্ট করতে পারবে। ‘চমৎকার’ থেকে শুরু করে ‘সময়নষ্ট’—সব অপশনই আছে। যদি শেষ অপশনটি সিলেক্ট করা হয়, তাহলে অ্যাপটি সম্পর্ক তৈরির ‘অনুমতি’ দেবে না।

গুডটোগো-অ্যাপ-টেকশহর

বেশ ব্যতিক্রম পদ্ধতি হলেও অল্প কিছুদিনের মধ্যে অ্যাপটি সমালোচনার ঝড় তুলেছে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যৌণকর্মের ইচ্ছা যদিও বা আপনার সঙ্গীর থাকে, সেটিকে মেরে ফেলার জন্য এ অ্যাপের চেয়ে ভালো কিছু হতে পারে না। কারণ যার সঙ্গে সম্পর্ক গড়তে চাইছেন তার মুখের ওপর একটি ফোনস্ক্রিন ধরে অনুমতি চাওয়ার বিষয়টি অনেকের কাছে ভালো ঠেকবে না।

তারপরও অ্যাপটি জনপ্রিয় হচ্ছে এবং অনেকে ইতোমধ্যে এটি জোরেসোরে ব্যবহার করছেন। একে খুবই নেতিবাচকভাবে দেখছেন বিশ্লেষকরা। তারা বলছেন, যৌণসম্পর্ক তৈরি একটি ফোন ক্লিকের মতো তুচ্ছ ব্যাপার—পরোক্ষভাবে এটিই শেখাচ্ছে অ্যাপটি।

স্যান্ডন টেকনোলজিসের কর্ণধার লি অ্যান অ্যালমান এ ব্যাপারে বলেন, ‘অনেকেই এ ধরনের সম্পর্ক তৈরির ব্যাপারে সম্পূর্ণ অবগত। কিন্তু তারা সঙ্গী নির্বাচন নিয়ে দ্বন্দ্বের মধ্যে থাকে। কাউকে পছন্দ হলে কিভাবে অগ্রসর হবে তা জানে না।’ অ্যালমানের নিজের কলেজ-পড়ুয়া সন্তান রয়েছে, যাদের অ্যাপটি ‘সুরক্ষা’ করবে বলে তিনি মনে করেন।

স্মার্টফোন-সেক্স-টেকশহর

কিন্তু প্রযুক্তি বিশেষজ্ঞ ও মনোবিজ্ঞনীরা অ্যালমানের সঙ্গে একমত নয়। তাদের মতে, আধুনিক সোশ্যাল নেটওয়ার্কের সবচেয়ে নেতিবাচক রূপ গুডটুগো, যেখানে কেবল একটি ডিজিটাল ‘ইয়েস’ বা ‘নো’ দিয়ে যৌণ সম্পর্কের মতো গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নিতে হয়। মানবীয় আবেগ-অনুভূতি বা জটিলতা এখানে সম্পূর্ণ অনুপস্থিত। অথচ একটি সুস্থ সম্পর্কের পেছনে সবচেয়ে বড় অবদান এসব মানবীয় অনুভূতির।

কিছুদিন আগে কার্লা ক্লাইন মারডকের একটি মনোবিজ্ঞান বিষয়ক জার্নালে বলা হয়েছিল, টেক্সট মেসেজের মাধ্যমে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য আদান-প্রদান কোনোভাবেই সফল যোগাযোগ ও আবেগ-অনুভূতির পরিপূরক হতে পারে না। গুডটুগো এক্ষেত্রে সম্পূর্ণ যান্ত্রিক এক পদ্ধতি নিয়ে এসেছে—বলাবাহুল্য।

অ্যাপটি কিভাবে বাস্তব জীবনে কাজে আসতে পারে তার একটি উদাহরণ অবশ্য অ্যালমান দিয়েছেন। কিছুদিন আগে কলোম্বিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই শিক্ষার্থীর যৌণসম্পর্ক ধর্ষণে রূপ নিয়েছিল যখন ছাত্রটির বিকৃত রুচি প্রকাশ পায়। ছাত্রীটি আগে থেকে কিছু জানতেন না, ছাত্রটিকে ভালো লেগেছিল বলেই তার সম্পর্ক স্থাপনে এগিয়েছিলেন।

গুডটুগো অ্যাপ থাকলে কি হতো? ওই ছাত্রী দ্বিতীয় অপশন, অর্থাৎ ‘আমি রাজি, কিন্তু কথা বলা দরকার’ সিলেক্ট করতেন। এরপর কি করা যাবে আর কি যাবে না—তা নিয়ে একটি বোঝাপড়া করে নিতেন অভিযুক্ত ছাত্রটির সাথে। প্রয়োজনে এই তথ্য আদালতেও ব্যবহার করা যেত।

এখানেও অবশ্য বড় একটি ফোকর থেকে যাচ্ছে। সব ঠিকঠাক ঠাকার পরও যদি নারীটি ধর্ষণের শিকার হন, গুডটুগো কি ঠেকাতে পারবে?

– শাহরিয়ার হৃদয়, ইয়াহু টেক অবলম্বনে

ফাইল আনজিপ করার অ্যাপ

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : কোনো ফাইলের আকার কমিয়ে নেওয়া কিংবা অনেকগুলো ফাইলকে একত্রে যুক্ত করে পাঠানোর কাজটি সহজ করেছে জিপ ফরম্যাট। অনেক বড় ফাইল আদান প্রদান এতে সহজ হয়েছে। তবে সাধারণভাবে কম্পিউটারে সফটওয়্যার না থাকলে জিপ ফাইল খোলা যায় না।

এখন অবশ্য সময় পাল্টেছে। অ্যাপের যুগ শুরু হয়েছে। চাইলে কম্পিউটারের পরিবর্তে হাতে থাকে স্মার্টফোনটির সাহায্যেও জিপ ফাইলকে আনজিপ করে নেওয়া যায়। উন্নত অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলপার করার ফলেই এটি সম্ভব হয়েছে।

সেরকম একটি অ্যাপ্লিকেশন হলো ‘ইজি আনজিপ’।

অ্যাপস-টেকশহর

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটি ফিচারগুলো
১. এটির সাহায্যে আরএআর এবং জিপ ফরম্যাট সহজে ওপেন করা যাবে।

২. আনজিপ ফাইলকে জিপ করা যাবে।

৩. আপজিপ না করেও জিপ ফাইলে কি কি আছে দেখে নেওয়া যাবে।

৪. নিরাপত্তার সার্থে চাইলে ফাইলে পাসওয়ার্ড দেওয়া যাবে অ্যাপটি দিয়ে।

৫. যদি কখনো এমন হয় জিপ ফাইল থেকে নিদিষ্ট কয়েকটি ফাইল আনজিপ করে নেওয়া প্রয়োজন তাহলে সেটিও করা যাবে এ অ্যাপ্লিকেশনের সাহায্যে।

গুগলের প্লে স্টোরে ৪.১ রেটিং পাওয়া অ্যাপ্লিকেশনটি এ ঠিকানা থেকে ডাউনলোড করে নেয়া যাবে।

তবে সফটওয়্যারটি ফ্রি নয়। এটি ব্যবহার করতে হলে ০.৬৫ ডলার ব্যয় করতে হবে।

আরও পড়ুন

অনলাইনে ছবি সম্পাদনার ৩০ ওয়েবসাইট

ইমেজ এডিট করার ১০ ওয়েব টুল

ফটোশপ সিএস ৬ : কালার ব্যালেন্স

জাতীয় পর্যায়ে অ্যাপস গবেষণা ও উন্নয়ন সেন্টার করবে ইএটিএল

কম গতির ইন্টারনেটে ফ্রি কথা বলার অ্যাপ ফ্রিং

কল রেকর্ড করার অ্যাপ “কল রেকর্ডার”