শক্তিশালী প্রসেসর বেশি র‍্যামে আসছে ওয়ানপ্লাস ৫

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : অনেক অপেক্ষার পর এবার ঘোষণা এসেছে ওয়ানপ্লাসের নতুন ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইসের। ‘ওয়ানপ্লাস ৫’ নামে ডিভাইসটিতে ব্যবহার করা হয়েছে ডুয়েল ক্যামেরা সেটাইপ ও শক্তিশালী প্রসেসর।

৫.৫ ইঞ্চি ডিসপ্লের ফোনটির রেজুলেশন ১০৮০*১৯২০ পিক্সেল। যা ৪০১ পিপিআই পিক্সেল ডেনসিটি সমৃদ্ধ। এতে ব্যবহার করা হয়েছে কর্নিং গরিলা গ্লাস ৫ প্রযুক্তি।

কোয়ালকম এমএসএম৮৯৯৮ স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ প্রসেসরের ডিভাইসটিতে রয়েছে অ্যাড্রেনো ৫৪০ জিপিইউ। ফোনটি ৬ জিবি র‍্যাম ও ৬৪ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ  এবং  ৮ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি ইন্টারনাল স্টোরেজ সংস্করণে পাওয়া যাবে।

ফোনটি দেখতে অনেকটা আইফোন ৭ এবং অপ্পো আর১১ এর মত। ডিভাইসটি পিছনে রয়েছে ১৬ ও ২০ মেগাপিক্সেল ডুয়েল ক্যামেরা সেটআপ এবং এলইডি ফ্ল্যাশ। সেলফি ও ভিডিও চ্যাটের জন্য সামনে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা ও অটো এইচডিআর সুবিধা।

ডিভাইসটিতে রয়েছে ব্লুটুথ, ৩.৫ এমএম হেডফোন জ্যাক, ওয়াইফাই, এনএফসি এবং ফিঙ্গারপ্রিন্ট সুবিধা। ব্যাটারি ব্যাকআপ সুবিধা দিতে এতে রয়েছে ৩ হাজার ৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি।

৬ জিবি ও ৮ জিবি র‍্যামের সংস্করণের মূল্য যথাক্রমে ৪৭৯ ও ৫৩৯ মার্কিন ডলার।

ফোনটি প্রিঅর্ডার শুরু হয়েছে। চলতি মাসের ২৭ তারিখ থেকে বাজারে বিক্রি শুরু হবে। তবে ফোনটি ডিজাইনের দিক দিয়ে ওয়ানপ্লাস ৫ ভক্তদের খুশি করতে পারেনি বলে অনেকেই বলছেন। তারা এর আরও উন্নত ডিজাইন আশা করেছিলেন।

তুসিন আহমেদ

জি৬ প্লাস আনলো এলজি

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফ্ল্যাগশিপ ফোন জি৬’য়ের উন্নত সংস্করণ নিয়ে বাজারে হাজির হলো প্রযুক্তি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এলজি। এলজির জি৬ প্লাস’ নামে ফোনটিতে রয়েছে ১২৮ গিগাবাইট ইন্টারনাল স্টোরেজ ও ওয়্যারলেস চার্জিং প্রযুক্তি।

৫.৭ ইঞ্চি কিইউএইচডি ডিসপ্লের ফোনটিতে রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৮২১ প্রসেসর। গতিময় সুবিধা দিতে রয়েছে ৪ গিগাবাইট র‍্যাম। ১২৮ গিগাবাইট স্টোরেজের পাশাপাশি ৬৪ গিগাবাইট স্টোরেজ সংস্করণেও পাওয়া যাবে ফোনটি। যদি ব্যবহারকারীদের অতিরিক্ত স্টোরেজের দরকার হয় তাহলে মাইক্রো এসডি কার্ড ব্যবহার করা যাবে।

ছবি তোলার জন্য ফোনটির পিছনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা এবং সামনে রয়েছে ৫ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। এছাড়াও রয়েছে ওয়াইফাই, ব্লুটুথ, কুইক চার্জিং, এনএফসি এবং ইউএসবি সি টাইপ সুবিধা।

এতে রয়েছে ৩ হাজার ৩০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। ডিভাইসটি কালো, নীল ও সোনালী রঙে পাওয়া যাবে ।

গত কয়েকদিন ধরে প্রযুক্তি বিশ্বে গুঞ্জন চলছিলো এলজি জি৬’য়ের আপডেট সংস্করণ জি৬ প্লাস ও প্রো ঘোষণা করতে পারে প্রতিষ্ঠানটি। গুঞ্জনটি সত্যতা প্রমাণ করে এলজি জি৬ প্লাস মডেলটি বাজারে আনলেও তাতে স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ চিপসেটের প্রসেসর ব্যবহার না করায় হতাশ হয়েছে এলজি ভক্তরা।

ফোনে এরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

ঈদে চাঙ্গা ফোনের বাজার, বাড়েনি দাম

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ঈদের আগে সাজ-পোশাক কেনার পাশাপাশি তরুণদের নজর থাকে নতুন ইলেক্ট্রনিক গ্যাজেট ও মোবাইল ফোনের কেনার দিকে। অনেকেই চান ঈদে তাদের পুরাতন ফোন পরিবর্তন করে নতুন ফোন নিতে। সেজন্য ইতোমধ্যেই ঈদ উপলক্ষে স্মার্টফোন বাজারে পছন্দের ডিভাইস কিনতে ভিড় করছেন অনেকেই।

বাজেটে শুল্ক বাড়ানো হলেও ঈদের আগে বিক্রি বাড়াতে দাম বাড়াননি বিক্রেতারা। ঈদের আগে প্রতিযোগিতাও বৃদ্ধি পায় বিক্রেতাদের মধ্যে। এ কারণে ক্রেতা ধরে রাখতে এমন পদক্ষেপ নিয়েছেন বলে বিক্রেতাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

মোবাইল বাজারে বাজেটের প্রভাব না পড়া এবং ঈদের উপলক্ষ থাকায় গত কয়েকদিন স্মার্টফোনের বাজার কিছুটা চাঙ্গা। বিক্রেতারা বলছেন, বিক্রি বেড়েছে তুলনামূলক বেশি। রাজধানীর অন্যতম মোবাইল মার্কেট বসুন্ধরা শপিং সিটি ঘুরে দেখা মেলে কিছু চিত্রের।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, ক্রেতাদের কাছে মিডরেঞ্জ ফোনে চাহিদা বেশি। এছাড়াও ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইসের প্রতি গ্রাহকদের রয়েছে বিশেষ আগ্রহ। তবে অনেক ক্রেতা ব্যাকআপ ফোন হিসেবে ফিচার ফোন কিনছেন বলেও বিক্রেতারা জানান।

স্যামসাং, আসুস, হুয়াওয়ে, শাওমি, এলজি, অপ্পো’র মতো ব্র্যান্ডের পাশাপাশি বাজারে দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটন, উই, সিম্ফোনির বিক্রি বেশ।

ফোন কিনতে আসা বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া হাসান নামের একজন টেকশহরডটকমকে জানান, ঈদের পোশাক কেনাকাটা বাদ দিয়ে তিনি ফোন কিনেছেন। আগের ফোন নষ্ট  হওয়ায় নতুন ফোন কেনা। তার বাজেট অনুযায়ী শাওমি রেডমি৪ এক্স কেনেন তিনি।

শাওমি ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস এমআই৬ বিক্রি হচ্ছে ৪০ হাজার টাকায়। এছাড়া শাওমি রেডমি৪ এক্স ফোনের দাম ১৫ হাজার ৪৯০ টাকা। এতে রয়েছে ৫ ইঞ্চি পর্দা, ৩ জিবি র‍্যাম, ৩২ জিবি রম, ১৩ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।

বসুন্ধরা সিটি শপিং কমপ্লেক্সের ফোন বিক্রেতা প্রতিষ্ঠান গাজী ইলেকট্রনিক্সের কর্মকর্তা রিমন আহমেদ টেকশহরডটকমকে জানান, ঈদ উপলক্ষে ফোনের বিক্রি ভালো হচ্ছে। গ্রাহকরা মধ্যম বাজেটের কিনতে বেশি আগ্রহী। ফোনের পাশাপাশি কভার, হেডফোন ও পাওয়ার ব্যাংকের বিক্রিও বেড়েছে।

দেশীয় ব্র্যান্ড ওয়ালটনের ১.৩ গিগাহার্জের কোয়াড কোর প্রসেসর, ২ জিবি র‍্যাম, ১৬ জিবি রমের প্রিমো এন৩ ফোনের দাম ১০ হাজার ২৯০ টাকা। প্রিমো আরএম৩ এস ফোনের দাম ১৪ হাজার ৪৯০ টাকা। এতে রয়েছে ৫.২ ইঞ্চি পর্দা, ১.৩ হাজার গতির অক্টাকোর প্রসেসর, ১৩ মেগাপিক্সেলের ক্যামেরা।

অপ্পো’র সেলফি এক্সপার্ট এফ৩ প্লাস ফোনের দাম ৩৯ হাজার ৯৯০ টাকা। এতে রয়েছে ৬ ইঞ্চি পর্দা। সামনের ক্যামেরা ১৬ মেগাপিক্সেল ক্ষমতার। এতে আছে অক্টাকোর প্রসেসর, ৪ জিবি র‍্যাম এবং ৬৪ জিবি রম।

এদিকে চলতি সপ্তাহে দেশের বাজারে এসেছে আসুস জেনফোন লাইভ। বিশ্বের প্রথম স্মার্টফোন হিসেবে এতে হার্ডওয়্যার অপ্টিমাইজড প্রযুক্তি ব্যবহার করে সরাসরি সৌন্দর্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। এর বিল্টইন অ্যাপ ‘বিউটি লাইভ’ দিয়ে ব্যবহারকারীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে সরাসরি যেতে পারবেন। এতে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে লাইভে যাওয়ার বিশেষ সুবিধা আছে। স্মার্টফোনটির বিক্রি হচ্ছে ১৩ হাজার ৯৯০ টাকায়।

স্যামসাংয়ের ইনফিনিট ডিসপ্লের ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস এস৮ ও এস৮ প্লাস বিক্রি হচ্ছে যথাক্রমে ৭৭ হাজার ৯০০ এবং ৮৩ হাজার ৯০০ টাকায়। এছাড়া গ্যালাক্সি সি৯ প্রো ফোনের দাম ৪৯ হাজার ৯০০ টাকা ও গ্যালাক্সি এ৭ (২০১৭) ৪৪ হাজার ৯০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

স্যামসাংয়ের বিক্রয় কর্মী আব্দুল রহমান টেকশহরডটকমকে জানান, ঈদের সময়টা সব সময় বিক্রি ভালো থাকে। এবারও তার ব্যতিক্রম নয়।

স্মার্টফোনের পাশাপাশি মেমোরি কার্ড, মোবাইল ফোনের কভার, হেডফোন, পাওয়া ব্যাংক, ব্লুটুথ স্পিকার ইত্যাদি পণ্যের বিক্রি বেড়েছে। যে সকল গ্রাহকরা নতুন ফোন কিনতে পারছেন না তারা নতুন কভার বা মেমোরি কার্ড কিনে ফোনটি নতুন করে নিতে চাইছেন।

মোহাম্মদ শাহজাহান চাকরি করেন ব্যাংকে। তিনি টেকশহরডটকমকে জানান, ঈদের আগে নিজের ফোনকে আকর্ষণীয় করতে তিনি কাভার কিনছেন। সঙ্গে একটি মেমোরি কার্ডও নিয়েছেন। সেই সাথে ঈদের সময় যেন ফোনের ব্যাটারি ব্যাকআপ নিয়ে ঝামেলায় না পড়তে তাই কিনেছেন একটি পাওয়ার ব্যাংক।

তুসিন আহমেদ

১০ লাখের বেশি বিক্রি গুগলের পিক্সেল ফোন

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ১০ লাখের বেশি বিক্রি হয়েছে গুগলের পিক্সেল স্মার্টফোন। তবে সার্চ জায়ান্টটি এখনো অফিসিয়ালভাবে তথ্যটি প্রকাশ করেনি।

কত ইউনিট পিক্সেল ফোন বিক্রি করেছে তার হিসাবে মিলেছে ‘পিক্সেল লঞ্চার’ অ্যাপের মাধ্যমে। এই লঞ্চারটি গুগলের ফ্ল্যাগশিপ ফোনটির জন্য বিশেষভাবে তৈরি করা হয়েছে। গুগলের প্লেস্টোরে দেখাচ্ছে, গত আট মাসে এটি ১০লাখ থেকে ৫০ লাখ পর্যন্ত ডাউনলোড হয়েছে।

পিক্সেল ফোন ছাড়াও অ্যাপটি পিক্সেল সি ট্যাবলেটের কাজ করে। তাই সঠিক হিসাবে কষে বের করা যাচ্ছে না পিক্সেল ফোন বিক্রি হয়েছে।

তবে ফোন বিষয়ক ওয়েবসাইট জিএসএমএরিনা মনে করছেন এই পর্যন্ত ১০ বেশি পিক্সেল ফোন বিক্রি হয়েছে।

বিশ্লেষকরা ধারণা করছেন, প্রথম ডিভাইস এনে ১০ লাখ বিক্রি গুগলের জন্য শুভযাত্রা বলা যায়। এই ধারাবাহিকতা বজায় রাখতে চলতি বছর পিক্সেল ২ নিয়ে হাজির হতে যাচ্ছে গুগল।

উল্লেখ্য ইতোমধ্যে প্রযুক্তি দুনিয়াতে পিক্সেল ২ নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়ে গেছে। ধারণা করা হচ্ছে, পিক্সেল ফোনে থাকতে পারে ৫ ইঞ্চির ২কে ডিসপ্লে।

কার্ভ ডিসপ্লের পাশাপাশি থাকতে পারে ফিঙ্গার প্রিন্ট সেন্সর, ৬ জিবি র‍্যাম, ভার্চুয়াল রিয়েলিটিসহ উন্নত মানের প্রসেসর। এতে থাকতে পারে আরও উন্নত ক্যামেরা, যা এ বছর বাজারে উন্মুক্তের অপেক্ষায় থাকা আইফোন ৮-এর ক্যামেরা থেকে ভালো হবে।

জিএসএমএরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখার ৭ উপায়

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ফোনের গুরুত্বপূর্ণ একটি অংশ হলো ব্যাটারি। যদি ব্যাটারি সঠিকভাবে চার্জ করা না হয়ে থাকে তাহলে কম সময়ে তা নষ্ট হয়ে যেতে পারে।প্রতিটি ব্যাটারির একটি নির্দিষ্ট জীবন মেয়াদ থাকে। ফোন ব্যবহারের উপর ব্যাটারির আয়ু অনেকাংশ নির্ভর করে।

অনেকেই জানেন না কখন, কিভাবে ফোনটি চার্জ দিতে হবে। এছাড়া কোন চার্জার দিয়ে চার্জ দেয়া উচিত বা উচিত নয় তাও অজানা অনেকের।

ফোনের ব্যাটারি ভালো রাখতে তেমনটি ৭ টিপস নিয়ে এই টিউটোরিয়াল।

ফোনের নিজস্ব চার্জার দিয়ে চার্জ দেওয়া

শখের ফোনটি যদি সেই ফোনের সাথে পাওয়া চার্জারে চার্জ দেওয়া হয় তবে ব্যাটারির আয়ু বাড়ে। এখন অবশ্য ফোনে চার্জ দেওয়ার জন্য রয়েছে মাইক্রোইউএসবি পোর্ট। তাই যে কোনো চার্জার দিয়ে ফোনে চার্জ দেওয়া যায়।

তবে যদি চার্জিংয়ের সময় ফোনের নিজস্ব চার্জার ব্যবহার না করা হয় তাহলে ধীরে ধীরে ব্যাটারির চার্জ ধরে রাখার ক্ষমতা কমতে থাকে। কেননা ফোনের সঙ্গে থাকা চার্জারে নির্দিষ্ট পরিমাণ আপটপুট ভোস্টেজ এবং কারেন্ট রেটিং থাকে। যা ফোনের সঙ্গে মিলিয়ে তৈরি করা হয়ে থাকে।

সস্তা চার্জার ব্যবহার না করা

অনেক সময় ফোনের জন্য নির্ধারিত চার্জারটি হারিয়ে বা নষ্ট হয়ে যেতে পারে। সেক্ষেত্রে অনেকেই বাজার থেকে সস্তা ও অখ্যাত ব্র্যান্ডের চার্জার কেনেন। এসব চার্জারে চার্জ দিলে ফোন অতিরিক্ত গরম হয়ে যায়। চার্জ হতেও সময় বেশি নেয়। আর অ্যাডাপ্টারে সমস্যা দেখা দিলে ফোন ও ব্যাটারি দুটোই নষ্ট হতে পারে। তাই সস্তা চার্জার ব্যবহার না করাই ভালো।

কেস খুলে রাখা

যখন ফোন চার্জে দেওয়া হয় তখন ব্যাটারি কিছুটা গরম হয়ে যায়। ব্যাটারি গরমের প্রভাব ফোনে ছড়িয়ে পড়ে। তাই ফোনকে অতিরিক্ত গরমের হাত থেকে রক্ষা করতে চার্জে থাকা অবস্থায় ফোনের নিরাপত্তামূলক কেসিং বা কভার খুলে রাখা উচিত ।

সারা রাত চার্জ নয়

অনেকেই রাতের বেলা ফোন চার্জে দিয়ে ঘুমিয়ে পড়েন। এতে ফোনটি সারা রাত ধরে চার্জ হয়। এর ফলে ওভার চার্জিং হয়ে থাকে। যা ফোনের জন্য মোটেও ভালো কিছু নয়। এছাড়া সারা রাত ফোনে চার্জে দেওয়ার ফলে ব্যাটারি অতিরিক্তি গরম হয়ে বিস্ফোরণও ঘটতে পারে।

ব্যাটারি অ্যাপ্লিকেশন

ফোনের জন্য অনেক থার্ডপার্টি ব্যাটারি অপটিমাইজ অ্যাপ রয়েছে। এই অ্যাপগুলো ফোনের ব্যাকগ্রাউন্ডে চালু থাকে। এতে করে ফোনের চার্জ আরও বেশি ব্যয় হয়। এছাড়া লকস্ক্রিনটি অ্যাপগুলো এড লোড করে থাকে। তাই ফোনে আদালা কোনো ব্যাটারি অ্যাপ ব্যবহার করা উচিত নয়।

কখন চার্জে দিবেন ফোন

ফোনে ২০ শতাংশের উপরে চার্জ থাকলে চার্জ দেওয়া উচিত নয়। আবার ব্যাটারি চার্জ শূন্য করেও চার্জে দেওয়া ঠিক নয়। কেননা অপ্রয়োজনীয় রিচার্জে ব্যাটারির আয়ু কমে যায়। সেক্ষেত্রে কমপক্ষে ৫-২০ শতাংশ চার্জ থাকা অবস্থায় ফোন চার্জে দেওয়া ভালো।

পাওয়ার ব্যাংক ব্যবহারের সময়

পাওয়ার ব্যাংকের মাধ্যমে চার্জ দেওয়া অবস্থায় ফোন ব্যবহার করা উচিত নয়। কেননা পাওয়ার ব্যাংকের সাহায্যে চার্জ করার সময় ব্যাটারি গরম হয়ে যায়। একই সময় ফোনটি ব্যবহার করলে তা আরও গরম হয়ে যাবে। যা ব্যাটারির জন্য ক্ষতিকর।

তুসিন আহমেদ

ফোনকে মনিটরে পরিণত করবে যে অ্যাপ

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : আপনার হাতের স্মার্টফোনটিকে কম্পিউটারের একটি মনিটরে পরিণত করা সম্ভব। অসম্ভব এ বিষয় সম্ভব করে তুলেছে একটি অ্যাপ। জেনে নিন কিভাবে।

প্রফেশনাল কাজে কম্পিউটারে একাধিক মনিটর ব্যবহার করতে অনেককেই দেখা যায়। পৃথক মনিটরে ভিন্ন দুটি সফটওয়্যার ব্যবহার করে ঝামেলা ছাড়াই অনেক কাজ সহজে করে নেওয়া যায়। এতে সময় বাঁচে ও কাজেও গতি পাওয়া যায়।

অনেকের পক্ষে অবশ্য আলাদা একটি মনিটর কেনা সম্ভব হয়ে উঠে না। এ ক্ষেত্রে আপনার মোবাইল ফোনটিকে সেকেন্ডারি ডিসপ্লে বানিয়ে আলাদা মনিটর হিসেবে ব্যবহার করতে পারেন। ভাবছেন এওকি সম্ভব।  তেমনি একটি অ্যাপ্লিকেশন হলো স্পেসডেস্ক।

 

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচারগুলো
অ্যাপ্লিকেশনটির মাধ্যমে আপনার কম্পিউটারের স্ক্রিন শেয়ার করতে পারবেন ফোনে।

কিভাবে অ্যাপটি ব্যবহার করতে হবে তা বিস্তারিত অ্যাপের সেটিংস মেন্যুতে রয়েছে।

চাইলে স্ক্রিন রেজুলেশন অনুযায়ী শেয়ার করা যাবে। সেক্ষেত্রে স্ক্রিন রেজুলেশন সেটিংস থেকে নির্বাচন করে দিতে হবে।

এটির সাহায্যে রিমোর্ট কট্রোল হিসেবে পিসিকে নিয়ন্ত্রণও করা যাবে।

অ্যাপটি ব্যবহার করে কম্পিউটাররে সঙ্গে ফোনের সংযোগ করতে অবশ্যই একই নেটওয়ার্কের ইন্টারনেট সংযোগ লাগবে।

অ্যাপটিতে বিজ্ঞাপনের ঝামেলা নেই।

গুগল প্লে থেকে ৪.১ রেটিং প্রাপ্ত এ অ্যাপ এক লাখের অধিক ডাউনলোড হয়েছে।

এ ঠিকানা থেকে বিনামূল্যে অ্যাপটি ডাউনলোড করে ব্যবহার করা যাবে।

ফোন নিয়ে হাজির অ্যান্ড্রয়েডের জনক

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : নতুন ফোন উন্মোচন করেছেন ‘ফাদার অব অ্যান্ড্রয়েড’ খ্যাত অ্যান্ডি রুবিন।

এসেনশিয়াল ফোনটি সিরামিকের তৈরি এবং তাতে রয়েছে বেজেল বিহীন ডিসপ্লে। অ্যান্ড্রয়েডের এই জনকের ফোন নিয়ে এত দিন প্রযুক্তি দুনিয়াতে ছিল নানা গুঞ্জন। অবশেষ দেখা মিললো ফোনটির।

৫.৭১ ডিসপ্লের ফোনটির রেজুলেশন ১৩১২*২৫৬০ পিক্সেল। ডিসপ্লেতে ব্যবহার করা হয়েছে কর্নিং গরিলা গ্লাস প্রযুক্তি। ২.৪৫ গিগাহার্টজ ৬৪ বিট স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ অক্টা কোর প্রসেসর যুক্ত ফোনটিতে রয়েছে ৪ জিবি র‍্যাম ও ১২৮ জিবি ইন্টারনাল মেমোরি। গ্রাফিক্স সুবিধা দিতে রয়েছে অ্যাড্রেনো ৫৪০ জিপিইউ।

ছবি তোলার জন্য পিছনে রয়েছে ১৩ মেগাপিক্সেল ডুয়েল ক্যামেরা সেটআপ। ক্যামেরায় রয়েছে আরজিবি এবং মনোক্রোমা ক্যাপাবিলিটি লেন্স, হাইব্রিড অটোফোকাস ইত্যাদি সুবিধা। ব্যাক ক্যামেরা দিয়ে ফোরকে ভিডিও রেকর্ড করা যাবে। সেলফি ও ভিডিও চ্যাটের জন্য সামনে রয়েছে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা।

ফোনটিতে রয়েছে ব্লুটুথ ৫.০, ওয়াইফাই, এনএফসি, ইউএসবি টাইপ সি পোর্ট সুবিধা। ১৪১.৫*৭২.২*৭.৮ মিলিমিটার পুরত্বের ডিভাইসটি ওজন মাত্র ১৮৫ গ্রাম। এতে ৩ হাজার ৪০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি রয়েছে।

সাদা, কালো, ব্ল্যাক মুনসহ কয়েকটি রঙে পাওয়া যাবে ডিভাইসটি। এর মূল্য শুরু হয়েছে ৬৯৯ মার্কিন ডলার থেকে।

যুক্তরাষ্ট্রের বাজারে প্রি-অর্ডার শুরু হয়েছে ডিভাইসটি। তবে বিশ্বের অন্য দেশে কবে থেকে বিক্রি শুরু হবে সেই সম্পর্কে কোনো তথ্য বলা হয়নি।

উল্লেখ্য অ্যান্ড্রয়েড অপারেটিং সিস্টেমের নির্মাতা অ্যান্ডি রুবিন তৈরি করা ওএস বর্তমানে সবচেয়ে জনপ্রিয় মোবাইল প্লাটফর্ম। ২০১৪ সালে গুগল ছেড়ে দেন অ্যান্ডি রুবিন। অনেকটাই আড়ালে গড়ে তুলেছেন এসেনশিয়াল নামের এই প্রতিষ্ঠান। এই প্রতিষ্ঠানে তিনি নিয়োগ দিয়েছেন স্মার্টফোন নির্মাতা এইচটিসি গ্লোবালের কয়েকজন কর্মকর্তাকে। এতদিন গোপনের কাজ করছিলো প্রতিষ্ঠানটি। এবার উন্মুক্ত হওয়া ফোনটি বাজার মাতাতে পারে কিনা সেটাই দেখার বিষয়।

দ্য নেক্সট ওয়েব অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

জানা গেল শাওমি এমআই৬সি সম্পর্কে

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : শাওমির ফ্ল্যাগশিপ ফোন এমআই ৬ এর সাশ্রয়ী দামের সংস্করণ নিয়ে হাজির হচ্ছে প্রতিষ্ঠানটি। মডেলটির নাম হতে পারে এমআই ৬সি।

সম্প্রতি বেঞ্চমার্ক ওয়েবসাইট ফাঁস হয়েছে ফোনটি সম্পর্কে তথ্য। ফাঁস হওয়ার তথ্য থেকে জানা যায়, ফোনটির ডিজাইন দেখতে এমআই৬ এর মত হলেও কিছু ভিন্নতা থাকছে।

এতে ব্যবহার করা হতে পারে স্ন্যাপড্রাগন ৬৬০ প্রসেসর। ৫.১ ইঞ্চি ডিসপ্লের ফোনটির রেজুলেশন হতে পারে ১৯২০*১০৮০ পিক্সেল। গ্রাফিক্স সুবিধা দিতে যুক্ত হতে পারে অন্ড্রেনো ৫১২ জিপিইউ। ৬ জিবি র‍্যামের ডিভাইসটিতে থাকবে ৬৪ জিবি ইন্টারনাল মেমোরি।

ছবি তোলার জন্য পিছনে থাকতে পারে ১১ এবং সামনে থাকতে পারে ৮ মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ডিভাইসটিতে অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকতে পারে অ্যান্ড্রয়েড ৭.১.১।

ফোনটি সম্পর্কে এখনো শাওমির পক্ষ থেকে কোনো তথ্য জানানো হয়নি। তবে ধারণা করা হচ্ছে, চলতি বছরই দেখা মিলতে পারে ফোনটির। কেননা শাওমি প্রতিবার ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইসের একটি কমদামী সংস্করণ বাজারে আনে। গেলো বছর এমআই৫ এর সাথে বাজারে এনেছিলো এমআই ৫সি এবং ৫ এস।

গত মাসে উন্মুক্ত হওয়া শাওমি এমআই৬ এ রয়েছে ৫.১৫ ইঞ্চি কার্ভ ডিসপ্লে। ফোনটির পিছনের বডিতে কার্ভ গ্লাস দেওয়া হয়েছে।

ডিভাইসটিতে রয়েছে স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫ অক্টা কোর প্রসেসর এবং ৬ জিবি র‍্যাম। উন্নত গ্রাফিক্স সুবিধা দিতে রয়েছে ৫৪০ জিপিইউ। শক্তিশালী এ প্রসেসর বর্তমানে শুধু স্যামসাং গ্যালাক্সি এস৮ ডিভাইসে ব্যবহার করা হয়েছে।

জিএসএমএরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

ডুয়েল ডিসপ্লের এলজির নতুন ফোন ভি৩০

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : চলতি বছরই এলজি স্লাইডিং সুবিধাযুক্ত ফোন আনতে যাচ্ছে। এলজি ভি৩০ নামে ফোনটি সম্পর্কে প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে কোনো তথ্য না জানালেও অনলাইনে ফাঁস হয়েছে ছবি। তথ্য ফাঁসে বিখ্যাত ইভান ব্লাস ফোনটি ছবি অনলাইনে প্রকাশ করেছে।

প্রকাশিত ছবি দেখে বোঝা যাচ্ছে, ফোনটির মূল ডিসপ্লে স্লাইড করা যাবে। স্লাইড করলে নিচের দিকে একটি ছোট ডিসপ্লে প্রদর্শিত হবে। যা সেকেন্ডারি ডিসপ্লে হিসেবে কাজ করবে। এতে অ্যাপ্লিকেশন মেনু এবং টাচ কিবোর্ড প্রদর্শিত হবে।

LG-V30-render-techshohor
ধারণা করা হচ্ছে, ফোনটিতে থাকবে ৫.৮ ইঞ্চি কিউএইচডি ডিসপ্লে। ৬ জিবি র‍্যামের পাশাপাশি ইন্টারনাল মেমোরি হিসেবে থাকবে ১২৮ জিবি স্টোরেজ। অপারেটিং সিস্টেম হিসেবে থাকতে পারে অ্যান্ড্রয়েডের সর্বশেষ সংস্করণ। প্রসেসর হিসেবে থাকতে পারে স্ন্যাপড্রাগন ৮৩৫।

ব্যাটারি সুবিধা দিতে থাকতে পারে ৫ হাজার ৫০০ মিলিঅ্যাম্পিয়ার ব্যাটারি। এছাড়া ইইউএসবি টাইপ সি, পানিরোধক, ব্লুটুথ, ফিঙ্গারপ্রিন্ট প্রযুক্তি তো থাকবেই।

ধারণা করা হচ্ছে, চলতি বছর সেপ্টেম্বর মাসে ফোনটির ঘোষণা দিতে পারে এলজি। এটি হবে প্রতিষ্ঠানটি ফ্ল্যাগশিপ ডিভাইস। তবে স্লাইডিং ডিসপ্লে ফোনটি ব্যবহারকারী পছন্দ করবে কিনা সেটিই এখন দেখার বিষয়।

এক নজরে ভিডিওতে দেখে নিন ডিভাইসটি দেখতে কেমন হতে পারে :

দ্য ভার্জ অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন: 

সনির এক্স সিরিজের উৎপাদন বন্ধ!

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : সুন্দর ডিজাইন ও পানিরোধক সুবিধার জন্য এক সময়কার খ্যাতি পাওয়া ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান সনি ব্যবসায় সুবিধা করতে পারছে না। সময়ের সাথে পাল্লা দিয়ে বিক্রি কমছে প্রতিষ্ঠানটির স্মার্টফোনের। তাই প্রিমিয়াম মানের এক্সপেরিয়া এক্স সিরিজের স্মার্টফোন উত্পাদন বন্ধ করতে যাচ্ছে সনি।

বিনিয়োগকারীদের এক সম্মেলনে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানানো হয় এক্সপেরিয়ার এক ব্লগপোস্টে।

এক্স সিরিজের একাধিক ডিভাইস গত বছর বাজারে এনেছে সনি। প্রতিষ্ঠানটি ধারণা করেছিল, প্রিমিয়াম এই সিরিজ বাজার মাতাবে। কেননা প্রতিষ্ঠানটি চেষ্টা করেছিল, ডিভাইসগুলোতে সর্বশেষ প্রযুক্তি ও ফিচার রাখার। কিন্তু ধারণা ভুল প্রমাণ করে বিক্রির বিপরীতে কম মুনাফা এবং প্রত্যাশিত ইউনিট বিক্রিতে ব্যর্থ হয় প্রতিষ্ঠানটি।

sony-x-techshohor

জাপানে ভালো সাড়া ফেললেও আশা পূরণ হয়নি। প্রতিষ্ঠানটি জাপানে নির্ধারিত বিক্রি লক্ষ্যমাত্রার ৮৫ শতাংশ পূরণ করা সম্ভব হয়েছে।

এদিকে আন্তর্জাতিক বাজারে মাত্র ৩১ শতাংশ লক্ষ্য পূরণ করতে পেরেছে সনি। তাই প্রতিষ্ঠানটিতে বিনিয়োগকারীরা এই সিরিজটি নিয়ে কোনো ভরসা পাচ্ছে না। ফলে সিরিজটি বন্ধ করা হচ্ছে।

উল্লেখ্য, গেলো বছর সি এবং এম সিরিজের উৎপাদন বন্ধ করেছে প্রতিষ্ঠানটি। আশা করেছিল নতুন এক্স সিরিজ দিয়ে বাজার মাতানোর। তবে সেটাও অপূর্ণ থেকে যাচ্ছে। নতুন কোনো সিরিজ বাজারে আনবে কিনা প্রতিষ্ঠানটি সেই সম্পর্কে কোনো তথ্য জানায়নি।

এক্সপেরিয়া ব্লগপোষ্ট এবং জিএসএমএরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

২০ বছরে এইচটিসি, অজানা পাঁচ কথা

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : তাইওয়ানের ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান এইচটিসি ২০ বছরের পা দিলো। ১৯৯৭ সালের মে মাসে প্রতিষ্ঠানটি যাত্রা শুরু করেছিল। দুই দশক পূর্তিতে ইউটিউবে একটি ভিডিও প্রকাশ করেছে প্রতিষ্ঠানটি।

৩ মিনিট ২ সেকেন্ডের ভিডিওটিতে ধারাবাহিকভাবে এইচটিসি কোন কোন ডিভাইস বাজারে এনেছিলো এবং প্রতিষ্ঠানটির বিষয়ে কয়েকটি নতুন তথ্য তুলে ধরা হয়েছে।

htc-techshohor

১. ফোন নির্মাতা প্রতিষ্ঠান হিসেবে খ্যাতি পেলেও এইচটিসির পূর্ণনাম হাই টেক কম্পিউটার কর্পোরেশন। প্রতিষ্ঠানটি শুরুর দিকে নোটবুক কম্পিউটার প্রস্তুত করতো।

২. উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমে চলা প্রথম ফোনটি এইচটিসি প্রস্তুত করে ২০০২ সালে।

৩. ২০০৭ সালে ডুপড ইন্টারন্যাশনাল নামে একটি মোবাইল প্রতিষ্ঠান অধিগ্রহণ করে এইচটিসিটি। ২০০৯ সালে ‘quietly brilliant’ ট্যাগ লাইন যুক্ত করে প্রতিষ্ঠানটি।

৪. এইচটিসি ইভো ৪জি নামে বিশ্বের প্রথম ফোরজি সুবিধার ফোন তৈরি করেছিলো প্রতিষ্ঠানটি।

৫. গ্রাহকদের ব্যবহারের উপযোগী করে প্রথম অ্যান্ড্রয়েড চালিত ফোন  বাজারে এনেছিলো প্রতিষ্ঠানটি।

এছাড়া উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম চালিত ২০০৫ সালে থ্রিজি ফোন তৈরি করে এইচটিসি। জিপিএসযুক্ত ফোনও সেই সময় তৈরি করেছিলো প্রতিষ্ঠানটি।

জিএসএমএরিনা অবলম্বনে তুসিন আহমেদ

আরও পড়ুন: