নতুন ফিচারে আমাদের রেল অ্যাপ

তুসিন আহমেদ, টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : এখনও ট্রেনকে নিরাপদ ভ্রমণের ভরসা মানেন বেশিরভাগই। নতুন বা পুরনো গন্তব্যে যেতে রেলকেই বেছে নিতে চান সবার আগে। তবে টিকেট কাটতে দীর্ঘ লাইনে দাঁড়ানো কিংবা সময়সূচী নিয়ে দ্বিধায় থাকার কারণে কেউ কেউ বিমুখ গণপরিবহনের এ সেবা নিতে।

এ ঝামেলা থেকে মুক্তি দিতে দেশীয় অ্যাপ্লিকেশন প্রতিষ্ঠান ডিকোড উন্মুক্ত তৈরি করেছিল আমাদের রেল অ্যাপ্লিকেশনটি।

সম্প্রতি চমৎকার এ অ্যাপকে নতুন রূপে ও আরও নতুন ফিচার দিয়ে সাজিয়েছে প্রতিষ্ঠানটি।

 

amader-rel-techshohor

ডেভেলপার প্রতিষ্ঠানটির সহ প্রতিষ্ঠাতা মো. সোহাগ মিয়া টেকশহর ডটকমকে জানান, আমাদের রেল অ্যাপটি বেশ সাড়া ফেলেছিল যাত্রীদের মাঝে। ব্যবহারকারীদের কথা ভেবেই নতুন আপডেট আনা হয়েছে। ফলে ব্যবহারকারীদের ট্রেন যাত্রা আরও সহজ হবে।

এক নজরে অ্যাপ্লিকেশনটির ফিচারগুলো

১. এতে রয়েছে দেশের সব ট্রেনের শিডিউলের বিস্তারিত তথ্য।

২. সব স্টেশনের লোকেশন জানা যাবে।

৩. সবগুলো জেলা বা বিভাগে যাতায়াতের জন্য ট্রেনের টিকিটে কত খরচ হবে তা জানা যাবে।

৪. অ্যাপটিতে রয়েছে ট্রেন ট্র্যাকিং সুবিধা। বিলম্বের বিষয়টি জেনে যাবেন সহজেই।

৫. এসএমএসয়ের মাধ্যমে মোবাইল টিকেট কেনা বা বুকিং সুবিধা পাওয়া যাবে।

৬. আরও আছে রেলের বিভিন্ন খবর পাবার জন্য নোটিশ বোর্ড।

৭. রেলের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তাদের টেলিফোন বা মোবাইল নাম্বার।

৮. এতে সব তথ্য বিভাগ অনুযায়ী সাজানো আছে। ফলে সহজে যে কোনো ট্রেন বা স্টেশন সম্পর্কে জানতে পারবেন ব্যবহারকারীরা।

 

৯. এটি অফলাইনেও ব্যবহার করা যাবে। তাই একবার ডাউনলোডের পর ইন্টারনেট সংযোগের প্রয়োজন হবে না।

গুগল প্লেস্টোরে ৪.৫ রেটিং প্রাপ্ত অ্যাপ্লিকেশন ৫০ হাজারের অধিক ডাউনলোড হয়েছে।

এ ঠিকানা থেকে অ্যাপ্লিকেশনটির ডাউনলোড করা যাবে।

দেশীয় অ্যাপবাজার থেকেও অ্যাপটি ডাউনলোড করা যাবে।

আরও পড়ুন

ভারতীয় রেলে এসএমএসে খাবারের অর্ডার

টেক শহর কনটেন্ট কাউন্সিলর : ভারতে রেল সেবায় আরও আধুনিকমাত্রা যোগ করার উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। যাত্রী সেবায় ভিন্নতর নতুনত্ব আনার চেষ্টা। এরই ধারাবাহিকতায় টিকিট কাটা, বুকিং, ট্রেনের সময়সূচীর পর এবার এসএমএস করে খাবার অর্ডার দেওয়ার ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

ভ্রমনের সময় মোবাইলে এসএমএস এর মাধ্যমে অর্ডার দেওয়ার এ সুবিধা চালুর কথা জানিয়েছে রেলওয়ের ক্যাটারিং অ্যান্ড টুরিজম কর্পোরেশন।

প্রতিষ্ঠানটির ই-ইটারিং সার্ভিসের আওতায় আগামী ২৫ সেপ্টেম্বর থেকে প্রাথমিকভাবে কয়েকটি নির্দিষ্ট ট্রেনে এ সেবা চালু করা হবে।

আরও পড়ুন: ২০ হাজার এসএমএস দিয়ে কারাগারে প্রেমিক

মোবাইল-এসএমএস-রেল-টেকশহর

পরিকল্পনা অনুযায়ী যাত্রী টিকিটে থাকা ১০ ডিজিটের একটি পিএনআর বা যাত্রীর পরিচিতি নম্বরসহ এসএমএস দেওয়ার পর ওই যাত্রীর সঙ্গে যোগাযোগ করবে দায়িত্বপ্রাপ্তরা।

ট্রেনে যাত্রীর অবস্থান শনাক্ত ও যাত্রীর খাবারের তালিকা নেওয়ার জন্য ফোন করা হবে এসএমএস করা যাত্রীকে। খাবারের দাম নেওয়া হবে অর্ডার ডেলিভারি দেওয়ার পর।

এসএমএম সার্ভিসের পাশাপাশি অনলাইনে খাবারের অর্ডার নেওয়ার পরিকল্পনাও অল্প সময়ের মধ্যেই বাস্তবায়ন করা হবে বলে জানিয়েছেন কর্পোরেশনের এক কর্মকর্তা। যদিও রেলে খাবারের মান নিয়ে সবসময় প্রশ্ন ছিল ভারতীয়দের। এ বিষয়ও বিবেচনায় রাখছে কর্তৃপক্ষ। সে কারণে খাদ্য তৈরি করা নামী চেইনসপগুলোর সঙ্গে চুক্তি করা হয়েছে।

যে কয়েকটি ট্রেনে এ সার্ভিসগুলো চালু করা হচ্ছে কিছুদিন আগে ওই ট্রেনগুলোতে যাত্রীদের জন্য রেডি টু ইট নামে খাবারের প্যাকেজ পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়েছিল। যা যাত্রীদের মধ্যে ভাল সাড়া ফেলে বলে জানান কর্মকর্তারা।

১৮৫৩ সালে প্রতিষ্ঠিত হওয়া ভারতীয় রেল বিভিন্ন সময়ে যাত্রীদের জন্য নতুন সেবা চালু করেছে। প্রযুক্তির প্রসারের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এসব সেবা চালু করেছে দেড় শতাব্দীর পুরনো প্রতিষ্ঠানটি। এরই ধারাবাহিকতায় ২০০৩ সালে অনলাইনে টিকেট দেওয়ার সেবা চালু করে ইন্ডিয়ান রেলওয়ে।

বিশ্বের সবচে বড় সরকারি প্রতিষ্ঠান ভারতীয় রেলওয়ে। তাদের রয়েছে ১৪ লাখ ৬ হাজার ৬৩০ জনের বিশাল কর্মী বাহিনী। দেশটির সবচে বড় পরিবার বলা হয় ভারতীয় রেলকে। প্রতিদিন এক কোটি ৮০ লাখ যাত্রী এ পরিবারের সেবা নিয়ে থাকে।

– বিজনেস লাইন অবলম্বনে সৌমিক আহমেদ

আরও পড়ুন:

অনলাইন ও এসএমএসে এইচএসসি পরীক্ষার ফল জানার উপায়

এসএমএসে প্রধানমন্ত্রীর ঈদ শুভেচ্ছা

এসএমএসে ঘুরপাক খাচ্ছে বিসিএস কার্যক্রম